প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ এবং প্রতিবেদকের বক্তব্য
jugantor
প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ এবং প্রতিবেদকের বক্তব্য

   

২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দৈনিক যুগান্তরে ‘সেন্ট্রাল রোড ইস্টার্ন মফিজবাগ কমপ্লেক্স : পরিবারপ্রতি মাসিক পানির বিল ১৭ টাকা’ শিরোনামে ১ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে ইস্টার্ন মফিজবাগ ফ্ল্যাট মালিক কল্যাণ সমিতি। প্রতিবাদলিপিতে বলা হয়েছে, প্রতিবেদনে সব তথ্য যাচাই-বাছাই না করেই প্রকাশ করা হয়েছে। ফ্ল্যাট মালিক সমিতির সঙ্গে ওয়াসার যোগসাজশ করে পানির বিল কমিয়ে অবৈধ পন্থা অবলম্বন করা যে তথ্য প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন। গত ১৪ মাস ধরে মালিক সমিতি মিটার রিডিং অনুসারে গড়ে প্রায় ৯৯ হাজার টাকা করে পানির বিল পরিশোধ করেছে। প্রতিবেদক কোনো ব্যক্তিবিশেষের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রতিবেদন প্রকাশ করে থাকতে পারেন।

প্রতিবেদকের বক্তব্য : প্রতিবেদনটি ঢাকা ওয়াসার রাজস্ব বিভাগ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি। এতে রাজস্ব বিভাগের কর্মকর্তার বক্তব্যও রয়েছে। আর কলাবাগান থানায় ঢাকা ওয়াসার দায়ের করা জিডিতে উল্লিখিত কিছু তথ্য প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে। এছাড়া প্রতিবেদনে মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য হুবহু প্রকাশ করা হয়েছে। কারও দ্বারা প্রভাবিত হয়ে বা কাউকে হেয় করতে অতিরঞ্জিত কোনো তথ্যও প্রকাশ করা হয়নি।

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ এবং প্রতিবেদকের বক্তব্য

  
২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দৈনিক যুগান্তরে ‘সেন্ট্রাল রোড ইস্টার্ন মফিজবাগ কমপ্লেক্স : পরিবারপ্রতি মাসিক পানির বিল ১৭ টাকা’ শিরোনামে ১ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে ইস্টার্ন মফিজবাগ ফ্ল্যাট মালিক কল্যাণ সমিতি। প্রতিবাদলিপিতে বলা হয়েছে, প্রতিবেদনে সব তথ্য যাচাই-বাছাই না করেই প্রকাশ করা হয়েছে। ফ্ল্যাট মালিক সমিতির সঙ্গে ওয়াসার যোগসাজশ করে পানির বিল কমিয়ে অবৈধ পন্থা অবলম্বন করা যে তথ্য প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন। গত ১৪ মাস ধরে মালিক সমিতি মিটার রিডিং অনুসারে গড়ে প্রায় ৯৯ হাজার টাকা করে পানির বিল পরিশোধ করেছে। প্রতিবেদক কোনো ব্যক্তিবিশেষের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রতিবেদন প্রকাশ করে থাকতে পারেন।

প্রতিবেদকের বক্তব্য : প্রতিবেদনটি ঢাকা ওয়াসার রাজস্ব বিভাগ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি। এতে রাজস্ব বিভাগের কর্মকর্তার বক্তব্যও রয়েছে। আর কলাবাগান থানায় ঢাকা ওয়াসার দায়ের করা জিডিতে উল্লিখিত কিছু তথ্য প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে। এছাড়া প্রতিবেদনে মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য হুবহু প্রকাশ করা হয়েছে। কারও দ্বারা প্রভাবিত হয়ে বা কাউকে হেয় করতে অতিরঞ্জিত কোনো তথ্যও প্রকাশ করা হয়নি।