‘মারতে গিয়ে আউট হয়েছি আমরা’

বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে ১০০০ রান পূর্ণ হল তামিম ইকবালের

  স্পোর্টস রিপোর্টার ১১ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

লিটন,

ওয়েলিংটনে প্রথম দু’দিন বৃষ্টি খেলা হতে দেয়নি। তৃতীয়দিনের খেলার একটা অংশও বৃষ্টির পেটে চলে যায়। যেটুকু খেলা হয়েছে, দাপট দেখিয়েছেন পেসাররা। রোববার সকালে বেসিন রিজার্ভের উইকেট থেকে কভার সরানোর পর পিচ আর আউটফিল্ড যেন সবুজ গালিচা। তার ওপর নিউজিল্যান্ড দলে পাঁচ পেসার। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের জন্য ছিল চ্যালেঞ্জ। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সাদমান ইসলাম সব শঙ্কা উড়িয়ে ভালো শুরু করেন।

এরপরই এলোমেলো ব্যাটিং। পুরনো রোগে আক্রান্ত হয়ে ২১১তে অলআউট। দিনশেষে উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান লিটন দাস জানালেন শর্ট বলে তাদের কিছু করার ছিল না! তিনি বলেন, ‘জানি, নতুন বলে এখানে সুইং করবে। তা জেনেও আমরা মারতে গিয়ে আউট হয়েছি। জানি, বল একটু পুরনো হলেই তারা শর্ট বল করবে। কিন্তু তারা বলটা এমন জায়গায় ফেলে যে, কিছুই করার থাকে না। এই জায়গায় আরও বেশি মনোযোগী হয়ে বল ছেড়ে দিলে ভালো কিছু করা যাবে।’

ওপেনিং জুটিতে তামিম ও সাদমান ৭৫ রান তোলেন। একসময় এক উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ১১৯। সেখান থেকে ৯২ রানে শেষ নয় উইকেট নেই হয়ে যায়। শেষ পাঁচ রানে চার উইকেট। লিটন বলেন, ‘শুরুটা ভালো ছিল। আমাদের আরও ভালো করার সুযোগ ছিল। ব্যাটসম্যানরা আরেকটু মনোযোগী হলে স্কোর বড় হতে পারত।’

হ্যামিল্টনে প্রথম টেস্টে দুই ইনিংসে লিটন করেছিলেন ২৯ এবং এক রান। ওয়েলিংটনে প্রথম ইনিংসে ভালো করেছেন এই ডান-হাতি ব্যাটসম্যান। ৪৯ বলে ৩৩। শুরুটা ভালো করার পরও ইনিংস লম্বা করতে না পারার কারণ হিসেবে লিটন বলেন, ‘আমি কখনও এমন আবহাওয়ায় খেলিনি। শুধু আমি বলে নয়, অনেক খেলোয়াড়ের জন্যই এখানে খেলা কঠিন।’

তৃতীয়দিনের খেলার ২৫.২ ওভার বাকি থাকতে আম্পায়াররা দিনের খেলার ইতি টানেন। স্বাগতিকরাও ব্যাটিংয়ে নেমে স্বস্তিতে ছিল না। আট রানে আবু জায়েদ দুটি উইকেট নেন। দুই ওপেনারকে বিদায় করে বোলিংয়ে বাংলাদেশ আশা জাগানিয়া শুরু করে। তৃতীয় উইকেটে কেন উইলিয়ামসন ও রস টেলর ধাক্কা সামাল দেন। বৃষ্টির বাধায় দুই উইকেটে ৩৮ রানে শেষ হয় দিনের খেলা। আট উইকেট হাতে রেখে নিউজিল্যান্ড পিছিয়ে ১৭৩ রানে। লিটন বলেন, ‘আমরা দ্রুত তাদের দুই ওপেনারকে ফেরাতে পেরেছি। এখনও উইকেটে বোলারদের সাহায্য করছে।’

প্রথম টেস্টের মতো দ্বিতীয় টেস্টেও বাংলাদেশের সফল ব্যাটসম্যান তামিম। দলের একমাত্র হাফ সেঞ্চুরিয়ান। ১১৪ বলে ১০ চারে ৭৪ করে ওয়াগনারের বলে আউট হন তামিম। উইকেটে ছিলেন ১৫৮ মিনিট। লিটন বলেন, ‘কন্ডিশন বোলারদের পক্ষে। সবুজ উইকেটে এমন আবহাওয়ায় বোলাররা সাহায্য পাবেই। ব্যাট করার সময় মনোযোগ অখণ্ড থাকলে সফল হওয়ার সুযোগ থাকে। তামিম ভাই অনেকক্ষণ মনোযোগ ঠিক রেখে খেলেছেন। এজন্য ভালো করতে পেরেছেন।’ তিনি বলেন, ‘উইকেট দু’পক্ষের জন্যই সমান। শুধু বোলারদের সাহায্য করেছে তা নয়। ব্যাটসম্যানদের কিছুটা সহায়তা করেছে।’

স্কোর কার্ড

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস

রান বল ৪ ৬

তামিম ক সাউদি ব ওয়াগনার ৭৪ ১১৪ ১০ ০

সাদমান ক টেলর ব গ্র্যান্ডহোম ২৭ ৫৩ ৪ ০

মুমিনুল ক ওয়াটলিং ব ওয়াগনার ১৫ ৩৮ ২ ০

মিঠুন ক ওয়াটলিং ব ওয়াগনার ৩ ১০ ০ ০

সৌম্য ক ওয়াটলিং ব হেনরি ২০ ২৪ ২ ১

মাহমুদউল্লাহ ক গ্র্যান্ডহোম ব ওয়াগনার ১৩ ৩৫ ২ ০

লিটন ক উইলিয়ামসন ব সাউদি ৩৩ ৪৯ ৬ ০

তাইজুল এলবিডব্লু ব বোল্ট ৮ ৩৫ ১ ০

মোস্তাফিজ ব বোল্ট ০ ২ ০ ০

আজু জায়েদ ব বোল্ট ৪ ৬ ১ ০

ইবাদত নটআউট ০ ১ ০ ০

অতিরিক্ত ১৪

মোট (অলআউট, ৬১ ওভারে) ২১১

উইকেট পতন : ১/৭৫, ২/১১৯, ৩/১২৭, ৪/১৩৪, ৫/১৫২, ৬/১৬৮, ৭/২০৬, ৮/২০৬, ৯/২০৭, ১০/২১১।

বোলিং : বোল্ট ১১-৩-৩৮-৩, সাউদি ১৫-২-৫২-১, গ্র্যান্ডহোম ৭-০-১৫-১, হেনরি ১৫-০-৬৭-১, ওয়াগনার ১৩-৪-২৮-৪।

নিউজিল্যান্ড প্রথম ইনিংস

রান বল ৪ ৬

রাভাল ক সৌম্য ব আবু জায়েদ ৩ ২৪ ০ ০

লাথাম ক লিটন ব আবু জায়েদ ৪ ১৬ ১ ০

উইলিয়ামসন ব্যাটিং ১০ ১৭ ২ ০

টেলর ব্যাটিং ১৯ ১৩ ৪ ০

অতিরিক্ত ২

মোট (২ উইকেটে, ১১.৪ ওভারে) ৩৮

উইকেট পতন : ১/৫, ২/৮।

বোলিং : আবু জায়েদ ৬-২-১৮-২, ইবাদত হোসেন ৫.৪-২-১৮-০।

ঘটনাপ্রবাহ : বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফর-২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×