উন্নয়ন কাজে যেন জনদুর্ভোগ না হয়
jugantor
উন্নয়ন কাজে যেন জনদুর্ভোগ না হয়
-স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০১ অক্টোবর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শহরের উন্নয়ন কাজের কারণে যেন মানুষের ভোগান্তি সৃষ্টি না হয় সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। বুধবার গুলশানের বিচারপতি সাহাবুদ্দীন পার্কে সিটি কর্পোরেশনের জন্য সুইপার মেশিন হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন সড়কের উন্নয়নকাজ চালানোর সময় নির্মাণসামগ্রী যত্রতত্র ফেলে রাখা হয়। এতে মানুষের ভোগান্তি হয়। রাস্তা নির্মাণ করছেন, কিন্তু রাস্তার পাশে দুই মাস, তিন মাস বালু-সিমেন্ট রেখে দেবেন। এগুলো উড়ে মানুষের নাকেমুখে আসবে। এটা কোনো ব্যবস্থা নয়। আপনারা যেখানে যে কাজ করবেন, এমনভাবে করবেন যেন এ কারণে অন্য কেউ ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। আমরা উন্নয়ন চাই, কিন্তু এমন উন্নয়ন চাই না যা করতে গেলে আমাদের জীবনকে অতিষ্ট করে তুলবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের (জিসিসি) মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম, জ্যেষ্ঠ সচিব মো. হেলালুদ্দীন আহমদ প্রমুখ।

ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ডিএনসিসি এলাকার সড়ক পরিচ্ছন্ন করার জন্য কমপক্ষে ৬০টি সুইপার মেশিন প্রয়োজন। আছে ১৪টি। নতুন ওয়ার্ড হিসাব করলে সংখ্যাটি আরও কম মনে হয়। ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, প্রতিনিয়ত অনেক প্রতিকূলতার মধ্যে কাজ করতে হচ্ছে। অনেক বাধা আসছে সব কাজে। কিন্তু আমাদের দৃঢ়তা রয়েছে। আমাদের বিশ্বাস সব প্রতিকূলতা পেরিয়ে নির্ধারিত লক্ষ্যে পৌঁছাব। প্রাণের ঢাকা, ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে আমরাও সুন্দর, সচল ও সুশাসিত ঢাকায় পরিণত করতে চাই।

উন্নয়ন কাজে যেন জনদুর্ভোগ না হয়

-স্থানীয় সরকারমন্ত্রী
 যুগান্তর রিপোর্ট 
০১ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শহরের উন্নয়ন কাজের কারণে যেন মানুষের ভোগান্তি সৃষ্টি না হয় সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। বুধবার গুলশানের বিচারপতি সাহাবুদ্দীন পার্কে সিটি কর্পোরেশনের জন্য সুইপার মেশিন হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন সড়কের উন্নয়নকাজ চালানোর সময় নির্মাণসামগ্রী যত্রতত্র ফেলে রাখা হয়। এতে মানুষের ভোগান্তি হয়। রাস্তা নির্মাণ করছেন, কিন্তু রাস্তার পাশে দুই মাস, তিন মাস বালু-সিমেন্ট রেখে দেবেন। এগুলো উড়ে মানুষের নাকেমুখে আসবে। এটা কোনো ব্যবস্থা নয়। আপনারা যেখানে যে কাজ করবেন, এমনভাবে করবেন যেন এ কারণে অন্য কেউ ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। আমরা উন্নয়ন চাই, কিন্তু এমন উন্নয়ন চাই না যা করতে গেলে আমাদের জীবনকে অতিষ্ট করে তুলবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের (জিসিসি) মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম, জ্যেষ্ঠ সচিব মো. হেলালুদ্দীন আহমদ প্রমুখ।

ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ডিএনসিসি এলাকার সড়ক পরিচ্ছন্ন করার জন্য কমপক্ষে ৬০টি সুইপার মেশিন প্রয়োজন। আছে ১৪টি। নতুন ওয়ার্ড হিসাব করলে সংখ্যাটি আরও কম মনে হয়। ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, প্রতিনিয়ত অনেক প্রতিকূলতার মধ্যে কাজ করতে হচ্ছে। অনেক বাধা আসছে সব কাজে। কিন্তু আমাদের দৃঢ়তা রয়েছে। আমাদের বিশ্বাস সব প্রতিকূলতা পেরিয়ে নির্ধারিত লক্ষ্যে পৌঁছাব। প্রাণের ঢাকা, ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে আমরাও সুন্দর, সচল ও সুশাসিত ঢাকায় পরিণত করতে চাই।