বগুড়ার অমৃত হত্যা

তিন আসামি গ্রেফতার আদালতে স্বীকারোক্তি

  বগুড়া ব্যুরো ০৮ আগস্ট ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বগুড়ার গাবতলীতে মুরগির ফার্মের কর্মচারী অমৃত চন্দ্র রায় (৩২) হত্যা মামলায় বাবা-ছেলেসহ তিন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গাবতলী থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার রাতে সারিয়াকান্দির ফুলবাড়ির আমতলিপাড়া গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করে। তারা হলেন- গাবতলীর পারকাঁকড়া গ্রামের জসিম উদ্দিনের ছেলে এনামুল প্রামাণিক, ছোট ভাই ফেরদৌস প্রামাণিক ও ছেলে অষ্টম শ্রেণির ছাত্র রিফাত প্রামাণিক। শুক্রবার বিকালে তারা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শহিদুল ইসলামের কাছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। আদালত এনামুল ও ফেরদৌসকে বগুড়া কারাগারে এবং রিফাতকে যশোরের পুলেরহাট কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গাবতলীর নেপালতলির পারকাঁকড়া গ্রামে বৃহস্পতিবার সকালে ভাবির শ্লীলতাহানিতে জড়িত কিশোরকে ছিনিয়ে নিতে বাধা দেয়ায় বুকে আঘাত করে অমৃতকে হত্যা করা হয়।

গাবতলী থানার ইন্সপেক্টর (অপারেশন) লাল মিয়া ও তদন্ত কর্মকর্তা এসআই নিরঞ্জন জানান, বৃহস্পতিবার সকালে তার বড় ভাইয়ের স্ত্রী বাড়ির গোয়ালঘরে কাজ করছিলেন। এ সময় প্রতিবেশী এনামুলের ছেলে সুখানপুকুর এমআর উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র বখাটে রিফাত প্রামাণিক গোয়ালঘরে ঢুকে তাকে জাপটে ধরে। ভাবির চিৎকারে অমৃত ছুটে এসে রিফাতকে হাতেনাতে আটক করেন। এরপর বিচারের জন্য জনপ্রতিনিধিকে খবর দেয়ার প্রস্তুতি নেন। এদিকে রিফাতকে আটকে রাখার খবর পেয়ে তার বাবা এনামুল, চাচা ফেরদৌস, দাদা জসিম উদ্দিনসহ কয়েকজন ওই বাড়িতে আসেন। তারা এসেই রিফাতকে ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। তখন অমৃত বাধা দিলে এনামুল কনুই দিয়ে তার বুকে আঘাত করেন। এতে অমৃত মাটিতে পড়ে যান। এ সুযোগে রিফাতকে নিয়ে এনামুল, তার বাবা জসিম উদ্দিন ও অন্যরা পালিয়ে যান। অমৃতকে উদ্ধার করে গাবতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ব্যাপারে নিহতের বাবা অনিল চন্দ্র রায় গাবতলী থানায় তিনজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত