পূবাইলে জমি দখলের অভিযোগ
jugantor
পূবাইলে জমি দখলের অভিযোগ

  পূবাইল ও কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি  

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরের পূবাইলে জোরপূর্বক বিরোধীয় জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার সকালে পূবাইল মেট্রো থানার ৪০নং ওয়ার্ড মেঘডুবি (টেকপাড়া) এলাকায়। ভুক্তভোগী একই এলাকার রিপন ও তার চাচা সিরাজুল মোল্লা জানান, স্থানীয় যুবলীগ পরিচয়দানকারী নেতাদের সহযোগিতায় নজরুল ইসলাম, মিনারুল, মোশারফ, মোবারক ও ভগ্নিপতি লাল মিয়া জমি থেকে অর্ধশতাধিক ফলদ গাছ কেটে নিয়ে যায়। বালু ভরাট করে চলছে ওই জমিতে টিনশেড ঘর ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণ। বিরোধীয় জমি দখলের ব্যাপারে স্থানীয় কাউন্সিলর আজিজুর রহমান শিরিষ জানান, পূবাইল থানার ওসি নাজমুল হক ভূঁইয়ার উপস্থিতিতে এলাকার গণ্যমান্যদের নিয়ে ৪-৫ মাস আগে ওই জমি প্রকৃত ৪ ওয়ারিশগণের মাঝে বণ্টন করে দিই। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নজরুল জানান, আমরা কারও জমি দখল করিনি। আমাদের পৈতৃক জমিতে স্থাপনার কাজ করছি। অভিযুক্ত যুবলীগ পরিচয়দানকারী নাজমুল জানান, আমি ওই সালিশি বৈঠকে উপস্থিত ছিলাম। তবে জমি দখলের বিষয়টি অস্বীকার করলেও তিনি বলেন, ওয়ারিশদার নজরুল ও রহমদ্দিনের কাছ থেকে তিনজনের নামে ৮ শতাংশ জমি রেজিস্ট্রি বায়না করি। তবে সুকৌশলে অন্যের কাছে তা বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগীরা জানান, সিএস ও এসএ পর্চায় আমরা সবাই জমির মালিক বিদ্যমান। পরবর্তীতে আরএস রেকর্ডে ভুল হওয়ায় আমাদের ভোগদখলে থাকা সত্ত্বেও সালিশী মীমাংসাকে বৃদ্ধাঙ্গুুলি দেখিয়ে জোরপূর্বক জমি দখল করে নেয় অভিযুক্তরা। এ ব্যাপারে পূবাইল থানার ওসি নাজমুল হক ভূঁইয়া সালিশী বৈঠকে উপস্থিত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমি এ সংক্রান্ত বিষয়ে কিছুই জানি না।

পূবাইলে জমি দখলের অভিযোগ

 পূবাইল ও কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি 
৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরের পূবাইলে জোরপূর্বক বিরোধীয় জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার সকালে পূবাইল মেট্রো থানার ৪০নং ওয়ার্ড মেঘডুবি (টেকপাড়া) এলাকায়। ভুক্তভোগী একই এলাকার রিপন ও তার চাচা সিরাজুল মোল্লা জানান, স্থানীয় যুবলীগ পরিচয়দানকারী নেতাদের সহযোগিতায় নজরুল ইসলাম, মিনারুল, মোশারফ, মোবারক ও ভগ্নিপতি লাল মিয়া জমি থেকে অর্ধশতাধিক ফলদ গাছ কেটে নিয়ে যায়। বালু ভরাট করে চলছে ওই জমিতে টিনশেড ঘর ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণ। বিরোধীয় জমি দখলের ব্যাপারে স্থানীয় কাউন্সিলর আজিজুর রহমান শিরিষ জানান, পূবাইল থানার ওসি নাজমুল হক ভূঁইয়ার উপস্থিতিতে এলাকার গণ্যমান্যদের নিয়ে ৪-৫ মাস আগে ওই জমি প্রকৃত ৪ ওয়ারিশগণের মাঝে বণ্টন করে দিই। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নজরুল জানান, আমরা কারও জমি দখল করিনি। আমাদের পৈতৃক জমিতে স্থাপনার কাজ করছি। অভিযুক্ত যুবলীগ পরিচয়দানকারী নাজমুল জানান, আমি ওই সালিশি বৈঠকে উপস্থিত ছিলাম। তবে জমি দখলের বিষয়টি অস্বীকার করলেও তিনি বলেন, ওয়ারিশদার নজরুল ও রহমদ্দিনের কাছ থেকে তিনজনের নামে ৮ শতাংশ জমি রেজিস্ট্রি বায়না করি। তবে সুকৌশলে অন্যের কাছে তা বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগীরা জানান, সিএস ও এসএ পর্চায় আমরা সবাই জমির মালিক বিদ্যমান। পরবর্তীতে আরএস রেকর্ডে ভুল হওয়ায় আমাদের ভোগদখলে থাকা সত্ত্বেও সালিশী মীমাংসাকে বৃদ্ধাঙ্গুুলি দেখিয়ে জোরপূর্বক জমি দখল করে নেয় অভিযুক্তরা। এ ব্যাপারে পূবাইল থানার ওসি নাজমুল হক ভূঁইয়া সালিশী বৈঠকে উপস্থিত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমি এ সংক্রান্ত বিষয়ে কিছুই জানি না।