অস্ট্রেলিয়া না ইংল্যান্ড?

  স্পোর্টস ডেস্ক ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ইংল্যান্ড,

বিশ্বকাপের পরই রয়েছে টেস্ট ক্রিকেটের সবচেয়ে মর্যাদার লড়াই অ্যাশেজ সিরিজ। তবে ‘ছাই যুদ্ধের’ রঙিন সংস্করণের জন্য ততদিন অপেক্ষা করতে হবে না ক্রিকেটপ্রেমীদের। ক্রিকেটের সবচেয়ে অভিজাত ভেন্যুতে বিশ্বকাপের অন্যতম রাজসিক ম্যাচ আজ। ‘হোম অব ক্রিকেট’ লর্ডসে মুখোমুখি দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া। ঐতিহ্য ও আবেদনে যে ম্যাচ ভারত-পাকিস্তান মহারণের সমকক্ষ। অগ্নিগর্ভ এই লড়াই দিয়েই বিশ্বকাপের সবচেয়ে কঠিন পর্ব শুরু করতে যাচ্ছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। হট ফেভারিট হিসেবে বিশ্বকাপ শুরু করা ইংল্যান্ডকে নামতে হচ্ছে টিকে থাকার লড়াইয়ে। প্রথম ছয় ম্যাচের দুটিতে হেরে সেমিফাইনালের পথটা বন্ধুর করে তুলেছে ইয়ন মরগ্যানের দল। সেমিতে যেতে এখন অস্ট্রেলিয়া, ভারত ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ তিন ম্যাচের অন্তত দুটিতে জিতে হবে তাদের। কিন্তু ইতিহাস তাদের প্রতিকূলে। ১৯৯২ আসরের পর এই তিন দলের বিপক্ষে বিশ্বকাপে আর জয়ের দেখা পায়নি ইংল্যান্ড। শেষ দুই ম্যাচে নকআউটের চাপ এড়াতে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে গেরোটা আজ খুলতে হবে মরগ্যানদের। ছয় ম্যাচে আট পয়েন্ট নিয়ে আপাতত পয়েন্ট টেবিলের চারে আছে স্বাগতিকরা। অন্যদিকে ছয় ম্যাচে পাঁচ জয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে অস্ট্রেলিয়া রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। আজ জিতলে সেমির টিকিট কার্যত নিশ্চিত হয়ে যাবে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের।

শেষ ম্যাচে শ্রীলংকার কাছে ২০ রানের অভাবনীয় হারেই বিপাকে পড়েছে ইংলিশরা। শ্রীলংকাকে মাত্র ২৩২ রানে বেঁধে ফেলেও ব্যাটিং ব্যর্থতায় ২১২ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল ইংল্যান্ড। এতেই প্রশ্ন উঠেছে, ইংল্যান্ড কী শুধুই ফ্ল্যাট উইকেটের রাজা? এক গবেষণায় দেখা গেছে, গত দুই বছরে ব্যাটিং-দুরূহ উইকেটে ১১ ম্যাচের পাঁচটিতে হেরেছে ইংল্যান্ড। যেখানে ব্যাটিং স্বর্গে ১১ ম্যাচে জয় নয়টি। লর্ডসের উইকেট মোটা দাগে ব্যাটিং-দুরূহ নয়। তবে দিনের শুরুতে বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকায় উইকেটের চরিত্র বদলে যেতে পারে। এতে টস জেতাটা ম্যাচ জেতার পূর্বশর্ত হয়ে উঠতে পারে। লর্ডসে শেষ চার ম্যাচের তিনটিতেই জিতেছে আগে ব্যাট করা দল। পাকিস্তানের কাছে হারটা বাদ দিলে প্রথম পাঁচ ম্যাচে প্রত্যাশা মিটিয়েই পারফর্ম করেছে ইংল্যান্ড। সমস্যার শুরু ওপেনার জেসন রয় চোটে পড়ার পর। শতভাগ ফিট না হওয়ায় আজও খেলা হচ্ছে না রয়ের। তার জায়গায় সুযোগ পাওয়া জেমস ভিন্স সুবিধা করতে পারছেন না। তবে ইংল্যান্ডের ব্যাটিং অর্ডারে গোলা-বারুদের কোনো কমতি নেই। জো রুট আছেন ফর্মের তুঙ্গে। মরগ্যান, বাটলার, বেয়ারস্টো, স্টোকসরাও নিজেদের দিনে যে কোনো বোলিং আক্রমণ গুঁড়িয়ে দিতে পারেন। জফরা আর্চারের নেতৃত্বে ইংল্যান্ডের বোলিং বিভাগও যথেষ্ট শক্তিশালী। নিজেদের শক্তির জায়গায় আস্থা রেখে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে চান ইংল্যান্ডের সহ-অধিনায়ক জস বাটলার, ‘শ্রীলংকার বিপক্ষে যথেষ্ট আক্রমণাত্মক মানসিকতা দেখাতে পারিনি আমরা। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সেই ভুলের পুনরাবৃত্তি করা যাবে না। যেভাবে খেলে এতদিন সাফল্য পেয়েছি, সেই খেলাটাই আমরা খেলব।’

অস্ট্রেলিয়াও কম শক্তিধর দল নয়। ব্যাটিংয়ে দারুণ ছন্দে আছেন ডেভিড ওয়ার্নার, অ্যারন ফিঞ্চ ও স্টিভেন স্মিথ। বোলিংয়ে মিচেল স্টার্ক একাই একশ’। পরিসংখ্যানও তাদের পক্ষে। মুখোমুখি লড়াইয়ে অস্ট্রেলিয়ার ৮১ জয়ের বিপরীতে ইংল্যান্ডের জয় ৬১টি। বিশ্বকাপেও দু’দলের আগের সাত ম্যাচের পাঁচটিতে জিতেছে অস্ট্রেলিয়া। লর্ডসেও এগিয়ে অ্যারন ফিঞ্চের দল। এই মাঠে ১৪ বারের দেখায় অস্ট্রেলিয়ার আট জয়ের বিপরীতে ইংল্যান্ডের জয় পাঁচটি। একটি ম্যাচ টাই হয়েছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক অতীত একদম উল্টো। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে শেষ ১০ ওয়ানডের নয়টিই জিতেছে ইংল্যান্ড। গত বছর ট্রেন্ট ব্রিজে অসিদের বিপক্ষেই সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ ৪৮১ রানের বিশ্ব রেকর্ড গড়েছিল তারা। অস্ট্রেলিয়ার কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার তাই ম্যাচটিকে অগ্নিপরীক্ষা হিসেবেই দেখছেন, ‘ইংল্যান্ড এখন বিশ্বের সেরা দল। দলটির দিকে একবার তাকালেই সেটা বুঝবেন। এক সপ্তাহে কিছুই বদলে যায়নি। বাটলার এক অবিশ্বাস্য খেলোয়াড়। বিশ্ব ক্রিকেটের নতুন ধোনি সে। আশা করব, আমাদের বিপক্ষে সে ডাক মারবে! আসলে পরিকল্পনা করে তাকে থামানো সম্ভব নয়। এ ধরনের ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে যারা স্নায়ু ধরে রাখতে পারবে তারাই জিতবে। আমি আশা করছি, নির্দিষ্ট দিনে ইংল্যান্ডের চেয়ে ভালো খেলবে আমার ছেলেরা।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×