অনুদানের ব্যবহার নিশ্চিত করতে ডাটাবেজ হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী
jugantor
অনুদানের ব্যবহার নিশ্চিত করতে ডাটাবেজ হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৮ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ফরিদুল হক খান বলেছেন, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের মাধ্যমে বিতরণ করা অনুদানের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। এ উদ্দেশ্যে বৌদ্ধ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, বিহার ও শ্মশানের ডাটাবেজ তৈরি করা হবে। এ লক্ষ্যে বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান-২ মিসেস আরমা দত্ত এমপির নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি উপকমিটি গঠন করা হয়েছে। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে রোববার বিকালে অনুষ্ঠিত বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ৯৪তম বোর্ড সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সভায় প্রবারণা পূর্ণিমা ও কঠিন চীবরদান উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে অনুদান হিসাবে প্রাপ্ত এক কোটি টাকা দেশের ২৪৮৫টি নিবন্ধিত বৌদ্ধ মন্দিরে সমহারে বণ্টনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। প্রতিমন্ত্রী বলেন, আন্তঃধর্মীয় সম্প্রতি ও সচেতনতা বৃদ্ধি করতে দেশের প্রতিটি বিভাগ ও জেলায় পর্যায়ক্রমে আন্তঃধর্মীয় সংলাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আন্তঃধর্মীয় সংলাপের এ আয়োজন পরবর্তীতে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যন্ত বিস্তৃত করা হবে। তিনি বলেন, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সম্মানিত ট্রাস্টিরা বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের কল্যাণে আরও বেশি নিবেদিত হয়ে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করলে বৌদ্ধ জনগোষ্ঠীর জীবনমান আরও উন্নত ও সমৃদ্ধ হবে।

অনুদানের ব্যবহার নিশ্চিত করতে ডাটাবেজ হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৮ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ফরিদুল হক খান বলেছেন, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের মাধ্যমে বিতরণ করা অনুদানের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। এ উদ্দেশ্যে বৌদ্ধ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, বিহার ও শ্মশানের ডাটাবেজ তৈরি করা হবে। এ লক্ষ্যে বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান-২ মিসেস আরমা দত্ত এমপির নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি উপকমিটি গঠন করা হয়েছে। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে রোববার বিকালে অনুষ্ঠিত বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ৯৪তম বোর্ড সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সভায় প্রবারণা পূর্ণিমা ও কঠিন চীবরদান উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে অনুদান হিসাবে প্রাপ্ত এক কোটি টাকা দেশের ২৪৮৫টি নিবন্ধিত বৌদ্ধ মন্দিরে সমহারে বণ্টনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। প্রতিমন্ত্রী বলেন, আন্তঃধর্মীয় সম্প্রতি ও সচেতনতা বৃদ্ধি করতে দেশের প্রতিটি বিভাগ ও জেলায় পর্যায়ক্রমে আন্তঃধর্মীয় সংলাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আন্তঃধর্মীয় সংলাপের এ আয়োজন পরবর্তীতে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যন্ত বিস্তৃত করা হবে। তিনি বলেন, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সম্মানিত ট্রাস্টিরা বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের কল্যাণে আরও বেশি নিবেদিত হয়ে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করলে বৌদ্ধ জনগোষ্ঠীর জীবনমান আরও উন্নত ও সমৃদ্ধ হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন