ভারত মহাসাগরে ১৬ দেশের নৌমহড়া

ভারতের সঙ্গী হওয়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান মালদ্বীপের

  যুগান্তর ডেস্ক ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ভারত মালদ্বীপ

বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে নিজেদের সামরিক শক্তিকে আরও বৃদ্ধি করতে মুখিয়ে আছে ক্ষমতাধর দেশগুলো। চলছে ভয়ঙ্কর সব সামরিক মহড়া। তারই ধারাবাহিকতায় এবার আট দিনের বিশাল নৌমহড়ায় যোগ দিতে ভারতে আসছে ১৬টি দেশ। ৬ মার্চ থেকে শুরু হবে এই মহড়া। ভারত মহাসাগর থেকে প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল পর্যন্ত চীনের আধিপত্য ঠেকাতে আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে হতে যাচ্ছে ‘মিলন’ নামে এই নৌমহড়া। মহড়ায় যোগ দিতে মালদ্বীপকেও আমন্ত্রণ জানিয়েছিল নয়াদিল্লি। তবে এই ডাক প্রত্যাখ্যান করছে মালদ্বীপ। ভারতের নেতৃত্বে এই নৌমহড়ার প্রেক্ষিতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে দেশটির চরম প্রতিদ্বন্দ্বী চীন।

মঙ্গলবার এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ খবর প্রকাশ করা হয়েছে। ১৯৯৫ সাল থেকে প্রতি দুই বছর পরপর ভারত মহাসাগরে নৌমহড়া চালাচ্ছে নয়াদিল্লি। ভারত মহাসাগরের গুরুত্বপূর্ণ কৌশলগত অঞ্চলগুলোতে অন্য দেশের বেআইনি কার্যকলাপের বিরুদ্ধে লড়াই ও আঞ্চলিক সহযোগিতা বিস্তারের লক্ষ্যে নৌমহড়ার আয়োজন করা হয়। প্রথমে পাঁচ দেশ নিয়ে শুরু হলেও এই মহড়ায় দিনকে দিন ভারতের সঙ্গী বাড়ছে। এবারের মহড়ায় অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়া, মরিশাস, মিয়ানমার, নিউজিল্যান্ড ও ওমানসহ আরও কয়েকটি বন্ধু দেশ থাকছে ভারতের পাশে। ভারতের নৌবাহিনীর মুখপাত্র ডিকে শর্মা জানান, বিভিন্ন ধরনের নিরাপত্তা-সংক্রান্ত চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি লড়াই করতে কি ব্যবস্থা নেয়া হবে, তা নিয়েই চলছে আলোচনা।

ভারতের নৌবাহিনীর প্রধান অ্যাডমিরাল সুনীল লানবা জানিয়েছেন, নৌমহড়ায় অংশ নেবে না মালদ্বীপ। মহড়ায় অংশ নিতে দেশটিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তারা তা প্রত্যাখ্যান করেছে। প্রত্যাখ্যানের কোনো কারণও জানায়নি তারা। চলতি মাসের শুরুর দিকে রাজনৈতিক সংকটের মধ্যে মালদ্বীপে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন। জরুরি অবস্থা তুলে নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পাশাপাশি চাপ অব্যাহত রেখেছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। কিন্তু ভারতকে মোটেই পাত্তা দিচ্ছে না দেশটির চীন-ঘনিষ্ট ইয়ামিন সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় কোনো কারণ না দেখিয়েই নৌমহড়ায় অংশগ্রহণের আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দিয়েছে মালদ্বীপ। বিশ্লেষকদের মতে, ইয়ামিন সরকারের এ সিদ্ধান্ত মালদ্বীপ ও ভারতের মধ্যকার সম্পর্ক আরও খারাপের দিকে নিয়ে যেতে পারে। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় মালদ্বীপের এই সিদ্ধান্তকে ‘বিরক্তিকর’ বলে অভিহিত করেছে নয়াদিল্লি।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter