রাতের আঁধারে লঙ্কাকাণ্ড

শতবর্ষী স্কুল ভবন গুঁড়িয়ে দিল নাসিক

প্রকাশ : ২১ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জের প্রাচীনতম বিদ্যাপীঠ মর্গ্যান স্কুল অ্যান্ড কলেজের শত বছরের পুরনো ভবন রাতের আঁধারে গুঁড়িয়ে দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন (নাসিক)।

রোববার দুপুরে এ ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছে স্কুলের কয়েকশ’ শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষক-শিক্ষিকা। এ সময় বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে নগর ভবনে গেলেও মাত্র ৫ শিক্ষার্থীকে মেয়র আইভীর সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দেয়া হয়।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, মেয়র আইভী নিজেও এই স্কুলের ছাত্রী ছিলেন। কিন্তু তার এই আচরণ আমাদের পীড়া দিয়েছে।

এদিকে ভেঙে ফেলা ওই ভবনের জমি নাসিকের বলে দাবি করেছেন মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী। তিনি গণমাধ্যমের কাছে বলেন, ওই ভবনটির জমির আরএস, সিএস পর্চাসহ সব কাগজপত্র আমাদের কাছে রয়েছে।

নাসিক তার প্রয়োজনে জায়গাটি চাইতেই পারে। অপরদিকে মেয়র আইভীর এমন অভিযোগ অস্বীকার করে প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবং মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেন জানান, প্রায় ১০৮ বছর ধরে এই জমিটি স্কুলের কাজেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে।

তাছাড়া এই ভবনটি মেয়র আইভীর পিতা প্রয়াত আলী আহাম্মদ চুনকা জীবিত থাকা অবস্থায় গড়ে দিয়েছিলেন। আমরা অনুরোধ করেছিলাম যাতে ভবনটি ভাঙা না হয়। কিন্তু নাসিক রাতের অন্ধকারে ভবনটি গুঁড়িয়ে দিয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, মর্র্গ্যান স্কুল ঘেঁষে নির্মাণাধীন বহুতল পাঠাগারটির ২০১০ সালে টেন্ডার হওয়ার পর থেকে আজ অবধি কাজ চলছেই। প্রায় ৮ বছরে ধরে এই পাঠাগার ভবন নির্মাণকালে একাধিকবার ‘রিভাইজ্ড’ হয়ে বাজেট ৭ কোটি টাকা থেকে বেড়ে ২৬ কোটি টাকা হয়েছে।

কিন্তু বহুতল এই ভবনে কোনো গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা রাখা হয়নি। মূলত ওই ভবনের গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করতেই মর্গ্যান স্কুলের ভবনটি নিতে চাচ্ছে সিটি কর্পোরেশন।

অপরদিকে ভবন ভাঙা হয়নি বলে দাবি করেছেন সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী এহতেশামুল হক। তিনি জানান, আলী আহাম্মদ চুনকা পাঠাগারের কাজ করতে গিয়ে হয়তো কিছু অংশ ভেঙে গেছে।