সওজের জমি ভুয়া বরাদ্দ দেখিয়ে চাঁদাবাজি

আশুলিয়া স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ

  আশুলিয়া (ঢাকা) প্রতিনিধি ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

আশুলিয়ায় বনায়নের নামে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে সওজর জমি ভুয়া বরাদ্দ দেখিয়ে ব্যবসায়ী ও সওজর পার্শ্ববর্তী জমির মালিকদের জিম্মি করে লাখ লাখ টাকা চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করা ব্যবসায়ী ও জমির মালিকদের দোকান ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে উচ্ছেদের হুমকি দিয়েছে তারা। এতে ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসীর মাঝে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। সোমবার ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে আশুলিয়ার নয়ারহাটের বাগধনিয়া মৌজার সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদফতরের জমিতে সরেজমিন এ প্রতিবেদক গেলে নয়ারহাটের ব্যবসায়ী ও জমির মালিকরা স্থানীয় ও আশুলিয়া থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেন। আশুলিয়া থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সহসভাপতি লেহাজ উদ্দিন, চাকলগ্রাম নিবাসী লোকমান হোসেন, আবদুস সালামসহ অসংখ্য নেতাকর্মী তাদের নামে সওজর জমি বরাদ্দ হয়েছে বলে প্রচার করছে। তাই নয়ারহাটের যেসব ব্যবসায়ী সওজর জমিতে দোকান নির্মাণ করে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করছেন তাদের প্রত্যেককে দোকানের ধরন অনুযায়ী ৫০ হাজার থেকে ৫ লাখ টাকা এককালীন চাঁদা দিতে হবে বলে দোকানে দোকানে গিয়ে ব্যবসায়ীদের জানিয়েছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা লেহাজ উদ্দিন ও তার সহযোগীরা।

স্যানিটারি ব্যবসায়ী জালাল আহমেদ জানান, ১৫ বছর ধরে তিনি ব্যবসা করছেন। মহাসড়ক থেকে ২শ’ ফুট দক্ষিণে সওজর জমি। তার দোকানটি সওজর জমিতে। ইদানীং স্বেচ্ছাসেবক লীগের থানা সহসভাপতি লেহাজের নেতৃত্বে কতিপয় চিহ্নিত লোক এসে ব্যবসায়ীদের কাছে জানান, দোকান রেখে ব্যবসা করতে হলে দোকানপ্রতি ৬০ হাজার টাকা দিয়ে তাদের সদস্য হতে হবে। সদস্য ছাড়া ব্যবসা করতে দেয়া হবে না। অন্যথায় দোকান উচ্ছেদ করে সেখানে বনায়ন করা হবে। কারণ, জমির মালিক এখন তারা বলে প্রচার করছে। সনাতন ধর্মের অনুসারী চরণদাসী বলেন, ২শ’ বছর থেকে আমার বংশের লোকেরা এখানে বসবাস করছেন। তাদের রেখে যাওয়া ভিটেতে আমরা বসবাস করছি। আমরা নির্বিঘ্নে বাড়ি থেকে বের হয়ে সড়কে উঠতে পারি। সড়ক থেকে ২শ’ ফুট দূরত্বে আমার বাড়ি। আমাদের একই দাগের সামনে জমি ব্যবহার করার আমরাই দাবিদার। সেখানে এ এলাকায় তো দূরের কথা, এ মৌজায় যাদের বাড়িঘর নেই, তারা এসে লিজ নিয়েছে বলে দাবি করে চাঁদা দাবি করছে। আমার বাসার সামনে এসে লেহাজরা গাছের চারা রোপণ করেছে। আর আমাদের ব্যবহৃত দোকানঘর ভেঙে ফেলার হুমকি দিয়েছে।

নয়ারহাট সরলা হাউজিং সোসাইটির সভাপতি সাহাজ উদ্দিন বলেন, এ বাজারে ২৫ বছর ধরে তিনি সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ইদানীং একটি স্বার্থান্বেষী মহল বনায়নের নামে ব্যবসায়ী ও এলাকার মহাসড়কের পাশের জমির মালিকদের ওই জমি ব্যবহারের জন্য চাঁদা দিতে হবে বলে বলছে। এতে এসব ব্যবসায়ী ও জমির মালিক বিস্ময় ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এ ছাড়া ভুয়া বরাদ্দ দেখিয়ে তার বাড়ির সামনেও বনায়নের নামে গাছের চারা রোপণ করেছে ওই সব চিহ্নিতরা। জানতে চাইলে পাথালিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পারভেজ দেওয়ান বলেন, নিজ দলের অঙ্গসংগঠনের কতিপয় লোক যে কর্মকাণ্ড করছে তা আদৌ ভালো কাজ নয়। এতে দলের বদনাম ছাড়া আর কিছুই হয় না। আর সড়ক ও জনপথ বিভাগ বনায়নের জন্য কোনো জমি বরাদ্দ দেয়নি বলেও তিনি জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নয়ারহাট সড়ক উপবিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. আতিকুল্লাহ ভূঁইয়া জানান, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের নয়ারহাটের বাগধনিয়া মৌজায় সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদফতরের জমি সামাজিক বনায়নের জন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে ইজারা দেয়া হয়নি। বনায়নের নামে সরকারি জমিতে কোনো দোকানঘর নির্মাণ কিংবা এ উদ্দেশ্যে কোনো ব্যক্তির সঙ্গে কোনো প্রকার অর্থ লেনদেন থেকে বিরত থাকারও পরামর্শ দেন তিনি। সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের কোনো ব্যক্তি এ ধরনের অপকর্মের সঙ্গে জড়িত নয়। অর্থ উত্তোলনকারী বহিরাগত লোকদের আইনের হাতে সোপর্দ করাসহ সওজকে জানাতে অনুরোধ করেছেন উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter