হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে সেমিনার

রোহিঙ্গা সংকটে বিশ্ব সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

প্রকাশ : ২১ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  বাসস

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, এ সংকট সমাধানে বিশ্ব বিবেককে এগিয়ে আসতে হবে। শুক্রবার হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের হার্ভার্ড কেনেডি স্কুলের ‘অ্যাশ সেন্টার ফর ডেমোক্রেটিক গভর্ননেন্স অ্যান্ড ইন্নোভেশন’ সেন্টারে আয়োজিত ‘ইন্টারন্যাশনাল রোহিঙ্গা অ্যাওয়ারনেস কনফারেন্স’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান আলোচকের বক্তৃতায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক পদক্ষেপের পাশাপাশি এর সমাধানে শিক্ষাবিদ, গবেষক ও বিশ্বের খ্যাতনামা উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহকে ভূমিকা রাখতে হবে, যাতে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের টেকসই ও স্থায়ী প্রত্যাবাসন নিশ্চিত হয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বাংলাদেশের পক্ষে যা সম্ভব তার সবকিছুই বাংলাদেশ সরকার করে যাচ্ছে। বোস্টনস্থ অর্থনীতিবিদ ড. আবদুল্লাহ শিবলী, ড. ডেভিড ড্যাপাইচ ও সমাজকর্মী নাসরিন শিবলী এই সেমিনারের আয়োজন করেন। সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার (ইউএনএইচসিআর)-এর নিউইয়র্কস্থ কার্যালয়ের পরিচালক নিনেথ কেলি এবং হার্ভার্ড কেনেডি স্কুলের ভিয়েতনাম ও মিয়ানমার কর্মসূচির সিনিয়র ইকোনমিস্ট ও প্রফেসর ইমেরিটাস ড. রেডভিড ড্যাপাইচ। এতে মডারেটর ছিলেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক এবং হার্ভার্ডের অ্যাশ সেন্টার ফর ডেমোক্রেটিক গভর্ননেন্স-এর পরিচালক এন্থনি সাইচ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ১ দশমিক ১ মিলিয়ন রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয় দেয়ার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদারতা দেখিয়েছেন। এই মানুষগুলোকে আশ্রয় না দিলে তাদের আর যাওয়ার কোনো যায়গা ছিল না। তিনি বলেন, রাখাইন রাজ্যে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার আস্থা ও নিরাপত্তা সৃষ্টিকারী কোনো অনুকূল পরিবেশই মিয়ানমার সৃষ্টি করতে পারেনি। পরিবর্তে মিয়ানমার বিষয়টি নিয়ে ব্লেইম গেম খেলছে। অনুষ্ঠানে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও পার্শ্ববর্তী অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। সেমিনার শেষে পরাষ্ট্রমন্ত্রী স্থানীয় একটি হোটেলে প্রবাসী বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। উভয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ওয়াশিংটন ডিসিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন, জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল নিউইয়র্কের কনসাল জেনারেল মিস সাদিয়া ফয়জুন্নেছা প্রমুখ।