ব্যাটসম্যানদের ওপর ভরসা করে ডুবল বাংলাদেশ

  জ্যোতির্ময় মণ্ডল ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রামে ড্র হওয়া প্রথম টেস্টে ব্যাটিংয়ে এগিয়ে ছিল শ্রীলংকা। বাংলাদেশ জানত, স্পিন সামর্থ্যে শ্রীলংকা এগিয়ে। তার ওপর খেলতে পারেননি সাকিব আল হাসান। তাহলে কেন ঢাকায় স্পিনবান্ধব উইকেটে খেলা হল? এ প্রসঙ্গে মাহমুদউল্লাহর যুক্তি হাস্যকর। চট্টগ্রামে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটসম্যানদের উইকেটে টিকে থাকার মানসিকতা দেখেই নাকি মিরপুরে স্পিনিং উইকেট বানানোর পরিকল্পনা হয়েছিল। চট্টগ্রামে ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে মুমিনুল হকের দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি ছাড়া আর কারো সেঞ্চুরি ছিল না। উল্টোদিকে শ্রীলংকার তিন ব্যাটসম্যান এক ইনিংসে সেঞ্চুরি করেছিলেন। বলতে গেলে প্রথম টেস্টে মুমিনুলই বাংলাদেশকে বাঁচিয়েছিলেন। মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘ক্রিকেট খেলা বাজির মতো। আমরা জানতাম, শ্রীলংকার স্পিন আক্রমণ খুবই ভালো। জানতাম, আমাদের ব্যাটসম্যানদের জন্য চ্যালেঞ্জিং হবে। আমরা আমাদের ব্যাটসম্যানদের ওপর ভরসা করেছিলাম। দুর্ভাগ্যবশত ব্যাটসম্যানরা ভালো পারফর্ম করতে পারেনি।’

চট্টগ্রাম থেকে যে আত্মবিশ্বাস নিয়ে ফিরেছিলেন ব্যাটসম্যানরা, ঢাকায় তার ছিটেফোঁটাও দেখা যায়নি। মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘প্রথম টেস্টে ওরা ভালো অবস্থানে ছিল। তখন শ্রীলংকা মনে করেছিল ওরা জিতে যাবে।

আর আমরা ভেবেছিলাম ম্যাচটা জিততে না পারি, অন্তত ড্র করতে পারব। সেটাই করতে পেরেছিলাম। ব্যাটসম্যানদের ওপর ভরসা করে আমরা মিরপুরে স্পিনিং উইকেট চেয়েছিলাম। আমাদের সামর্থ্য আছে, কিন্তু সেটা দেখাতে পারিনি। স্কিলটা দেখাতে পারিনি। যেদিন আমরা স্কিল শো করতে পারব, ভালো ফল দেখবেন।’

মিরপুরে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ৩৩৯ রান। দু’দিন টিকে থেকে এই ম্যাচ ড্র করা ছিল অসম্ভব। টেস্ট মেজাজে খেলতে পারলে ক্ষীণ আশা ছিল ম্যাচ ড্র করার। কিন্তু উইকেটে গিয়েই স্বাগতিক ব্যাটসম্যানরা ব্যাট চালাতে শুরু করেন। হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ল ইনিংস। সাদা পোশাকের ক্রিকেটে কেন টি ২০ চিন্তাভাবনার প্রয়োগ হবে? ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘এই (আক্রমণাÍক) চিন্তায় না এগোলে সাফল্যের সম্ভাবনা একেবারে কমে যেত। এই উইকেটে যদি রক্ষাণাÍক খেলতে চাইতাম, সেটা সম্ভব হতো না। আমার যে ক্রিকেট জ্ঞান, যে অভিজ্ঞতা, তাতে মনে হয় না যে, এই উইকেটে রক্ষণাত্মক খেলা যায়। আরেকটা পথ হল মেরে খেলতে হবে। কিন্তু যদি ইতিবাচকই না-ই থাকতে পারেন, তাহলে তো সুযোগই তৈরি হবে না।’

মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘সম্প্রতি আমাদের ব্যাটসম্যানরা দেশে এবং দেশের বাইরে ভালো করেছে। শ্রীলংকায়ও আমরা টেস্ট জিতেছি। এমন উইকেট নিয়ে বাজি ধরতেই হবে। তা না হলে এভাবে টেস্ট ক্রিকেট খেলে কোনো লাভ নেই। আমরা মরা উইকেটে খেলব, কিন্তু জয়ের জন্য খেলব না, এমন চিন্তা করলে টেস্ট ক্রিকেট এগোবে না। সাফল্য আসবে, ব্যর্থতাও আসবে। দুটো মাথায় রেখেই এগোতে হবে।’ বাংলাদেশের চরম ব্যাটিং ব্যর্থতা প্রসঙ্গে অধিনায়ক বলেন, ‘জবাব দেয়া আসলেই কঠিন। খুবই হতাশাজনক। প্রথম ইনিংসে আমাদের আরও একটু ভালো করা উচিত ছিল। প্রথম ইনিংসে ২০০ বা তার একটু বেশি করতে পারলে আমাদের সুযোগ ছিল। লক্ষ্যটা ৩৩৯ হওয়ায় আসলে চাপ এসে গেছে।’ স্বাগতিকদের লক্ষ্য ছিল যেন বোলাররা কোনোভাবে আক্রমণের সুযোগ না পায়। দু’দলের স্পিনারদের মধ্যে পার্থক্য সম্পর্কে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘তাদের বোলারদের চার মারতে হয়েছে ঝুঁকি নিয়ে। আমাদের স্পিনাররা পাঁচটা বল ভালো করেছে তো একটা বলে সহজ বাউন্ডারি দিয়েছে। এটা ওদের ব্যাটসম্যানদের ওপর থেকে চাপ কমিয়ে দিয়েছে। আমাদের স্পিনারদের আরও ভালো করা উচিত ছিল, কিন্তু আমাদের ব্যাটসম্যানরাই বেশি দায়ী।’

স্কোর কার্ড

শ্রীলংকা প্রথম ইনিংস ২২২।

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস ১১০।

শ্রীলংকা দ্বিতীয় ইনিংস ২২৬ (করুনারত্নে ৩২, ধনঞ্জয়া ২৮, গুনাথিলাকা ১৭, চান্দিমাল ৩০, রোশেন সিলভা ৭০*, লাকমল ২১। মোস্তাফিজ ৩/৪৯, তাইজুল ৪/৭৬, মেহেদী হাসান ২/৩৭)।

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস (টার্গেট ৩৩৯)

রান বল ৪ ৬

তামিম এলবিডব্ল– ব দিলরুয়ান ২ ৭ ০ ০

ইমরুল ক ডিকভেলা ব হেরাথ ১৭ ২২ ১ ১

মুমিনুল ক ডিকভেলা ব হেরাথ ৩৩ ৪৭ ৩ ০

মুশফিক স্টা. ডিকভেলা ব হেরাথ ২৫ ৫১ ৪ ০

লিটন ক কুশাল মেন্ডিস ব ধনঞ্জয়া ১২ ২০ ০ ০

মাহমুদউল্লাহ ক করুনারত্নে ব ধনঞ্জয়া ৬ ৮ ১ ০

সাব্বির ক কুশাল মেন্ডিস ব ধনঞ্জয়া ১ ২ ০ ০

মেহেদী হাসান ক ডিকভেলা ব ধনঞ্জয়া ৭ ৬ ০ ১

রাজ্জাক স্টা. ডিকভেলা ব ধনঞ্জয়া ২ ৩ ০ ০

তাইজুল ক গুনাথিলাকা ব হেরাথ ৬ ৮ ১ ০

মোস্তাফিজ নটআউট ৫ ৩ ১ ০

অতিরিক্ত ৭

মোট (অলআউট, ২৯.৩ ওভারে) ১২৩

উইকেট পতন : ১/৩, ২/৪৯, ৩/৬৪, ৪/৭৮, ৫/১০০, ৬/১০২, ৭/১০২, ৮/১০৪, ৯/১১৩, ১০/১২৩।

বোলিং : লাকমল ৩-০-১১-০, দিলরুয়ান ১০-০-৩২-১, হেরাথ ১১.৩-১-৪৯-৪, আকিলা ৫-১-২৪-৫।

ফল : শ্রীলংকা ২১৫ রানে জয়ী।

সিরিজ : দুই ম্যাচের সিরিজ

শ্রীলংকা ১-০তে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ ও ম্যান অব দ্য সিরিজ : রোশেন সিলভা (শ্রীলংকা)।

আরও পড়ুন
pran
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter