আবাহনীর সামনে সাদা কালোরা আরও ‘সাদা’

  স্পোর্টস রিপোর্টার ২৬ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

তবে কী মোহামেডান স্বরূপে ফিরল? প্রশ্নটা এজন্যই যে, পরপর তিন জয়ের পর টানা তিন হার। ন্যূনতম লড়াই দূরে থাক, আবাহনীর সঙ্গে কণামাত্র টক্কর দেয়ার সামর্থ্যও পরিলক্ষিত হয়নি মোহামেডানের খেলায়। সোমবার মিরপুরে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর নিরুত্তাপ ম্যাচে আবাহনী অনায়াসে ছয় উইকেটে হারিয়েছে মোহামেডানকে।

প্রথমে ব্যাট করা মোহামেডান ২৪৮ তুলেই হয়তো বুঝে গিয়েছিল, মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের শুকনো খটখটে উইকেটে এ রান রক্ষা করা কঠিন। হলও তাই। জহুরুল ইসলামের শতক ছুঁই ছুঁই ইনিংসে আবাহনী ১৫ বল বাকি থাকতে পঞ্চম জয় পায় এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে। দলের এমন নিরংকুশ জয়েও জহুরুল চার রানের আক্ষেপে পুড়েছেন। আবাহনীর আরেক ওপেনার সৌম্য সরকার ফিফটি মিস করেন সাত রানের জন্য।

নিউজিল্যান্ড সফর শেষে লিটন দাস কাল মোহামেডানের হয়ে প্রথম মাঠে নামেন। আবদুল মজিদকে নিয়ে ওপেনিংয়ে তার শুরুটা মন্দ হয়নি। ৩৮ বলে ২৭ রান করে ফেরেন লিটন। মজিদের মন্থর ব্যাটিংয়ে পিছিয়ে পড়ে মোহামেডান। ৬৭ বল খেলে মাত্র ২৬ রান করে দলকে চাপে ফেলে দেন তিনি। তৃতীয় উইকেটে ইরফান শুকুর ও অধিনায়ক রকিবুল হাসানের ব্যাটে বড় সংগ্রহের পথে এগিয়ে যায় টসে হেরে ব্যাট করতে নামা মোহামেডান। ইরফান ৫৭ এবং রকিবুল ৫৪ রানে আউট হন। শুরুর মন্থর ব্যাটিংয়ে পিছিয়ে পড়ায় শেষদিকে দ্রুত রান তুলে বড় স্কোর দাঁড় করাতে পারেননি মোহামেডানের ব্যাটসম্যানরা। সাত উইকেটে ২৪৮ রান করে মোহামেডান। ইনজুরি থেকে ফিরে দারুণ বোলিং করেছেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। মাত্র ৩১ রানে নিয়েছেন তিন উইকেট। ২৯ রান দিয়ে

সমান উইকেট পেয়েছেন বাঁ-হাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপু।

ঢাকা লিগে মিরপুরে যারা পরে ব্যাট করে তাদের জন্য কাজ সহজ হয়ে যায়। জহুরুল ইসলাম ও সৌম্য সরকার সেই ধারা বজায় রেখে ওপেনিংয়ে ১০৫ রান তুলে ফেলেন। সৌম্য আউট হন ৪৩ রানে। চার রানের জন্য লিগে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি মিস করেন জহুরুল। ১৩১ বলে ১২ চারে ৯৬ রান করেন তিনি। ওয়াসিম জাফরের ৩৮, অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেন (১৮*) এবং সাব্বির রহমানের (২১*) ব্যাটে সহজ জয় পেয়ে যায় আবাহনী। সাব্বির ছক্কা মেরে জয়ে শেষ আঁচড় কাটেন। দুটি উইকেট নেন মোহামেডানের পেসার শাহাদাত হোসেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

মোহামেডান ও আবাহনী

মোহামেডান ২৪৮/৭, ৫০ ওভারে (লিটন দাস

২৭, আবদুল মজিদ ২৬, ইরফান শুকুর

৫৭, রকিবুল হাসান ৫১, চতুরঙ্গ ডি সিলভা

৩২, সোহাগ গাজী ২৭। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন

৩/৩১, নাজমুল ইসলাম ৩/২৯)।

আবাহনী ২৫৪/৪, ৪৭.৩ ওভারে (জহরুল ইসলাম

৯৬, সৌম্য সরকার ৪৩, ওয়াসিম জাফর ৩৮, নাজমুল হোসেন শান্ত ১৬, মোসাদ্দেক হোসেন ১৮*, সাব্বির রহমান ২১*। শাহাদাত হোসেন ২/৫৯)।

ফল : আবাহনী ৬ উইকেটে জয়ী। ম্যান অব দ্য

ম্যাচ : জহুরুল ইসলাম (আবাহনী)।

শেখ জামাল ও গাজী গ্রুপ

শেখ জামাল ২৭৭/৬, ৫০ ওভারে (ফারদিন হাসান ৪৬, তানভির হায়দার ১৯, নাসির হোসেন ২৩, নুরুল হাসান ৮১*, গুনারতেœ ৭৯। পারভেজ রসুল ৩/৩৭)।

গাজী গ্রুপ ২৩৪/১০, ৪৭ ওভারে (ইমরুল কায়েস

১৫, শামসুর রহমান ৮১, তৌহিদ তারেক ২৭, মেহেদী হাসান ৬০, কামরুল ইসলাম রাব্বি ১৯*। খালেদ আহমেদ ৩/৩১, সালাউদ্দিন সাকিল ৩/৪৭, গুনারত্নে ২/৫০)। ফল : শেখ জামাল ৪৩ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ : গুনারত্নে (শেখ জামাল)।

খেলাঘর ও রূপগঞ্জ

খেলাঘর ২৬৪/৩, ৫০ ওভারে (রবিউল ইসলাম

রবি ৫৩, সাদিকুর রহমান ১৯, মাহিদুল ইসলাম

৭৭, আল মেনারিয়া ৮৭*, মঈনুল ইসলাম ১৩*।

মুক্তার আলী ১/৪২)।

লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ২৬৮/৫, ৪৯.২ ওভারে

(মেহেদী মারুফ ১০৮, মোহাম্মদ নাঈম ৭২, মুমিনুল হক ২৬, নাঈম ইসলাম ২৮*, জাকের আলী ১৮। মঈনুল ইসলাম ৩/৪২)। ফল : রূপগঞ্জ ৫ উইকেটে জয়ী। ম্যান অব দ্য ম্যাচ : মেহেদী মারুফ (রূপগঞ্জ)।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×