১৫ ও ২১ আগস্ট হত্যাকাণ্ড একই ষড়যন্ত্রের অংশ

-ওবায়দুল কাদের

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৩ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্ট হত্যাকাণ্ড একই ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতা। ১৫ আগস্ট ষড়যন্ত্রের প্রধান লক্ষ্য (প্রাইম টার্গেট) ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আর ২১ আগস্টের প্রধান লক্ষ্য ছিলেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ১৯৭১ সালের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে স্বাধীনতাবিরোধীরা। আর এ ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন।

জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিয়া খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক এবং মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মেরিনা জাহান কবিতা, পারভীন জামান কল্পনা, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পদক মাহমুদা বেগম ক্রিক, মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী আসমা জেরিন ঝুমু, শিরিন রোকসানা, শেখ আনার কলি পুতুল, সুরাইয়া বেগম ইভা, শাহিদা তারেক দিপ্তী প্রমুখ বক্তব্য দেন।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সময় ক্ষমতায় ছিল কারা? ২১ আগস্ট হত্যাকারীদের নেতা হরকাতুল জিহাদ নেতা মুফতি হান্নান জবানবন্দিতে বলেছেন হাওয়া ভবনের পরিকল্পনায় তারেক রহমানের নির্দেশে তারা হামলা করেছেন। এ ঘটনার মাস্টারমাইন্ড তারেক রহমান- এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই। এটা প্রচলিত আদালতে প্রমাণিত হয়েছে। জনতার আদালতে প্রামাণিত, ইতিহাসের আদালতেও প্রমাণ হবে। বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ ঘটনায় জড়িত না থাকলে এফবিআইকে তদন্ত করতে বাধা দিলেন কেন? স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডকে আসতে বাধা দিলেন কেন? আপনারা যদি মাস্টারমাইন্ড না হন, তাহলে জজ মিয়া চিত্রনাট্য সাজিয়েছিলেন কেন? ২২ আগস্ট সকালের আগে কেন সব আলামত নষ্ট করে দিলেন? হামলাকারীদের চোখের সামনে চলে যেতে দেয়া হল কেন? এর জবাব কি বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দেবেন? ২৫ ফেব্রুয়ারি পিলখানা হত্যাকাণ্ড নিয়ে বিএনপির অভিযোগ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, পিলখানার ঘটনার দিন সূর্য ওঠার আগে খালেদা জিয়া বাসা থেকে বের হয়ে ২৪ ঘণ্টা নিখোঁজ ছিলেন, তিনি কোথায় ছিলেন? যিনি দুপুরের আগে ঘুম থেকে উঠেন না, তিনি সূর্য ওঠার আগে বাসা থেকে বেরিয়ে থাকলেন। এতে প্রমাণ হয়- এ ঘটনার জন্য তারা দায়ী। পিলখানা হত্যাকাণ্ডের সময় আপনার (মির্জা ফখরুল) নেত্রী কোথায় ছিলেন, এর জবাব কি দেবেন? ওবায়দুল কাদের বলেন, নবাব সিরাজউদ্দৌলার সঙ্গে মীরজাফর বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল। মীরজাফররা সব জায়গায় থাকে। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে খন্দকার মোশতাক বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল। এটা আওয়ামী লীগের জড়িত থাকার বিষয় নয়। সিরাজউদ্দৌলার সঙ্গে সেনাপতি ইয়ার লতিফ বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন, বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে জিয়াউর রহমান বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন। বঙ্গবন্ধু হত্যার সঙ্গে জিয়াউর রহমান যদি জড়িতই না থাকবেন, তাহলে খুনিদের বিদেশে নিরাপদে যেতে দিলেন কেন? তাদের দূতাবাসে চাকরি দিলেন কেন? পুরস্কৃত করলেন কেন? মির্জা ফখরুলকে এর জবাব দিতে হবে। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার কে বন্ধ করেছিলেন? কে ইনডেমিনিটি দিয়েছিল, এটি সংবিধানে কে অন্তর্ভুক্ত করেছিল? এর জবাব আপনাদের দিতে হবে মির্জা ফখরুল। ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, অনেকে বলেন আমরা সংলাপ করি না। বঙ্গবন্ধু হত্যাকারীদের পুরস্কৃত করে ইনডেমনিটি দিয়ে রাজনৈতিক দলের সঙ্গে রাজনৈতিক দলের কর্ম সম্পর্কের অলঙ্ঘিত দেয়াল তৈরি করা হয়। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পর সেই দেয়াল আরও উঁচু হয়েছে। সেই দেয়াল আমরা ভুলি কীভাবে? ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে আপনারা হত্যার পরিকল্পনা করে আওয়ামী লীগের ওপর দোষ চাপানোর চেষ্টা করেছেন। এর বিচার প্রচলিত আদালতে হয়েছে। জনতার আদালতে হয়েছে। ইতিহাসের আদালতেও হবে। এতকিছুর পরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে খালেদা জিয়াকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। খালেদা জিয়া কী অস াব্য ভাষায় গালাগাল করেছিলেন সবাই জানেন। এরপর পুত্রহারা মাকে সান্ত্বনা দিতে গিয়েছিলেন শেখ হাসিনা। কিন্তু মুখের ওপর দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেন, যারা এদেশের স্বাধীনতাকে মেনে নিতে পারেনি, মুক্তিযুদ্ধকে মেনে নিতে পারেনি, তারা জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করেছে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে তারা দেশকে পাকিস্তানি চেতনায় ফিরিয়ে নিতে চেয়েছিল, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা মুছে দিতে চেয়েছিল।

যে বুলেটে শেখ হাসিনা এতিম, সে বুলেটেই খালেদা জিয়া বিধবা : এদিন সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) টিএসসিতে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে ছাত্রলীগ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতির পিতার খুনিদের পুরস্কৃত ও পুনর্বাসিত করে জিয়াউর রহমান ‘অলঙ্ঘনীয় দেয়াল’ তৈরি করেন। আর ২১ আগস্ট সে দেয়ালকে আরও উঁচু করা হয়। হত্যা হত্যাকে ডেকে আনে। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার যদি করা হতো তাহলে ১৯৮১ সালে জিয়াউর রহমানের হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটত না। যে বুলেটে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা এতিম হয়েছেন সে বুলেটেই খালেদা জিয়া বিধবা হয়েছেন। ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন প্রমুখ। বিএনপি রাজনীতিতে অলঙ্ঘনীয় দেয়াল তৈরি করেছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, গণতন্ত্রের হত্যাকারীরাই গণতন্ত্রের কথা বলছে। খুনিরাই খুনের বিরুদ্ধে কথা বলছে। লজ্জা করে না ইতিহাসের সত্যকে অস্বীকার করতে? ২১ আগস্টের হামলার সঙ্গে যদি আপনারা জড়িত না থাকবেন তাহলে আলামত নষ্ট করলেন কেন? রাজনীতিতে এ ‘অলঙ্ঘনীয় দেয়াল’ আমরা কীভাবে ভুলব।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×