বসুরহাটে হাসপাতালে তরুণের ওপর হামলা
jugantor
বসুরহাটে হাসপাতালে তরুণের ওপর হামলা

  নোয়াখালী প্রতিনিধি  

১৪ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে বসুরহাট মা ও শিশু হাসপাতালে বুধবার অসুস্থ বোনকে দেখতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছে ইমন চৌধুরী নামে এক তরুণ। বসুরহাট পৌর মেয়র কাদের মির্জার অনুসারীরা তার ওপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ইমন চৌধুরী বসুরহাট পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নুরুল আফছার ওরফে আরমান চৌধুরীর ছেলে। আরমান চৌধুরী কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আজম পাশা চৌধুরী রুমেল ও পরিবহণ নেতা আকরাম উদ্দিন সবুজ চৌধুরীর অনুসারী।

আরমান চৌধুরী জানান, বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তার ছোট মেয়ে আজমা আক্তার বসুরহাট মা ও শিশু হাসপাতালে সন্তান প্রসব করে। বিকাল ৪টার দিকে ইমন হাসপাতালে বোনকে দেখতে যায়। এ সময় কাদের মির্জার ২০-২৫ জন অনুসারী তার ওপর হামলা চালায়। তার মাথা, পা ও পিঠে জখম হয়েছে। তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ভয়ে নবজাতককে নিয়ে দ্রুত হাসপাতাল ছেড়েছেন ইমনের বোন আজমা আক্তার। কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি সাইফুদ্দিন আনোয়ার বলেন, মৌখিকভাবে অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বসুরহাটে হাসপাতালে তরুণের ওপর হামলা

 নোয়াখালী প্রতিনিধি 
১৪ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে বসুরহাট মা ও শিশু হাসপাতালে বুধবার অসুস্থ বোনকে দেখতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছে ইমন চৌধুরী নামে এক তরুণ। বসুরহাট পৌর মেয়র কাদের মির্জার অনুসারীরা তার ওপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ইমন চৌধুরী বসুরহাট পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নুরুল আফছার ওরফে আরমান চৌধুরীর ছেলে। আরমান চৌধুরী কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আজম পাশা চৌধুরী রুমেল ও পরিবহণ নেতা আকরাম উদ্দিন সবুজ চৌধুরীর অনুসারী।

আরমান চৌধুরী জানান, বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তার ছোট মেয়ে আজমা আক্তার বসুরহাট মা ও শিশু হাসপাতালে সন্তান প্রসব করে। বিকাল ৪টার দিকে ইমন হাসপাতালে বোনকে দেখতে যায়। এ সময় কাদের মির্জার ২০-২৫ জন অনুসারী তার ওপর হামলা চালায়। তার মাথা, পা ও পিঠে জখম হয়েছে। তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ভয়ে নবজাতককে নিয়ে দ্রুত হাসপাতাল ছেড়েছেন ইমনের বোন আজমা আক্তার। কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি সাইফুদ্দিন আনোয়ার বলেন, মৌখিকভাবে অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন