স্মিথকে ছাড় দেবেন না আর্চার

রাজস্থানে খেলার সময় নেটে আর্চারের মুখোমুখি হতে চাইতেন না স্মিথ

প্রকাশ : ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  এএফপি, লন্ডন

প্রাথমিক দলে পরিবর্তন এনে শেষ মুহূর্তে তাকে বিশ্বকাপ স্কোয়াডে অন্তর্ভুক্ত করেছিল ইংল্যান্ড। নির্বাচকদের সেই আস্থার প্রতিদান দারুণভাবেই দিচ্ছেন জফরা আর্চার। প্রতি ম্যাচেই গতির ঝড়ে নাকাল করছেন প্রতিপক্ষকে। ছয় ম্যাচে ১৫ উইকেট তুলে নিয়েছেন কারিবীয় বংশোদ্ভূত এই ইংলিশ পেসার। আজ লর্ডসে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী অস্ট্রেলিয়াকেও গতির ঝড়ে কাঁপিয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে রাখলেন আর্চার। অস্ট্রেলিয়ার অন্যতম ব্যাটিং স্তম্ভ স্টিভেন স্মিথকে কোনো ছাড় দেবেন না ইংল্যান্ডের বোলিং আক্রমণের নেতা। স্মিথকে ছাড় দেয়ার প্রশ্ন উঠছে কেন? আইপিএল সূত্রে স্মিথ যে আর্চারের বেশ ভালো বন্ধু। কিন্তু বেরসিক আর্চার সাফ জানিয়ে দিলেন, যুদ্ধের ময়দানে বন্ধুত্বের কোনো জায়গা নেই!

শুধু আজ নয়, এই গ্রীষ্মেই বন্ধুত্ব ভুলে থাকতে হবে দু’জনকে। কারণ বিশ্বকাপের পরপরই মাঠে গড়াবে অগ্নিগর্ভ অ্যাশেজ সিরিজ। এ বছর আইপিএলে রাজস্থান রয়্যালসে স্মিথের সতীর্থ ছিলেন তিন ইংলিশ- আর্চার, জস বাটলার ও বেন স্টোকস। তবে বারবাডোজে জন্ম নেয়া আর্চারের তখনও ইংল্যান্ডের জার্সিতে অভিষেক হয়নি। সেজন্যই হয়তো স্মিথের সঙ্গে তার বন্ধুত্বের রসায়ন সবচেয়ে ভালো জমেছিল। এখনও স্মিথকে ভালো বন্ধু বলেই মনে করেন আর্চার। কিন্তু সতীর্থ থেকে প্রতিপক্ষ হয়ে যাওয়ায় মাঠে বন্ধুত্বের কোনো জায়গা দেখছেন না আর্চার, ‘স্মিথকে আমি বন্ধুই মনে করি। আমার ধারণা সে-ও তাই মনে করে। স্মিথ চমৎকার একজন মানুষ। কিন্তু ক্রিকেট তো ক্রিকেটই। এখন বন্ধুত্ব ভুলে সামনে তাকানোর সময়। ম্যাচটা শেষ না হওয়া পর্যন্ত বন্ধুত্বের কোনো জায়গা নেই।’

বন্ধুত্ব আপাতত ভুলে থাকলেও একসঙ্গে খেলার ফায়দা ঠিকই তুলে নিতে চান আর্চার। রাজস্থানে খেলার সময় নেটে নাকি তার মুখোমুখি হতে চাইতেন না স্মিথ। সাবেক অস্ট্রেলিয়া অধিনায়কের আরও কিছু দুর্বলতা তার জানা আছে। সেটাই আজ কাজে লাগাতে চান আর্চার, ‘সত্যি বলতে তার বিপক্ষে খুব বেশি বল আমি করিনি। নেটে অনেকেই আমার মুখোমুখি হতে চাইত না। কিন্তু একসঙ্গে খেললে এমন অনেক বিষয় চোখে পড়ে, বিপক্ষে খেললে যা চোখে পড়ে না। আশা করি, আমি ও স্টোকস সেই জ্ঞান কাজে লাগাতে পারব।’

হেড-টু-হেড

ম্যাচ ১৪৭

ইংল্যান্ড জয়ী ৬১

অস্ট্রেলিয়া জয়ী ৮১

টাই ২

ফলহীন ৩