রোগী ভাগিয়ে নেয়া চক্রের ১১ সদস্যকে কারাদণ্ড

প্রাইম হাসপাতালকে ২২ লাখ টাকা জরিমানা

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৪ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সরকারি হাসপাতাল থেকে সুকৌশলে রোগী ভাগিয়ে নিয়ে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তির সঙ্গে জড়িত চক্রের ১১ সদস্যকে আটক করা হয়েছে। চক্রটি রোগীদের হাসপাতালে এনে ভুয়া অপারেশন ও টেস্ট না করে রিপোর্ট প্রদানের সঙ্গেও জড়িত ছিল। বুধবার বিকালে র‌্যাব-২-এর পুলিশ সুপার মুহম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকীর নেতৃত্বে বিশেষ অভিযানের মাধ্যমে তাদের আটক করা হয়। অভিযান চলে রাত সোয়া নয়টা পর্যন্ত।

অপরাধের মাত্রা অনুযায়ী আটক ব্যক্তিদের ছয় মাস ও তিন মাস করে কারাদণ্ড দেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযুক্ত প্রাইম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ২২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এসব তথ্য নিশ্চিত করে সারোয়ার আলম যুগান্তরকে বলেন, রোগীদের নানা কৌশলে হাসপাতালে আনত চক্রটি। করা হতো ভুয়া অপরাশেন। কোনো টেস্ট না করেই দেয়া হতো রিপোর্ট।

আটক ব্যক্তিরা হল : কুমিল্লার বাবুল হোসেন (৩৯), রংপুরের মো. আবদুর রাজ্জাক (৩৮), মুন্সীগঞ্জের মো. আকাশ (২৪), লক্ষ্মীপুরের মো. দুলাল (৩২), চাঁদপুরের মো. কামাল হোসেন (৪০), ঢাকার কেরানীগঞ্জের মো. জাকির, দিনাজপুরের মোকাররম হোসেন (৩০), চাঁদপুরের মো. দুধ মিয়া (৬০), ময়মনসিংহের মোবারক খাঁ (২৩) ও বিল্লাল (৩০) এবং চাঁদপুরের মো. ফারুক হোসেন (২৩)। মুহম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকী যুগান্তরকে বলেন, রাজধানীর কলেজ গেট সংলগ্ন মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ারের প্রাইম হাসপাতালে অভিযান চালায় র‌্যাব-২-এর একটি দল। হাসপাতালটিতে এই করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যেও সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পঙ্গু হাসপাতালসহ আশপাশের সরকারি হাসপাতাল থেকে কৌশলে রোগী ভাগিয়ে আনা হচ্ছিল।

আরও খবর
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত