আফ্রিদির ভাতিজা উগান্ডার ক্রিকেটার

  যুগান্তর ডেস্ক ১০ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ইরফান আফ্রিদি
ইরফান আফ্রিদি

চাচাকে সবাই চেনেন। বিখ্যাত তিনি। অখ্যাত ভাতিজা সুদূর আফ্রিকায় আলোকিত হলেন চাচার আলোয়। শহীদ আফ্রিদির ভাতিজা ইরফান আফ্রিদি ক্রিকেট খেলছেন উগান্ডায়। জন্ম, বেড়ে ওঠা সবই তার পাকিস্তানের বন্দরনগরী করাচিতে। চাচা আফ্রিদি বিশ্বসেরাদের একজন।

ইরফান কোনো দিন খেলেননি পাকিস্তানের ঘরোয়া ক্রিকেটেও। টেপ টেনিস বলে হাতেখড়ি। সত্যিকারের ক্রিকেট বলে ভীষণ ভয় থাকায় ভবিষ্যতে ক্রিকেটার হবেন এমন ভাবনাও ছিল না ইরফানের। ভাতিজার জীবনের একটা গতি করতে তাই পারিবারিক ইরফানকে ব্যবসায় লাগিয়ে দেন আফ্রিদি। ২৮ বছর পর্যন্ত দক্ষিণ কোরিয়ায় ইলেকট্রনিক্স পণ্যের দোকানদারি করার পর ইরফানকে ২০১৩ সালে উগান্ডায় পাঠিয়ে দেন আফ্রিদি। উদ্দেশ্য সেখানে মোটরগাড়ি আমদানি-রফতানি ব্যবসার প্রসার ঘটানোই ছিল লক্ষ্য।

পাশের দেশ কেনিয়ায় ক্রিকেটের প্রসার থাকায় উগান্ডায়ও মোটামুটি ক্রিকেট খেলা হয়। শখের বশে সেখানেই প্রথমবারের মতো ক্রিকেট বল হাতে নেন ইরফান। বল হাতে নিয়েই দেখলেন চাচার মতো গুগলি ভালোই করতে পারেন! শখের বশে বল করতে গিয়েই চোখে পড়ে যান উগান্ডার সাবেক পেসার আসাদু সেইগার। ক্রিকেটের বলে যে ভীতিটা ছিল ইরফানের, সেইগার হাত ধরে সেই ভয় কাটিয়ে ওঠেন দ্রুত।

খেলতে খেলতে সেখানকার ক্লাব ক্রিকেটে সুযোগ পেয়ে একদিন ডাক পেয়ে যান উগান্ডা জাতীয় দলেও। ২০১৬ সালে ৩১ বছর বয়সে কাতারের বিপক্ষে উগান্ডার হলুদ জার্সি ওঠে তার গায়ে। দু’বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেললেও ইরফান নিজের জাত চিনিয়েছেন এ বছর মালয়েশিয়ায় হওয়া ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট লিগের ডিভিশন ফোরে। ইরফানের ভাষায়, ‘৮০ শতাংশ লেগ-স্পিন, ১০ শতাংশ অফ-স্পিন ও ১০ শতাংশ ক্যারম বল’ দিয়ে সেই টুর্নামেন্টে ১৫ উইকেট তুলে নেন তিনি।

বোলিংয়ের রানআপ, উইকেট পাওয়ার পর হাত উঁচিয়ে উদযাপন এবং ব্যাটিংয়ে চাচা আফ্রিদির মতোই বিধ্বংসী ইরফান। গত বছর মালয়েশিয়ার বিপক্ষে ১০ ছক্কায় ৭১ বলে ১০৮ রানের একটি ইনিংসও আছে তার ঝুলিতে। সতীর্থ ও দর্শকদের কাছ থেকে ভালোকিছু করার তাগিদ পান বলে ইএসপিএনকে জানিয়েছেন ইরফান। ‘যতবার তারা আমাকে চাপ দেয়, ততবার আমার উপকার হয়। তারা আমাকে বলে আমরা তোমার সঙ্গে আছি, নিজের সর্বোচ্চটা দাও, কঠিন পরিশ্রম করও। দলের প্রত্যেকে আমার পাশে থাকে। খুব সাহায্য করে।’

ভাতিজা উগান্ডায় নাম করছে দেখে আফ্রিদিরও গর্ব হয়। ভানুয়াতুর বিপক্ষে ১৭ বলে ৫১ রান করার পর চাচার কাছ থেকে ‘ভালো খেলেছ’ লেখা একটি ক্ষুদেবার্তা পান তিনি।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×