বাংলাদেশ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা

শক্তি দুর্বলতা ও ইনজুরি

প্রকাশ : ০২ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  স্পোর্টস রিপোর্টার

দু’দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে সাফল্যের বিচারে দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে অনেক পিছিয়ে বাংলাদেশ। এখন পর্যন্ত ২০ ওডিআইতে বাংলাদেশ জিতেছে মাত্র তিনটিতে। ১৭টিতে জিতেছে প্রোটিয়ারা। তবে বিশ্বকাপের মতো বড় মঞ্চেও দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানোর সুখস্মৃতি রয়েছে বাংলাদেশের। সময়ের ব্যবধানে মাশরাফিদের শক্তিও বেড়েছে। দু’দলের বর্তমান শক্তি ও দুর্বলতা দেখে নেয়া যাক -

শক্তি

বাংলাদেশের মূল শক্তি দলীয় পারফরম্যান্স। তবে ২০১৫ সালের পর বাংলাদেশের জয়ে বড় অবদান রয়েছে টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান ও পেসারদের। পেসাররা যে ম্যাচে ভালো বোলিং করেছেন সেই ম্যাচে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। এছাড়া ওপেনিংয়ে তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার এবং মিডলঅর্ডারে সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের রান বড় আস্থা। তিন অলরাউন্ডার সাকিব, সাইফউদ্দিন ও মেহেদী হাসান মিরাজ থাকায় দলের ব্যাটিং গভীরতা বেড়েছে। আর অভিজ্ঞ মাশরাফির অধিনায়কত্ব গুরুত্বপূর্ণ সময়ে খেলার মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে।

দক্ষিণ আফ্রিকার মূল শক্তি তাদের পেসাররা। কাগিসো রাবাদা ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ে পঞ্চম স্থানে। ডেল স্টেইন থাকলে দক্ষিণ আফ্রিকা আরও শক্তিশালী হবে। লেগ-স্পিনার ইমরান তাহির ব্যবধান গড়ে দিতে পারেন। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা এই বোলার রয়েছেন র‌্যাংকিংয়ে চার নম্বরে। ওপেনার কুইন্টন ডি কক এবং অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি ব্যাটিংয়ে বড় শক্তি।

দুর্বলতা

বাংলাদেশের দুর্বলতা লোয়ার মিডলঅর্ডার। ছয় বা সাত নম্বরে দ্রুত রান তুলতে পারেন এমন ব্যাটসম্যান নেই। সাব্বির ও মোসাদ্দেকের ওপর ভরসা রাখছে দল। এছাড়া প্রায় সব দলেই লেগ-স্পিনার থাকলেও বাংলাদেশ দলে নেই। একজন রিস্ট স্পিনারের অভাব বোধ করেছেন সাবেকরা।

দক্ষিণ আফ্রিকার দুর্বলতা তাদের ব্যাটিং। ডি কক, ডু প্লেসি ও জেপি ডুমিনির মতো ব্যাটসম্যান থাকলেও তাদের টপঅর্ডার নড়বড়ে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে মাত্র ২০৭ রানে অলআউট হয়েছে তারা।

ইনজুরি বাংলাদেশের চার ক্রিকেটারের ছোটখাটো ইনজুরি রয়েছে। শুক্রবার তামিম ইকবাল চোটে পড়ায় শঙ্কা বেড়েছে। অনুশীলনে বাঁ-হাতে চোট পান তিনি।

প্রথম ম্যাচে তিনি খেলতে না পারলে দলের জন্য তা বড় ধাক্কা হবে। পেসার অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা, মোস্তাফিজুর রহমান ও সাইফউদ্দিনের ছোটখাটো ইনজুরি রয়েছে।

এদিকে ইনজুরিতে থাকা ডেল স্টেইন প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামতে পারেননি। আজও তিনি খেলতে না পারলে প্রোটিয়াদের জন্য তা ভালো খবর হবে না। প্রথম ম্যাচে মাথায় হাশিম আমলা বলের আঘাত পেলেও তা গুরুতর নয়। ইংলিশদের বিপক্ষে রিটায়ার্ড হার্ট হওয়ার পর আবার ব্যাটিং করেছিলেন তিনি।