৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে ছেড়ে দিলেন ইউপি সদস্য
jugantor
ধামরাইয়ে প্রেমিক যুগল আটক
৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে ছেড়ে দিলেন ইউপি সদস্য

  ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি  

২৭ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ের মহিষাশী মোহাম্মদীয়া পার্কে প্রেমিক যুগলকে আটকের পর ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় ইউপি মেম্বার মো. আলাউদ্দিন ও তার সঙ্গী মো. ইমরান হোসেন ও জুয়েল রানার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী প্রেমিক যুগল। বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় জনসমক্ষে নবম শ্রেণির ছাত্রী তার পায়ের জুতা খুলে প্রেমিককে ইচ্ছামতো জুতাপেটা করে। আর এ দৃশ্য দেখতে পেয়ে ওই জনপ্রতিনিধি ও তার সঙ্গীরা ওই প্রেমিক যুগলকে আটক করেন। পরে দুটি বিকাশ নম্বর থেকে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে ওই প্রেমিক যুগলকে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে নিশ্চিত করেছেন ভুক্তভোগী প্রেমিক যুগল ও প্রত্যক্ষদর্শীরা। এরপর ছাড়া পেয়ে প্রেমিক মোটরসাইকেলে দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান। পরে প্রেমিকা তার প্রেমিকের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অনশন করেন। প্রেমিকের পরিবারের লোকজন তাকে বেধড়ক মারধর করে বাড়ির বাইরে রাস্তায় বের করে দিয়েছে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নবম শ্রেণির ওই ছাত্রী এক যুবকের প্রেমে পড়ে। ৫-৬ মাস পূর্বে বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে গিয়ে তারা গোপন অভিসারে মিলিত হয়। এদিকে গোপনে প্রেমিক অন্য মেয়েকে বিয়ে করার জন্য কথা পাকাপোক্ত করে আংটিও পরিয়েছেন। এরপরও প্রেমিক তার প্রেমিকাকে নিয়ে দুপুরে ওই পার্কে বেড়াতে যান। এ সময় প্রেমিকা তাকে বিয়ে করার কথা বলে। এতে প্রেমিক বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকা খ্যাপে গিয়ে তার পায়ের জুতা খুলে জনসমক্ষেই প্রেমিককে জুতাপেটা করে। প্রেমিকা আরও বলে, আমি এর শেষ দেখে ছাড়ব। বিয়ে আমাকে করতেই হবে। নইলে আমি ওকে কখনোই ছেড়ে দেব না।

ইউপি মেম্বার আলাউদ্দিন টাকা নেওয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, একজন মেয়েকে এভাবে জুতাপেটা করতে দেখে এগিয়ে যাই। তারপর তাদের আটক করি। পরে জিজ্ঞাসাবাদ করে ওই প্রেমিক যুগলকে ছেড়ে দেই।

ধামরাইয়ে প্রেমিক যুগল আটক

৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে ছেড়ে দিলেন ইউপি সদস্য

 ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি 
২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ের মহিষাশী মোহাম্মদীয়া পার্কে প্রেমিক যুগলকে আটকের পর ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় ইউপি মেম্বার মো. আলাউদ্দিন ও তার সঙ্গী মো. ইমরান হোসেন ও জুয়েল রানার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী প্রেমিক যুগল। বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় জনসমক্ষে নবম শ্রেণির ছাত্রী তার পায়ের জুতা খুলে প্রেমিককে ইচ্ছামতো জুতাপেটা করে। আর এ দৃশ্য দেখতে পেয়ে ওই জনপ্রতিনিধি ও তার সঙ্গীরা ওই প্রেমিক যুগলকে আটক করেন। পরে দুটি বিকাশ নম্বর থেকে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে ওই প্রেমিক যুগলকে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে নিশ্চিত করেছেন ভুক্তভোগী প্রেমিক যুগল ও প্রত্যক্ষদর্শীরা। এরপর ছাড়া পেয়ে প্রেমিক মোটরসাইকেলে দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান। পরে প্রেমিকা তার প্রেমিকের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অনশন করেন। প্রেমিকের পরিবারের লোকজন তাকে বেধড়ক মারধর করে বাড়ির বাইরে রাস্তায় বের করে দিয়েছে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নবম শ্রেণির ওই ছাত্রী এক যুবকের প্রেমে পড়ে। ৫-৬ মাস পূর্বে বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে গিয়ে তারা গোপন অভিসারে মিলিত হয়। এদিকে গোপনে প্রেমিক অন্য মেয়েকে বিয়ে করার জন্য কথা পাকাপোক্ত করে আংটিও পরিয়েছেন। এরপরও প্রেমিক তার প্রেমিকাকে নিয়ে দুপুরে ওই পার্কে বেড়াতে যান। এ সময় প্রেমিকা তাকে বিয়ে করার কথা বলে। এতে প্রেমিক বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় প্রেমিকা খ্যাপে গিয়ে তার পায়ের জুতা খুলে জনসমক্ষেই প্রেমিককে জুতাপেটা করে। প্রেমিকা আরও বলে, আমি এর শেষ দেখে ছাড়ব। বিয়ে আমাকে করতেই হবে। নইলে আমি ওকে কখনোই ছেড়ে দেব না।

ইউপি মেম্বার আলাউদ্দিন টাকা নেওয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, একজন মেয়েকে এভাবে জুতাপেটা করতে দেখে এগিয়ে যাই। তারপর তাদের আটক করি। পরে জিজ্ঞাসাবাদ করে ওই প্রেমিক যুগলকে ছেড়ে দেই।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন