র‌্যাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

জঙ্গিবাদের মতো মাদকের বিরুদ্ধেও অভিযান চাই

আরও তিনটি নতুন ব্যাটালিয়নের আশ্বাস

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৪ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মাদকের ভয়াল ছোবল থেকে ছেলেমেয়েদের রক্ষায় দেশব্যাপী মাদকবিরোধী জোরালো অভিযান চালাতে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‌্যাব) সদস্যদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রেখে উন্নয়নের ধারা বজায় রাখতে র‌্যাবকে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি র‌্যাবকে অনুরোধ করব, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যেমন আমরা অভিযান চালিয়ে সাফল্য অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি তেমনি এখন মাদকের বিরুদ্ধেও এই অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। বৃহস্পতিবার সকালে কুর্মিটোলা সদর দফতরে র‌্যাবের ১৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। এদিকে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, র‌্যাবের জন্য আরও তিনটি নতুন ব্যাটালিয়ন তৈরির আশ্বাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এর মধ্যে দুটি হবে উপকূলীয় ব্যাটালিয়ন এবং একটি হবে পার্বত্য অঞ্চলীয় ব্যাটালিয়ন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাদক যারা তৈরি করে, যারা বিক্রি করে, যারা পরিবহন করে বা সেবন করে সবাই সমানভাবে দোষী। এ বিষয়টি মাথায় রেখেই ব্যবস্থা নিতে হবে। মাদকবিরোধী অভিযানে ইতিমধ্যেই যথেষ্ট সফলতা অর্জিত হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের ছেলেমেয়েরা যাতে এর ছোবল থেকে দূরে থাকতে পারে সে ব্যাপারে ব্যাপকভাবে ব্যবস্থা নিতে হবে। তিনি বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে র‌্যাব এর আগে বড় বড় অভিযান চালিয়েছে। এই অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। কেউ যদি মাদকে জড়িয়ে পড়ে, তবে সেটি যে তার পরিবারের জন্য কতটা কষ্টের, তা ওই পরিবারই বোঝে।

জঙ্গিবাদকে একটি ভুল পথ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, কোমলমতি ছেলেমেয়েরা যাতে জঙ্গিবাদের পথে না যায়, সেজন্য সমগ্র জাতিকে সচেতন হতে হবে। শিক্ষার্থীদের জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়া রোধে অভিভাবক ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে নজর রাখতে হবে। উচ্চশিক্ষিত, এমনকি যথেষ্ট অর্থশালী, সম্পদশালী পরিবারের সদস্য ও এই বিভ্রান্তির বেড়াজালে পড়ে যায়। তাদের ভেতর একটা ধারণা জন্মে যায় যে, তারা মানুষ হত্যা করতে পারলেই একেবারে বেহেশতে চলে যাবে। এ ধরনের বিভ্রান্তি সৃষ্টির মাধ্যমে আমাদের সম্ভাবনাময় অনেক মেধাবী সন্তান বিপথে চলে যাচ্ছিল। জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় নানা পদক্ষেপ নিয়ে সারা বিশ্বে বাংলাদেশ প্রশংসিত হয়েছে উল্লেখ করে এর জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও জনগণকে কৃতিত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সফল কার্যক্রম পরিচালনায় আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর পাশাপাশি জনগণও সচেতন ভূমিকা রেখেছে।

র‌্যাবের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এবং র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে সন্ত্রাস, জঙ্গি দমন, মাদক নিয়ন্ত্রণ, অপহরণ এবং জালজালিয়াতিসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় র‌্যাবের বিভিন্ন ভূমিকা, সুন্দরবনে র‌্যাবের অভিযানে ২০টি জলদস্যু বাহিনীর ২১৭ জন সদস্যের আত্মসমর্পণ এবং তাদের সাধারণ জীবনে পুনর্বাসন সম্পর্কিত পৃথক দুটি ভিডিও চিত্র দেখানো হয়। এ সময় মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সংসদ সদস্য, তিন বাহিনীর প্রধান, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজি), বিজিবি মহাপরিচালক, সরকারের ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা, র‌্যাব ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছলে র‌্যাবের একটি সুসজ্জিত বাহিনী তাকে গার্ড অব অনার দেয়। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী উত্তরা আশকোনা এলাকায় ৮ দশমিক ৫৬ একর জমির ওপর অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত র‌্যাব সদর দফতর কমপ্লেক্স নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। তিনি বিভিন্ন অভিযানে নিহত র‌্যাব সদস্যদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে র‌্যাব সদর দফতরে শহীদ স্মৃতিস্তম্ভ ‘প্রেরণা ধারা’ উদ্বোধন করেন।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.