ডিসিদের ২-৩ ঘণ্টা থানায় থাকার নির্দেশ ডিএমপি কমিশনারের

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সেবাপ্রার্থীরা যাতে হয়রানির শিকার না হন সেজন্য ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) উপ-কমিশনারদের (ডিসি) সপ্তাহে ২-৩ ঘণ্টা থানায় থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার এক চিঠিতে ঢাকার অপরাধ বিভাগের ডিসিদের এই নির্দেশনা দেয়া হয়। রাতেই যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম।

চিঠিতে বলা হয়, প্রায়ই অভিযোগ পাওয়া যায়, নিরীহ অসহায় জনসাধারণের একটা বিরাট অংশ থানায় তার প্রাপ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আমলযোগ্য অপরাধ সংক্রান্ত অভিযোগ আমলে নেয়া হয় না, অনাকাক্সিক্ষত কালক্ষেপণ করা হয়। ভুক্তভোগীর কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা গ্রহণসহ অনেক সময় অযথা হয়রানিমূলক আচরণ করা হয়। তাই থানায় সেবার মান বৃদ্ধি ও সেবাপ্রত্যাশীরা যাতে হয়রানির শিকার না হন সে ব্যাপারে ওসিরা কার্যকর ব্যবস্থা নেবেন। পাশাপাশি জোনাল এসি ও এডিসিরা সার্বক্ষণিক থানার কার্যক্রম মনিটরিং করবেন।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট ডিসিরা তার আওতাভুক্ত প্রতিটি থানায় প্রতি সপ্তাহে অবস্থানের পরিকল্পনা করবেন। সে অনুযায়ী থানায় কমপক্ষে ২-৩ ঘণ্টা অবস্থান করে থানার বাস্তব কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করবেন। সেবাপ্রত্যাশীদের সঙ্গে কথা বলে সরাসরি আইন অনুযায়ী সমস্যার সমাধানের ব্যবস্থা করবেন।

এদিন সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে শহীদ এসআই শিরু মিয়া মিলনায়তনে ফোর্সের বিশেষ কল্যাণ সভায় সব পুলিশ সদস্যের উদ্দেশে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘আমরা সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে কাজ করতে চাই। সবার ন্যায্য সুবিধা দিতে চাই। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে নিু পদস্থ ফোর্সের দূরত্ব কমাতে কাজ করব। মানুষের জন্য ভালো কিছু করলে চূড়ান্ত বিচারে আপনি পুরস্কৃত হবেন।’ ডিএমপি কমিশনার আরও বলেন, ‘আপনারা কোনোভাবে মাদকের সঙ্গে যুক্ত ও মাদকাসক্ত হবেন না। যদি কেউ মাদকাসক্ত হয়ে থাকেন তাহলে নির্ভয়ে ডিসিকে জানান। আমরা চিকিৎসার ব্যবস্থা করব। এরপরও যদি কেউ মাদকাসক্ত হন তাহলে ডোপ টেস্টে প্রমাণিত হলে চাকরিচ্যুত করা হবে। মাদকের সঙ্গে কেউ জড়িত হলে তাকে জেল খাটতে হবে।

থানার সেবার মানোন্নয়নে নতুন পরিকল্পনা সম্পর্কে কমিশনার বলেন, প্রত্যেক থানায় ডিএমপি হেডকোয়ার্টার্স থেকে জিডি ও মামলা সম্পর্কে ২টি ছক প্রেরণ করা হবে। প্রতিদিন দুপুর ১২টার মধ্যে এই ছকে জিডি ও মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণ ডিএমপি হেডকোয়ার্টার্সে পাঠাতে হবে। বিকাল থেকে আমার অফিসের একটি টিম জিডিকারী ও মামলাকারীর কাছে মোবাইল করে থানার সেবার মান কেমন ছিল, আর্থিক লেনদেনে বাধ্য হয়েছেন কিনা, আচরণ ও ব্যবহার কেমন ছিল, আপনাকে কেমন সহযোগিতা করেছে, থানার সেবা পেতে কোনো হয়রানি হতে হয়েছে কিনা? ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মামলা তদারকি করছে কিনা? এমন সব বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হবে। যদি কেউ সেবাপ্রত্যাশীর সঙ্গে খারাপ ও হয়রানিমূলক আচরণ করেন তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। সেই সঙ্গে প্রতিটি থানার প্রকাশ্য স্থানে বড় সাইনবোর্ডে থানা এলাকার এসি, এডিসি, ডিসির নম্বর দেয়া থাকবে। থানার যে কোনো অনিয়ম ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাতে নগরবাসীকে অনুরোধ জানান তিনি। ডিএমপি কমিশনার বলেন, কতিপয় পুলিশ সদস্যের অতিলোভে বাহিনীর সুনাম নষ্ট হচ্ছে। আপনারা এমন কোনো কাজ করবেন না, যাতে আপনার সন্তান মানুষের কাছে আপনার পরিচয় দিতে লজ্জাবোধ করে। আমরা জবাবদিহিতা ও সুশাসন নিশ্চিত করে কাজ করব।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×