১১ বছর পর উডসের মেজর ট্রফি জয়

  স্পোর্টস ডেস্ক ১৬ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

উডস,

নীতি-আদর্শে তারা দুই মেরুর বাসিন্দা। কিন্তু এক রাতের জন্য হলেও সব ব্যবধান ঘুচিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান ও সাবেক দুই প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও বারাক ওবামাকে এক মোহনায় মিলিয়ে দিলেন টাইগার উডস। একেবারে অভিন্ন ভাষায় মার্কিন গলফ কিংবদন্তিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ট্রাম্প ও ওবামা।

উডসের কীর্তিতে চোখ ভিজে গেছে টেনিস কিংবদন্তি সেরেনা উইলিয়ামসের। উচ্ছ্বাসে ভাসছেন এনবিএ কিংবদন্তি ম্যাজিক জনসন। যুক্তরাষ্ট্র গলফের সীমানা ছাড়িয়ে গোটা ক্রীড়াবিশ্ব মেতেছে উডস বন্দনায়। তা কী এমন করেছেন উডস?

ক্রীড়া ইতিহাসের অন্যতম সেরা প্রত্যাবর্তনের রূপকথা লিখেছেন গলফ সম্রাট। ১১ বছরের খরা কাটিয়ে ৪৩ বছর বয়সে ক্যারিয়ারের ১৫তম মেজর শিরোপা জিতলেন উডস। আরও নির্দিষ্ট করে বললে ৩৯৫৪ দিন পর তার হাতে উঠল কোনো মেজর ট্রফি! গলফে মেজর ট্রফি টেনিসের গ্র্যান্ডস্লামের মতোই পরম আরাধ্য। রোববার অগাস্টা মাস্টার্সে চ্যাম্পিয়ন হয়ে উডস আবারও প্রমাণ করলেন, চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে কখনও শেষ কথা বলতে নেই।

২০০৮ সালে ইউএস ওপেনে উডস যখন নিজের ১৪তম মেজর ট্রফি জিতলেন, কোথায় গিয়ে থামবেন তিনি, তখন এ নিয়েই ছিল যত জল্পনা-কল্পনা। কিন্তু পরের বছর প্রলয়ঙ্করী এক ঝড় তছনছ করে দেয় তার জীবন ক্যারিয়ার। নারী কেলেংকারিতে জড়িয়ে রাতারাতি নায়ক থেকে খলনায়ক হয়ে যান উডস। ভেঙে যায় সুখের সংসার।

স্ত্রী এলিনের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর সর্বনাশা চোট তাকে প্রায় পঙ্গু বানিয়ে ফেলেছিল। হাঁটু ও মেরুদণ্ডে সাতটি অস্ত্রোপচারের ধকল সামলে গলফ কোর্সে ফেরাটাই ছিল তার জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ। সোজা হয়ে দাঁড়ানোই যার দায়, তিনিই কি না উঁচিয়ে ধরলেন মেজর ট্রফি! ভীষণ বন্ধুর পথ পেরিয়ে স্বর্গে ফিরতে পেরেছেন বলেই ১১ বছর পর উডসের মেজর জয় নিয়ে এত মাতামাতি।

১৪ বছর পর মাস্টার্স শিরোপা জয়ও নজিরবিহীন কীর্তি। ১৯৯৭ সালে অগাস্টা মাস্টার্সেই জিতেছিলেন ক্যারিয়ারের প্রথম মেজর শিরোপা। সেদিন তার উদযাপন সঙ্গী ছিলেন বাবা আর্ল। এবার মা ও দুই সন্তানকে জড়িয়ে ধরে কাঁদলেন উডস।

পারের চেয়ে ১৩ শট কম খেলে শিরোপা জেতার পর নিজেকে আর ধরে রাখতে পারেননি উডস, ‘অপার্থিব এক অনুভূতি। ভীষণ কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে একটি চক্র পূর্ণ করলাম। আমার সন্তানরা খেলা দেখতে এসেছে। ১৯৯৭ সালে এখানে বাবার সঙ্গে এসেছিলাম আমি। আজ আমি বাবা, আমার সন্তানরা এখানে! জীবনে শিরোপা জিততে কখনই এত কষ্ট করতে হয়নি। মাঝের সময়টা আমার কীভাবে গেছে তা আমি ছাড়া আর কেউ জানে না।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×