বাংলাদেশের ব্যাটিং বনাম দ. আফ্রিকার বোলিং

  ইশতিয়াক সজীব ০২ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মুদ্রার দুই পিঠে রয়েছে ভিন্ন দুটি বাস্তবতা। একটি আশার, অন্যটি শঙ্কার। লন্ডনের কেনিংটন ওভালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে আজ শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ যাত্রা। প্রোটিয়াদের বিশ্বকাপ অবশ্য আগেই শুরু হয়ে গেছে। স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে উদ্বোধনী ম্যাচে ১০৪ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ইংল্যান্ডের আক্রমণাত্মক ক্রিকেটের সামনে উড়ে গেছে প্রোটিয়ারা। প্রথম ম্যাচে নাকাল হওয়ায় তাদের আত্মবিশ্বাস তলানিতে গিয়ে ঠেকতে পারে। বাংলাদেশের জন্য যা স্বস্তির। উদ্বোধনী ম্যাচে ওভালের যে উইকেটে নাস্তানাবুদ হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা, সেই উইকেটেই আজ খেলা হবে। এটাও আশা বাড়াচ্ছে বাংলাদেশ দলের। একই সঙ্গে চোখ রাঙাচ্ছে মুদ্রার উল্টো পিঠের ছবিটা। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লজ্জার হারে অহমে আঘাত লাগায় আহত সিংহের মতো প্রত্যাঘাতে কারও প্রাণ সংহারের জন্য ফুঁসছে দক্ষিণ আফ্রিকা। নিশ্চিতভাবেই বাংলাদেশকে মরণ-কামড় দিতে চাইবে তারা। দক্ষিণ আফ্রিকার তৃতীয় ম্যাচ আরেক ফেভারিট ভারতের বিপক্ষে। প্রথম ম্যাচের ভুল শুধরে তার আগেই স্বরূপে ফিরতে বাংলাদেশকে লক্ষ্য বানিয়েছেন প্রোটিয়া অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি।

গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলায় সম্ভাবনার দৌড়ে কোনো দলকেই পরিষ্কার এগিয়ে রাখা যায় না। পরিসংখ্যান ও ঐতিহ্য যদি দক্ষিণ আফ্রিকার ঢাল হয় তবে বাংলাদেশ এগিয়ে অভিজ্ঞতায়। তবে ২২ গজের লড়াইয়ে দিন শেষে এর কোনোটাই বড় প্রভাবক হবে না। নির্দিষ্ট দিনের পারফরম্যান্সই এখানে শেষ কথা। দু’দলের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স বলছে, ওভালের ২২ গজে আজ লড়াইয়ের ক্যাচলাইন হতে পারে বাংলাদেশের ব্যাটিং বনাম দক্ষিণ আফ্রিকার বোলিং।

এবি ডি ভিলিয়ার্সের অবসরের পর দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিংয়ে আগের সেই গভীরতা নেই। হাশিম আমলা নিজের সেরা সময়টা পেছনে ফেলে এসেছেন। ওপেনার কুইন্টন ডি কক ও অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসির ব্যাটই শুধু দিতে পারে নির্ভরতা। কিন্তু সেটা যে যথেষ্ট নয় প্রথম ম্যাচেই তা বোঝা গেছে। জফরা আর্চারের তোপের মুখে শুরুতেই পথ হারিয়ে ২০৭ রানে গুটিয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে বোলাররা হতাশ করেননি ডু প্লেসিকে। বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটিং লাইনআপকে ৩১১ রানে আটকে দিয়েছিলেন তারা। কাগিসো রাবাদা, লুঙ্গি এনগিডি ও ইমরান তাহিরকে নিয়ে গড়া দক্ষিণ আফ্রিকার দুর্ধর্ষ বোলিং আক্রমণই আজ বাংলাদেশের জন্য বড় হুমকি। কাঁধের চোটের কারণে প্রথম ম্যাচ মিস করা ডেল স্টেইন আজ ফিরলে প্রোটিয়া পেস ব্যাটারির শক্তি আরও বাড়বে। স্টেইন না থাকলেও তেমন সমস্যা নেই। ফেলুকওয়ায়ো, প্রিটোরিয়াস ও ক্রিস মরিসও ইংলিশ কন্ডিশনে আগুন ঝরাতে পারেন।

বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণও একেবারে ফেলনা নয়। তবে বড় দুটি ঘাটতি আছে। লেগ-স্পিনার ও সত্যিকারের গতিময় পেসারের অনুপস্থিতি। গতিতে পিছিয়ে থাকায় সাফল্যের জন্য লাইন ও লেন্থের ক্ষেত্রে একেবারে নিখুঁত হতে হবে মাশরাফি, মোস্তাফিজ, সাইফউদ্দিনদের। ইংলিশ কন্ডিশনে সাকিব ও মিরাজের স্পিন কতটা কার্যকর হবে সেটাও দেখার। তবে বাংলাদেশের ব্যাটিং সামর্থ্য পরীক্ষিত। বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টানা তিনবার রান তাড়া করে জিতেছে বাংলাদেশ। চোট বাধা না হলে দলের পঞ্চপাণ্ডবের চার ব্যাটিং রত্নই আজ গড়ে দিতে পারেন ব্যবধান। অভিজ্ঞ তামিম, মুশফিক, সাকিব ও মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে আছেন সৌম্য, লিটন, সাব্বির, মিঠুন, মোসাদ্দেকের মতো পরীক্ষিত সব তরুণ প্রতিভা। একটি দলে তারুণ্য ও অভিজ্ঞতার এমন সমন্বয় যথেষ্টই বিরল। গড় বয়সের হিসাবে এবারের বিশ্বকাপের অন্যতম তরুণ দল বাংলাদেশ। একই সঙ্গে ম্যাচ খেলার বিবেচনায় সবচেয়ে অভিজ্ঞ দলগুলোর একটি। দলের ১৫ জনের সম্মিলিত ওয়ানডে অভিজ্ঞতা ১৩০০ ম্যাচের বেশি! ব্যাটিংয়ে এই অভিজ্ঞতার ছাপ অনূদিত হলে ওভালে আজ উড়বে লাল-সবুজের জয়কেতন।

হেড-টু-হেড

ম্যাচ বাংলাদেশ জয়ী দক্ষিণ আফ্রিকা জয়ী

২০ ৩ ১৭

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×