১১ ইনডেন্টিং প্রতিষ্ঠানকে স্বীকৃতি ও সম্মাননা
jugantor
১১ ইনডেন্টিং প্রতিষ্ঠানকে স্বীকৃতি ও সম্মাননা

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

৩০ নভেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সেবা রপ্তানির বিনিময়ে ইনডেন্টিং কমিশন হিসাবে সর্বোচ্চ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন ও দেশে প্রত্যাবাসনকারী ১১টি ইনডেন্টিং প্রতিষ্ঠানকে স্বীকৃতি এবং সম্মাননা দেওয়া হয়েছে। এ পুরস্কার প্রদান করেছে বাংলাদেশ ইনডেন্টিং এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশন (বিআইএএ)।

ঢাকার একটি পাঁচ তারকা হোটেলে সোমবার রাতে এই ১১টি কোম্পানির প্রতিনিধিদের কাছে পুরস্কার তুলে দেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। এ সময় এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট মো. জসীম উদ্দিন, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান ও সিইও এএইচএম আহসান এবং আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রক দপ্তরের প্রধান শেখ রফিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো-জীশান ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সিজ, ব্যাঙ্কর পাল্প অ্যান্ড পেপার করপোরেশন, রিলায়েন্স ইন্টারন্যাশনাল, জেড টু কনসার্ন, তাকওয়া ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল, ডিএসএম কমোডিটিসি, কালার স্টাইল বাংলাদেশ, হোয়াইট পিয়ার্ল ইন্টারন্যাশনাল, রাইমোটেক্স করপোরেশন, সুয়েজ ইন্টারন্যাশনাল এবং জেড এম করপোরেশন।

২০১৭-১৮ ও ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এ প্রতিষ্ঠানগুলো সর্বোচ্চ পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা ইনডেন্টিং কমিশন হিসাবে দেশে প্রত্যাবাসন করায় তাদের পুরস্কৃত করা হয়েছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান বলেন, ‘ইনডেন্টরা তাদের সেবা বিদেশে রপ্তানি করে দেশে প্রতি বছর প্রচুর পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা বৈধ উপায়ে ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে এনে থাকেন। দেশের অর্থনৈতিক চাকাকে সচল রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছেন। তিনি বলেন, সেবা রপ্তানি খাত হিসাবে রপ্তানি আয়ের পর ভ্যাট শূন্য (০) হার হওয়ার কথা। তিনি আরও বলেন, সেবা রপ্তানি খাত হিসাবে ভ্যাট আইন অনুযায়ী ইনডেন্টিং সেবা থেকে ভ্যাট শূন্য (০) হার করার জন্য আমার পক্ষ থেকে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দিচ্ছি। এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট মো. জসীম উদ্দিন বলেন, তাদের কার্যক্রমের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। তিনি বিআইএএ এর দেশ ও বিদেশে বিভিন্ন অংশগ্রহণমূলক কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

১১ ইনডেন্টিং প্রতিষ্ঠানকে স্বীকৃতি ও সম্মাননা

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সেবা রপ্তানির বিনিময়ে ইনডেন্টিং কমিশন হিসাবে সর্বোচ্চ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন ও দেশে প্রত্যাবাসনকারী ১১টি ইনডেন্টিং প্রতিষ্ঠানকে স্বীকৃতি এবং সম্মাননা দেওয়া হয়েছে। এ পুরস্কার প্রদান করেছে বাংলাদেশ ইনডেন্টিং এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশন (বিআইএএ)।

ঢাকার একটি পাঁচ তারকা হোটেলে সোমবার রাতে এই ১১টি কোম্পানির প্রতিনিধিদের কাছে পুরস্কার তুলে দেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান। এ সময় এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট মো. জসীম উদ্দিন, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান ও সিইও এএইচএম আহসান এবং আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রক দপ্তরের প্রধান শেখ রফিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো-জীশান ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সিজ, ব্যাঙ্কর পাল্প অ্যান্ড পেপার করপোরেশন, রিলায়েন্স ইন্টারন্যাশনাল, জেড টু কনসার্ন, তাকওয়া ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল, ডিএসএম কমোডিটিসি, কালার স্টাইল বাংলাদেশ, হোয়াইট পিয়ার্ল ইন্টারন্যাশনাল, রাইমোটেক্স করপোরেশন, সুয়েজ ইন্টারন্যাশনাল এবং জেড এম করপোরেশন।

২০১৭-১৮ ও ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এ প্রতিষ্ঠানগুলো সর্বোচ্চ পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা ইনডেন্টিং কমিশন হিসাবে দেশে প্রত্যাবাসন করায় তাদের পুরস্কৃত করা হয়েছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান বলেন, ‘ইনডেন্টরা তাদের সেবা বিদেশে রপ্তানি করে দেশে প্রতি বছর প্রচুর পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা বৈধ উপায়ে ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে এনে থাকেন। দেশের অর্থনৈতিক চাকাকে সচল রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছেন। তিনি বলেন, সেবা রপ্তানি খাত হিসাবে রপ্তানি আয়ের পর ভ্যাট শূন্য (০) হার হওয়ার কথা। তিনি আরও বলেন, সেবা রপ্তানি খাত হিসাবে ভ্যাট আইন অনুযায়ী ইনডেন্টিং সেবা থেকে ভ্যাট শূন্য (০) হার করার জন্য আমার পক্ষ থেকে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দিচ্ছি। এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট মো. জসীম উদ্দিন বলেন, তাদের কার্যক্রমের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। তিনি বিআইএএ এর দেশ ও বিদেশে বিভিন্ন অংশগ্রহণমূলক কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন