শ্রীপুরে প্রসূতির মৃত্যু : ডাক্তার পালিয়েছেন

  শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি ০৪ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শ্রীপুর উপজেলার বরমী বাজারের ইনসাফ ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড হসপিটালে চিকিৎসায় সন্তান প্রসবের পর এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে। ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর অভিযোগ করেছে প্রসূতির পরিবার।

নিহতের মা সাবিনা ইয়াসমিন শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের সোহাদিয়া গ্রামের শাহিদের স্ত্রী। রোববার সন্ধ্যায় ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে প্রসূতির মৃত্যু হয়।

প্রসূতির স্বামী শাহিদ জানান, রোববার বেলা ১২টার দিকে ইনসাফ ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড হসপিটালে স্ত্রীকে শারীরিক পরীক্ষা করানোর জন্য নিয়ে যান। সেখানে পরীক্ষা শেষে হাসপাতালের পরিচালক ডা. মুশফিকুর রহমান পলাশ ওইদিনই রোগীর সিজারিয়ান অপারেশন করার তাগিদ দেন। তা না হলে মা ও শিশু দুজনেরই জীবন-মৃত্যুর ঝুঁকি রয়েছে। চিকিৎসকের পরামর্শে তিনি অপারেশনে রাজি হন।

বিকাল ৫টার দিকে ওই ক্লিনিকের পরিচালক ডা. পলাশ সিজারিয়ান অস্ত্রোপচার করলে প্রসূতির কোলে এক ছেলে সন্তান হয়। সন্ধ্যায় চিকিৎসক পলাশ তাকে ফোনে জানান, নবজাতক সুস্থ থাকলেও মায়ের অবস্থা সংকটাপন্ন।

স্বামী শাহিদ আরও অভিযোগ করে বলেন, আমি ক্লিনিকে যাওয়ার আগেই ডা. পলাশ তাড়াহুড়ো করে প্রসূতি মাকে অ্যাম্বুলেন্সে উঠিয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে রওনা হয়। হাসপাতালে নেয়ার পথে আমার স্ত্রী মারা যান। মৃত্যুর পর ডায়াগনস্টিকের পরিচালক মুশফিকুর রহমান পলাশ পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে জানতে চিকিৎসককে ফোন দিলেও বন্ধ পাওয়া যায়।

শ্রীপুর থানার ওসি জাবেদুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×