মা ও মেয়ের পরিচয় শনাক্ত ২য় স্বামী পলাতক
jugantor
গাজীপুরে গলাকাটা দুই লাশ
মা ও মেয়ের পরিচয় শনাক্ত ২য় স্বামী পলাতক

  গাজীপুর ও কালীগঞ্জ প্রতিনিধি  

২৬ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরের দেশীপাড়ায় বিমান বাহিনীর টেক থেকে বুধবার রাতে উদ্ধার গলাকাটা লাশ দুটোর পরিচয় পাওয়া গেছে। হত্যার শিকার মা ফেরদৌসী বেগম (২৮) ও মেয়ে তাসফিয়া (৪)। ফেরদৌসী কালীগঞ্জ উপজেলা জাংগালিয়া ইউনিয়নের বড়াইয়া গ্রামের বছির উদ্দিনের মেয়ে। তিনি নগরীর চান্দনা চৌরাস্তা এলাকায় গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিতে চাকরি করতেন। তার কাছে থাকা চাকরির পরিচয়পত্রে নাম-ঠিকানা পেয়ে তাকে শনাক্ত করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘটনার পর থেকে ফেরদৌসীর ২য় স্বামী রবিউল ইসলাম (৪৫) পলাতক রয়েছেন বলে জানা গেছে।

ফেরদৌসীর বড়ভাই ইজ্জত আলী জানান, ১৩-১৪ বছর আগে ঠাকুরগাঁওয়ের গাড়িচালক জয়নালের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর স্বামীকে নিয়ে ঢাকায় থাকত। তাসফিয়া ছাড়াও হাফসা (১১) নামের আরও একটি মেয়ে আছে তাদের। পরে বনিবনা না হওয়ায় তালাক নিয়ে সে বাপের বাড়িতে চলে আসে। পরে মোবাইল ফোনে গাজীপুর শ্রীপুর উপজেলার লোহাগাছিয়া গ্রামের রবিউলের (৪৫) সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। দেড় বছর আগে সে রবিউলকে বিয়ে করে আগের স্বামীর দুই সন্তান নিয়ে মহানগরের হাঁড়িনাল এলাকায় ভাড়া থাকত। রবিউলেরও আগের বউ রয়েছে। বর্তমানে রবিউল বড় বউয়ের বাপের বাড়ি গাজীপুর লোহাগাছিয়া বাজার এলাকায় থেকে মুদি ব্যবসা করত।

গাজীপুরে গলাকাটা দুই লাশ

মা ও মেয়ের পরিচয় শনাক্ত ২য় স্বামী পলাতক

 গাজীপুর ও কালীগঞ্জ প্রতিনিধি 
২৬ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরের দেশীপাড়ায় বিমান বাহিনীর টেক থেকে বুধবার রাতে উদ্ধার গলাকাটা লাশ দুটোর পরিচয় পাওয়া গেছে। হত্যার শিকার মা ফেরদৌসী বেগম (২৮) ও মেয়ে তাসফিয়া (৪)। ফেরদৌসী কালীগঞ্জ উপজেলা জাংগালিয়া ইউনিয়নের বড়াইয়া গ্রামের বছির উদ্দিনের মেয়ে। তিনি নগরীর চান্দনা চৌরাস্তা এলাকায় গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিতে চাকরি করতেন। তার কাছে থাকা চাকরির পরিচয়পত্রে নাম-ঠিকানা পেয়ে তাকে শনাক্ত করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘটনার পর থেকে ফেরদৌসীর ২য় স্বামী রবিউল ইসলাম (৪৫) পলাতক রয়েছেন বলে জানা গেছে।

ফেরদৌসীর বড়ভাই ইজ্জত আলী জানান, ১৩-১৪ বছর আগে ঠাকুরগাঁওয়ের গাড়িচালক জয়নালের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর স্বামীকে নিয়ে ঢাকায় থাকত। তাসফিয়া ছাড়াও হাফসা (১১) নামের আরও একটি মেয়ে আছে তাদের। পরে বনিবনা না হওয়ায় তালাক নিয়ে সে বাপের বাড়িতে চলে আসে। পরে মোবাইল ফোনে গাজীপুর শ্রীপুর উপজেলার লোহাগাছিয়া গ্রামের রবিউলের (৪৫) সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। দেড় বছর আগে সে রবিউলকে বিয়ে করে আগের স্বামীর দুই সন্তান নিয়ে মহানগরের হাঁড়িনাল এলাকায় ভাড়া থাকত। রবিউলেরও আগের বউ রয়েছে। বর্তমানে রবিউল বড় বউয়ের বাপের বাড়ি গাজীপুর লোহাগাছিয়া বাজার এলাকায় থেকে মুদি ব্যবসা করত।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন