কালীগঞ্জে পোশাককর্মীর ৯ টুকরো লাশ উদ্ধার
jugantor
কালীগঞ্জে পোশাককর্মীর ৯ টুকরো লাশ উদ্ধার

  কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি  

০২ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গাজীপুরের কালীগঞ্জে সবুজ বার্নাড গোলছা (৩২) নামের এক পোশাক কর্মীর ৯ টুকরো লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। উপজেলার নাগরী ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্বাচল অ্যাপারেল গার্মেন্টসংলগ্ন জঙ্গল থেকে শনিবার লাশের টুকরোগুলো উদ্ধার হয়। সেখানে সিআইডি, পিবিআইসহ থানা পুলিশ কাজ করছে। ময়নাতদন্তের জন্য এগুলো গাজীপুর শহিদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত সবুজ নাগরী ইউনিয়নের পাঞ্জুরা গ্রামের বাসানিয়া মহল্লার অমূল্য গোলছার ছেলে।

নিহতের বাবা জানান, ২৮ সেপ্টেম্বর সকালে সবুজ তার কর্মস্থল পূর্বাচল অ্যাপারেল গার্মেন্টের উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হয়। এরপর থেকে সে নিখোঁজ। আত্মীয়স্বজনের বাড়িসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায়নি। ওই দিনই থানায় জিডি করা হয়। এর চার দিন পর শনিবার লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারি গার্মেন্টের পাশে জঙ্গলে দুটি হাত পাওয়া গেছে। দ্রুত সেখানে যাই। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এক এক করে মরদেহের টুকরোগুলো উদ্ধারের পর এটি আমার ছেলের বলে শনাক্ত করি।

এদিকে শুক্রবার সকালে সবুজের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ে দুর্বৃত্তরা তার বড় ভগ্নিপতি সঞ্জিত গোমেজের ফোনে ১৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর পরদিনই নিখোঁজ সবুজের লাশ উদ্ধার হলো।

গাজীপুর সিআইডির ক্রাইম সিন বিভাগের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহ আজাদ জানান, বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। তদন্তসাপেক্ষে বিস্তারিত জানানো হবে।

কালীগঞ্জে পোশাককর্মীর ৯ টুকরো লাশ উদ্ধার

 কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি 
০২ অক্টোবর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গাজীপুরের কালীগঞ্জে সবুজ বার্নাড গোলছা (৩২) নামের এক পোশাক কর্মীর ৯ টুকরো লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। উপজেলার নাগরী ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্বাচল অ্যাপারেল গার্মেন্টসংলগ্ন জঙ্গল থেকে শনিবার লাশের টুকরোগুলো উদ্ধার হয়। সেখানে সিআইডি, পিবিআইসহ থানা পুলিশ কাজ করছে। ময়নাতদন্তের জন্য এগুলো গাজীপুর শহিদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত সবুজ নাগরী ইউনিয়নের পাঞ্জুরা গ্রামের বাসানিয়া মহল্লার অমূল্য গোলছার ছেলে।

নিহতের বাবা জানান, ২৮ সেপ্টেম্বর সকালে সবুজ তার কর্মস্থল পূর্বাচল অ্যাপারেল গার্মেন্টের উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হয়। এরপর থেকে সে নিখোঁজ। আত্মীয়স্বজনের বাড়িসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায়নি। ওই দিনই থানায় জিডি করা হয়। এর চার দিন পর শনিবার লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারি গার্মেন্টের পাশে জঙ্গলে দুটি হাত পাওয়া গেছে। দ্রুত সেখানে যাই। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এক এক করে মরদেহের টুকরোগুলো উদ্ধারের পর এটি আমার ছেলের বলে শনাক্ত করি।

এদিকে শুক্রবার সকালে সবুজের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ে দুর্বৃত্তরা তার বড় ভগ্নিপতি সঞ্জিত গোমেজের ফোনে ১৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর পরদিনই নিখোঁজ সবুজের লাশ উদ্ধার হলো।

গাজীপুর সিআইডির ক্রাইম সিন বিভাগের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাহ আজাদ জানান, বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। তদন্তসাপেক্ষে বিস্তারিত জানানো হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন