মিলজারের চোখ ভিজল জহিরের দৌড়ে

  স্পোর্টস রিপোর্টার ২৬ জানুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

জহির,

‘জহিরের দৌড়ের শুরুটা দেখে আমার চোখ ভিজে যায়। ঠিক যেন আমি দৌড়াচ্ছি। তবে আমি বেশি খুশি হয়েছি সে আমার রেকর্ড ভেঙে দেয়ায়’, বললেন ১৯৮৬ সিউল এশিয়ান গেমসে ৪০০ মিটার স্প্রিন্টে বাংলাদেশের হয়ে ৪৭.৫৫ সেকেন্ডে রেকর্ড গড়া মিলজার হোসেন।

শুক্রবার জাতীয় অ্যাথলেটিক্সের দ্বিতীয় দিন সেই মিলজারকে পেছনে ফেলেন হাল আমলের আলোচিত অ্যাথলেট বিকেএসপির জহির রায়হান। ইলেকট্রনিক্স টাইমিংয়ে ৪৬.৮৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে জাতীয় রেকর্ড গড়ে স্বর্ণপদক জেতেন তিনি।

দৌড় শেষে জহিরকে বুকে জড়িয়ে ধরে মিলজার বলেন, ‘যে কোনো রেকর্ড ভাঙলে হয়তো কষ্ট হয় ওই অ্যাথলেটের। কিন্তু আমি আনন্দিত। অন্তত একজন যোগ্য অ্যাথলেট ৩২ বছর আগে গড়া আমার রেকর্ড ভাঙল। আমার মনে হয়, জহিরের টাইমিং এশিয়ান গেমস পর্যায়ের। ঠিকমতো পরিচর্যা করলে আমরা সাউথ এশিয়ান তো (এসএ) বটে, এশিয়ান গেমসেও পদক জিততে পারব।’

সাবেক এই অ্যাথলেটের সঙ্গে সুর মেলালেন জহিরও, ‘আমি চাই নেপাল এসএ গেমস থেকে পদক জিতে আনতে। সেজন্য নিরবচ্ছিন্ন অনুশীলনের সুযোগ করে দিতে হবে আমাকে।’

দু’বছর আগে থাইল্যান্ডে এশিয়ান ইয়ুথ অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপে ৪০০ মিটার স্প্রিন্টে ৪৯.১২ সেকেন্ড সময় নিয়ে সেমিফাইনালে উঠেছিলেন জহির। কোয়ালিফাই করেছিলেন আইএএএফ অনূর্ধ্ব-১৮ চ্যাম্পিয়নশিপে। কেনিয়ায় ওই টুর্নামেন্টে ৪৮ সেকেন্ডে দৌড়ে পঞ্চম হয়েছিলেন বাংলাদেশের এই অ্যাথলেট।

এরপর ইনজুরিতে পড়েন। জহিরের কথায়, ‘দীর্ঘদিন ইনজুরিতে ছিলাম। গত বছর সামার অ্যাথলেটিক্সে ২০০ ও ৪০০ মিটার স্প্রিন্টে স্বর্ণ জিতেছি। লক্ষ্য ছিল জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে রেকর্ড গড়ার। সেভাবেই আমাকে প্রস্তুত করেছেন কোচ আবদুল্লাহেল কাফি। নিবিড় প্রশিক্ষণে আমি আজ ৩২ বছরের পুরনো রেকর্ড ভাঙতে পেরেছি। আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে মানসিকভাবে লড়াইও করতে হয়েছে আমাকে। আমি খুশি। এবার লড়াই করব এসএ গেমসে।’

জহিরের সঙ্গে নতুন দ্রুততম মানব নৌবাহিনীর ইসমাইলেরও প্রশংসা করলেন সাবেক তারকা অ্যাথলেট মিলজার হোসেন। তার কথায়, ‘জহির ও ইসমাইল আমাদের উদীয়মান সম্পদ। তাদের দু’জনকে যদি ঠিকমতো পরিচর্যা করা যায়, তাহলে দেশের সুনাম বাড়বে।’

১৯৮৫ সালে ৪০০ মিটার স্প্রিন্টে রুপাজয়ী এই স্প্রিন্টার বলেন, ‘৪০০ মিটারে ৪৭ সেকেন্ডের নিচে দৌড়ানো অসম্ভব ছিল আমাদের জন্য। আজ যা করে দেখিয়েছে জহির। ইসমাইলের টাইমিংও এশিয়ান গেমস পর্যায়ে। সেখানে দৌড়ালে সে পঞ্চম কিংবা ষষ্ঠ স্থানে থাকতে পারবে। তাই আমাদের সবার উচিত এদের পরিচর্যা করা।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×