পারফর্ম না করলে উচ্ছ্বাস দিয়ে কী হবে?

  স্পোর্টস রিপোর্টার ১৩ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পারফর্ম না করলে উচ্ছ্বাস দিয়ে কী হবে?
ক্রিকেটার ফজলে মাহমুদ রাব্বি

বাংলাদেশে ক্রিকেটারদের বয়স ৩০ পার হলেই বাতিলের দলে নাম লেখাতে হয়। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের জন্য ৩০-এর ফজলে মাহমুদ রাব্বিকে দলে নিয়ে সাহস দেখালেন নির্বাচকরা।

আর প্রথমবারের মতো জাতীয় দলে ডাক পেয়ে শুক্রবার মোবাইলফোনে ফজলে মাহমুদ জানালেন, পারফর্ম করার কোনো বিকল্প নেই।

যুগান্তর: দেরিতে ডাক পেলেন। অনুভূতি?

ফজলে মাহমুদ : যদি কখনই সুযোগ না পেতাম, নিশ্চয়ই খারাপ লাগত। দেরি হলেও জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ায় আমি দারুণ খুশি।

যুগান্তর: আপনার বয়স ৩০?

ফজলে মাহমুদ : আমার বয়স আসলেই ৩০। অনেকেই বয়স কমিয়ে নিবন্ধন করেন। আমারও অনেক বন্ধু ৩০ বছরে এসেও ২৬-২৭ রয়ে গেছে। আমার বাবা নিবন্ধনের সময় সঠিক বয়সটাই দিয়েছিলেন।

যুগান্তর: ডাক পাওয়ার পর একদিন পার হয়ে গেল। কী মনে হচ্ছে?

ফজলে মাহমুদ : আমার মনের মতো একটা প্রশ্ন করেছেন। কাল (বৃহস্পতিবার) থেকে অনেক ফোন পাচ্ছি। ভালো লাগছে। আজ (শুক্রবার) সকাল থেকেই ভাবছি, আসলেই এত লোকে কেন ফোন দিচ্ছে? এই উচ্ছ্বাসটা ধরে রাখতে হলে পারফর্ম করা ছাড়া উপায় নেই। সুযোগ পেলে তাই করব। তা না হলে এই উচ্ছ্বাসের কোনো মূল্য থাকবে না।

যুগান্তর: ডাক পেয়েছেন বলেই যে একাদশে থাকবেন এমন কোনো নিশ্চয়তা নেই। সুযোগ পেয়ে অনেক বেশি ভালো করতে পারেন আবার না-ও হতে পারে। এসব নিয়ে কী ভাবছেন?

ফজলে মাহমুদ : এসব নিয়ে ভাবছি না। ভাবা ঠিক হবে না। ভালো না খেলতে পারলে সরে যেতে হবে। ঘরোয়া ক্রিকেটে ছিলাম। আবার সেখানেই খেলব। এসব নিয়ে না ভেবে নিজের ওপর ফোকাস রাখার চেষ্টা করছি। যেভাবে খেলে এই পর্যায়ে এসেছি সেটা আরও শক্তভাবে কাজে লাগানোর লক্ষ্য।

যুগান্তর: ব্যাটিং আপনার মূল শক্তি। বোলিং নিয়ে কী ভাবনা রয়েছে?

ফজলে মাহমুদ : এখন মনে হচ্ছে বোলিং টুকটাক পারি বলেই ডাক পেয়েছি। তা না হলে হয়তো সুযোগ পেতাম না। এতদিন ৬-৭ ওভার বোলিং করা নিয়ে ভাবতাম। সেটা এখন আরও বড় করতে হবে। ভালো ১০ ওভার বোলিং করার লক্ষ্য নিয়ে এগোতে হবে। যেন অলরাউন্ডার হিসেবে দলের উপকারে আসতে পারি।

যুগান্তর: সিরিজ শুরু হওয়ার আগে পাঁচদিন অনুশীলন করার সুযোগ পাবেন। মানিয়ে নিতে কোনো সমস্যা হবে না?

ফজলে মাহমুদ : না। আমি এশিয়া কাপের প্রাথমিক দলের সঙ্গে প্রস্তুতি ক্যাম্পে ছিলাম। সেটা কাজে দেবে। ঘরোয়া ক্রিকেটেও খেলার মধ্যে রয়েছি। সমস্যা হবে না।

যুগান্তর: কীভাবে এ পর্যন্ত এলেন?

ফজলে মাহমুদ : তিতুমীর কলেজ থেকে মার্কেটিংয়ে অনার্স-মাস্টার্স করেছি। ক্রিকেটে ভালো করছিলাম না বলে একসময় মোবাইল কোম্পানিতে চাকরি শুরু করি। কিছুদিন পর ভাবলাম ক্রিকেটই খেলতে হবে আমাকে।

সব সময় ভালো করতে পারিনি। কিন্তু ভালো করেও সুযোগ পাইনি অনেক সময়। ২০১৪-১৫ মৌসুমে ভেবেছিলাম এটাই শেষ। সেবার ভালো খেলার পর সিদ্ধান্ত নিলাম যাই হোক, ক্রিকেটেই থাকব।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×