ধামরাইয়ে ধর্ষককে ছাড়িয়ে নিল মাতবররা
jugantor
ধামরাইয়ে ধর্ষককে ছাড়িয়ে নিল মাতবররা
পাংশায় জিনের ভয় দেখিয়ে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ * কমলগঞ্জে কিশোরী ও চাটমোহরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৮ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ে ধর্ষণের ঘটনায় জনতার হাতে আটক অভিযুক্ত যুবককে ছাড়িয়ে নিয়ে গেছেন মাতবররা। রাজবাড়ীর পাংশায় জিনের ভয় দেখিয়ে দুই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়েছে। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে কিশোরী ও পাবনার চাটমোহরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। রংপুরে গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ধামরাই (ঢাকা) : ধামরাইয়ের বান্নল গ্রামে ফাঁকা বাড়িতে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ধর্ষণ করতে গিয়ে জনতার হাতে আটক মনির হোসেনে নামের ওই যুবককে স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করার কথা বলে ছাড়িয়ে নিয়েছে মাতবররা। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। মনির পাশের পাগাইর গ্রামের আব্দুল কুদ্দসের ছেলে। এ ব্যাপারে ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আতিকুর রহমান আতিক বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় কেউ থানায় কোনো অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থ নেওয়া হবে।

রাজবাড়ী : পাংশায় জিনের ভয় দেখিয়ে পরিবারের লোকজনকে বড়লোক বানানোর আশ্বাস দিয়ে দুই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে সবুর প্রামাণিক নামে একজনের বিরুদ্ধে। সবুর পাংশা উপজেলার প্রাণপুরের ভোলা প্রামাণিকের ছেলে। মঙ্গলবার রাজবাড়ীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে। আদালত রাজবাড়ীর পাংশা থানার অফিসার ইনচার্জকে নিয়মিত মামলা হিসাবে গ্রহণ করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেছেন।

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) : কমলগঞ্জ উপজেলার ভাষাণীগাঁওয়ে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে একই এলাকার আখের মিয়ার ছেলে রনি মিয়ার বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে কমলগঞ্জ থানায় অভিযোগ করেছেন।

চাটমোহর (পাবনা) : চাটমোহরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও সেই চিত্র মোবাইল ফোনে ধারণ করার অভিযোগে সাজেদুল ইসলাম নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ছাড়া ধর্ষণে সহযোগিতার জন্য পৌর শহরের আমির হোসেনের স্ত্রী সাহেদা খাতুনকেও গ্রেফতার করা হয়। এর আগে ওই স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে থানায় মামলা করলে বুধবার রাতে উপজেলার গোপালপুর থেকে অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

রংপুর : রংপুর মহানগরীতে গোপনে গোসলের ভিডিও ধারণ করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ ও টাকা আদায়ের ঘটনা ঘটেছে। ওই ঘটনায় করা মামলার প্রধান অভিযুক্ত আরিফুল ইসলাম ও শাহিনুর ইসলাম শাহিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার বিকালে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার আকচা গ্রাম থেকে আরিফুল ইসলামকে ও বৃহস্পতিবার রাতে রংপুর নগরীর বাহারকাছনা থেকে শাহিনুর ইসলাম শাহিনকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে মামলার পর একজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ধামরাইয়ে ধর্ষককে ছাড়িয়ে নিল মাতবররা

পাংশায় জিনের ভয় দেখিয়ে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ * কমলগঞ্জে কিশোরী ও চাটমোহরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার
 যুগান্তর ডেস্ক 
১৮ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ে ধর্ষণের ঘটনায় জনতার হাতে আটক অভিযুক্ত যুবককে ছাড়িয়ে নিয়ে গেছেন মাতবররা। রাজবাড়ীর পাংশায় জিনের ভয় দেখিয়ে দুই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়েছে। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে কিশোরী ও পাবনার চাটমোহরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। রংপুরে গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ধামরাই (ঢাকা) : ধামরাইয়ের বান্নল গ্রামে ফাঁকা বাড়িতে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ধর্ষণ করতে গিয়ে জনতার হাতে আটক মনির হোসেনে নামের ওই যুবককে স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করার কথা বলে ছাড়িয়ে নিয়েছে মাতবররা। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। মনির পাশের পাগাইর গ্রামের আব্দুল কুদ্দসের ছেলে। এ ব্যাপারে ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আতিকুর রহমান আতিক বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় কেউ থানায় কোনো অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থ নেওয়া হবে।

রাজবাড়ী : পাংশায় জিনের ভয় দেখিয়ে পরিবারের লোকজনকে বড়লোক বানানোর আশ্বাস দিয়ে দুই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে সবুর প্রামাণিক নামে একজনের বিরুদ্ধে। সবুর পাংশা উপজেলার প্রাণপুরের ভোলা প্রামাণিকের ছেলে। মঙ্গলবার রাজবাড়ীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে। আদালত রাজবাড়ীর পাংশা থানার অফিসার ইনচার্জকে নিয়মিত মামলা হিসাবে গ্রহণ করার জন্য নির্দেশ প্রদান করেছেন।

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) : কমলগঞ্জ উপজেলার ভাষাণীগাঁওয়ে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে একই এলাকার আখের মিয়ার ছেলে রনি মিয়ার বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে কমলগঞ্জ থানায় অভিযোগ করেছেন।

চাটমোহর (পাবনা) : চাটমোহরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও সেই চিত্র মোবাইল ফোনে ধারণ করার অভিযোগে সাজেদুল ইসলাম নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ছাড়া ধর্ষণে সহযোগিতার জন্য পৌর শহরের আমির হোসেনের স্ত্রী সাহেদা খাতুনকেও গ্রেফতার করা হয়। এর আগে ওই স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে থানায় মামলা করলে বুধবার রাতে উপজেলার গোপালপুর থেকে অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

রংপুর : রংপুর মহানগরীতে গোপনে গোসলের ভিডিও ধারণ করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ ও টাকা আদায়ের ঘটনা ঘটেছে। ওই ঘটনায় করা মামলার প্রধান অভিযুক্ত আরিফুল ইসলাম ও শাহিনুর ইসলাম শাহিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার বিকালে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার আকচা গ্রাম থেকে আরিফুল ইসলামকে ও বৃহস্পতিবার রাতে রংপুর নগরীর বাহারকাছনা থেকে শাহিনুর ইসলাম শাহিনকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে মামলার পর একজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন