সোনারগাঁয়ে স্কুলড্রেস নিয়ে প্রধান শিক্ষকের বাণিজ্য

  যুগান্তর রিপোর্ট, সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) ১২ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের ভট্টপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিআর বিলকিসের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অধিক টাকা নিয়ে নতুন ড্রেস বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। স্কুল ড্রেস পরিবর্তনের অজুহাতে তিনি এ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ড্রেস পরিবর্তন না করার জন্য ওই স্কুলের অভিভাবকরা গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করে বৃহস্পতিবার সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকারের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। এছাড়াও অভিভাবকরা নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন ও প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র বিশ্বাসের কাছে অনুলিপি প্রদান করেছেন। এর আগেও শিক্ষার্থীরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাছে অভিযোগ করেছেন। এতে কোনো ফল পাননি শিক্ষার্থীরা। অভিভাবকদের অভিযোগ, এ বিদ্যালয়টি দেশের স্বনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার অজুহাতে প্রধান শিক্ষক বিআর বিলকিস মনগড়ামতো স্কুল পরিচালনা করছেন। এ বিদ্যালয়ে অভিভাবকদের মতামতের কোন প্রাধান্য দেয়া হয় না।

মাসুদুর রহমান নামের এক অভিভাবক বলেন, প্রধান শিক্ষক সবার মতামতের বিরুদ্ধে এ স্কুলের ড্রেস পরিবর্তন করেছেন। এখানের প্রায় ১২শ’ শিক্ষার্থী পড়াশোনা করেন। বেশিরভাগ শিক্ষার্থী দরিদ্র পরিবারের। বছরের শেষ দিকে এ ড্রেস পরিবর্তন করলে অনেকের পক্ষে আটশ’ বা এক হাজার টাকা দিয়ে ড্রেস কেনা সম্ভব নয়। শুধু তিনি বাণিজ্যের জন্যই সবার মতামতের বিরুদ্ধে বছরের শেষ দিকে পরিবর্তন করছেন।

আছমা নামের এক অভিভাবক বলেন, এই সময়ে বিদ্যালয়ের ড্রেস পরিবর্তন করার কোনো প্রয়োজন আছে বলে মনে করি না। প্রধান শিক্ষক আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার জন্য অন্য জায়গা থেকে ড্রেস বানিয়ে শিক্ষার্থীদের কাছে বিক্রি করছেন।

প্রধান শিক্ষক বিআর বিলকিস বলেন, ড্রেস বিক্রির অভিযোগ সত্য নয়। প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থীকে সভাপতি ড্রেস ফ্রি দিয়েছেন। ডিসেম্বর মাসে নোটিশের মাধ্যমে অভিভাবকদের অবগত করেই ড্রেস পরিবর্তন করেছি।

সোনারগাঁ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নিখিল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, ড্রেস পরিবর্তনের সময় ডিসেম্বর মাসে। তবে ড্রেস পরিবর্তনের বিষয়টি স্কুলের শিক্ষকদের আওতায় থাকে। বছরের প্রথমে ড্রেসের কাপড় ও রং বাছাই করে অভিভাবকদের ডেকে ড্রেস তৈরি করতে বলে দেবেন। তবে তিনি যদি ড্রেস বিক্রি করে থাকেন তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, এ বিষয়ে আমার কাছে অভিযোগ এসেছে। বছরের শেষ সময়ে ড্রেস পরিবর্তনের কোনো নিয়ম নেই। তাদের ডেকে ড্রেস বিক্রি বন্ধ করে দেয়া হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×