ছাত্রলীগ প্যানেলের ডাকসু নেতাদের সংবাদ সম্মেলন

পরীক্ষা ছাড়া ছাত্রলীগের ৩৪ নেতার ভর্তি নিয়ম মেনেই

ডাকসুতেও থাকতে পারেন না রাব্বানী -ভিপি নূর

  ঢাবি প্রতিনিধি ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের একটি বিভাগের সান্ধ্য প্রোগ্রামে পরীক্ষা ছাড়াই ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান ৩৪ নেতার ভর্তি নিয়ম মেনেই হয়েছে বলে দাবি করেছেন ছাত্রলীগ প্যানেল থেকে নির্বাচিত ডাকসু নেতারা। মঙ্গলবার দুপুরে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে তারা এ দাবি করেন। উল্লেখ্য, ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর তাদের ভর্তি করা হয়। ঢাবির চলমান পরিস্থিতি সম্পর্কে জানাতে ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে নির্বাচিত ডাকসু নেতারা এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এতে ডাকসুর এজিএস ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন দাবি করেন, ডাকসু নির্বাচনে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা সবাই নিয়ম মেনে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য, প্রথা ও রীতি অনুসরণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছেন। একটি সুনির্দিষ্ট ছাত্র সংগঠনের নেতাদের দায়ী করা হচ্ছে। কিন্তু তা ঠিক নয়। ছাত্রলীগের নেতাকর্মী হিসেবে তারা ভর্তি হননি, শিক্ষার্থী হিসেবে ভর্তি হয়েছেন। সাদ্দাম আরও বলেন, এ প্রক্রিয়ায় শুধু ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাই নন অন্য ছাত্র সংগঠন যেমন- ছাত্রদল, ছাত্র ইউনিয়ন, ছাত্র ফেডারেশন ও স্বতন্ত্র জোটের অনেকেই ভর্তি হয়েছেন। কিন্তু দুঃখজনক হল এ ক্ষেত্রে শুধু একটি নির্দিষ্ট ছাত্র সংগঠনকে দায়ী হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যারা ডাকসু নির্বাচনে প্রত্যাখ্যাত হয়েছিল তারা বিষয়টিকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির চেষ্টা করছে বলে সাদ্দাম অভিযোগ করেন। লিখিত পরীক্ষা ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের সান্ধ্যকালীন কোর্সগুলোয় ভর্তির সুযোগ রয়েছে বলে অনুষদের ডিন শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম যে দাবি করেছিলেন তার সঙ্গে সুর মেলালেন ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে নির্বাচিত ডাকসু নেতারাও। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সাদ্দাম হোসেন বলেন, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের চেয়ারম্যান কমিটির এক সভায় ঢাবি শিক্ষার্থীদের সান্ধ্য কোর্সগুলোতে লিখিত পরীক্ষা ছাড়াই ভর্তির সুযোগ দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। ডাকসু নির্বাচন সামনে রেখে শিক্ষার্থীদের ভর্তি হওয়াকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ‘প্রথা’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ১৯৯০ সালে ডাকসু নির্বাচনের আগে ছাত্রদলের নেতা আমানউল্লাহ আমান ও খায়রুল কবির খোকনও একইভাবে ভর্তি হয়ে ডাকসুর ভিপি ও জিএস হয়েছিলেন। তাদের আগে মাহমুদুর রহমান মান্না ও মুশতাক হোসেনও নির্বাচন সামনে রেখে ভর্তি হয়েছিলেন। জিএস গোলাম রাব্বানীর বিষয়টি ডাকসুর ফোরামে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন বলেও জানান সাদ্দাম।

ভিপি নূরের বক্তব্য : যারা পরীক্ষা ছাড়া ঢাবিতে ভর্তি হয়েছেন তাদের ভর্তি বাতিলে ভিসিকে চিঠি দিয়েছেন ডাকসুর ভিপি নূরুল হক নূর। পাশাপাশি নৈতিক স্খলনের কারণে গোলাম রাব্বানীর পদত্যাগও দাবি করেন তিনি। এ বিষয়ে ভিপি নূর যুগান্তরকে বলেন, ছাত্রলীগ যাকে অনৈতিক কর্মকাণ্ডের জন্য রাখেনি, ডাকসুতে তিনি থাকলে একটা খারাপ দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। আত্মমর্যাদা বোধ থেকে তাকে পদত্যাগ করার আহ্বান জানাচ্ছি। কোনোভাবে এ পদে থেকে তিনি ঢাবি কিংবা ডাকসুর মর্যাদা ক্ষুণ্ণ করতে পারেন না। ডাকসুতে ছাত্রলীগ সংখ্যাগরিষ্ঠতার সুযোগ নিয়ে এককভাবে সব সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×