সেই চার রান নিতে চাননি স্টোকস

চাঞ্চল্যকর তথ্য অ্যান্ডারসনের

  পিটিআই/ফক্স স্পোর্টস ১৮ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মূল ম্যাচ টাই। পরে সুপার ওভারেও সমতা। রোববার লর্ডসে বিশ্বকাপ ইতিহাসের সবচেয়ে রোমাঞ্চকর ফাইনালে অবিশ্বাস্য নাটকীয়তার পর আইসিসির টাইব্রেক নিয়মে নিউজিল্যান্ডের চেয়ে বেশি বাউন্ডারি মারার সুবাদে বিশ্বসেরার মুকুট উঠেছে ইংল্যান্ডের হাতে। কিন্তু প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ জিতে ইংল্যান্ড উচ্ছ্বাসে ভাসলেও স্নায়ুক্ষয়ী ফাইনালে আম্পায়ারদের প্রশ্নবিদ্ধ সিদ্ধান্ত নিয়ে বিতর্কের ঝড় কিছুতেই থামছে না। যার ব্যাটিং বীরত্বে ইংল্যান্ড বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছে, সেই বেন স্টোকসও পুড়ছেন আত্মদহনে। ‘টাই’ নাটকের আগে ম্যাচের শেষ ওভারের চতুর্থ বল ডিপ মিডউইকেটে ঠেলে দিয়ে দৌড়ে দুই রান নেন স্টোকস। দ্বিতীয় রানের সময় রানআউট এড়াতে ক্রিজে ঝাঁপিয়ে পড়েন স্টোকস। এ সময় ফিল্ডার মার্টিন গাপটিলের থ্রো স্টোকসের ব্যাটে লেগে বাউন্ডারির বাইরে চলে যায়। যেখানে দুই রান হচ্ছিল, সেখানে ইংল্যান্ডের স্কোরবোর্ডে যোগ হয় ছয় রান। এই অতিরিক্ত চার রান না পেলে ইংল্যান্ড হয়তো বিশ্বকাপ জিততে পারত না। এ নিয়েই যত বিতর্ক। অনেকে বলছেন, ওভার থ্রোর কারণে অতিরিক্ত চার রান না দিয়ে ডেড বল ঘোষণা করতে পারতেন আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা। সবচেয়ে চমকপ্রদ ব্যাপার হল, স্টোকস নিজেই নাকি ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেয়া সেই অতিরিক্ত চার রান বাতিল করতে অনুরোধ করেছিলেন আম্পায়ারকে!

বিবিসি’কে নতুন এ তথ্যটা জানিয়েছেন ইংলিশ পেসার জেমস অ্যান্ডারসন। দীর্ঘদিন ওয়ানডে দলের বাইরে থাকলেও টেস্টে এখনও ইংল্যান্ডের পেস আক্রমণের নেতা অ্যান্ডারসন। বিশ্বকাপ ফাইনালের সেই বিতর্কিত মুহূর্ত নিয়ে তার ভাষ্য, ‘নিয়ম অনুযায়ী, ফিল্ডার যদি স্টাম্প লক্ষ্য করে থ্রো করে এবং বল ব্যাটসম্যানের গায়ে লেগে মাঠের মধ্যে থাকে

আপনি দৌড়ে আর রান নিতে পারবেন না। কিন্তু বল বাউন্ডারি পার হয়ে গেলে নিয়ম অনুযায়ী সেটা চার। এ নিয়ে কারও কিছু বলার নেই। তবে স্টোকস আম্পারদের কাছে গিয়ে

বলেছিলেন, ‘এই চার রান কী বাদ দেয়া যায় না? আমরা এটা চাই না।’ কিন্তু নিয়ম তো নিয়মই।’

ঘটনাটি ইচ্ছাকৃত না হলেও স্টোকসকে তা পোড়াচ্ছে। মাঠেই দু’হাত তুলে ক্ষমা চাওয়ার ভঙ্গিতে সেটি বুঝিয়ে দিয়েছিলেন ইংলিশ অলরাউন্ডার। কিন্তু ক্ষতি যা হওয়ার তা ততক্ষণে হয়েই গেছে নিউজিল্যান্ডের। অনিচ্ছাকৃত এ ঘটনার জন্য ম্যাচ শেষে স্টোকস বলেছিলেন, ‘থ্রো ব্যাটে লেগে বাউন্ডারি হয়ে যাওয়ার জন্য আমি বাকি জীবন উইলিয়ামসনের (নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক) কাছে ক্ষমা চেয়ে যাব।’ এ তো গেল একটি বিতর্ক। ওভার থ্রো-কাণ্ডে আম্পাররা আসল ভুলটা করেছেন অন্য জায়গায়। টিভি রিপ্লেতে পরিষ্কার দেখা গেছে ফিল্ডার গাপটিল বল ছোড়ার মুহূর্তে স্টোকস ও আদিল রশিদ দ্বিতীয়

রানের জন্য পরস্পরকে অতিক্রম করতে পারেননি। নিয়ম অনুযায়ী, দৌড়ে নেয়া দ্বিতীয় রান তাই বৈধ নয়। সাবেক অস্ট্রেলিয়ান আম্পায়ার সাইমন টফেল আইনের ধারা ব্যাখ্যা করে বলেছেন, ‘এটা পরিষ্কার ভুল ছিল। ছয় রান নয়, ইংল্যান্ডকে পাঁচ রান দেয়া উচিত ছিল।’ আম্পায়ারদের

ভুলে ইংল্যান্ড অতিরিক্ত একটি রান না পেলে শিরোপা উঠতে পারত নিউজিল্যান্ডের হাতে। এ নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে

এখনও কোনো বিবৃতি দেয়নি আইসিসি। তবে বুধবার ফক্স স্পোর্টসকে আইসিসির এক মুখপাত্র জানিয়েছেন,

‘খেলার সব নিয়ম ও আইন মাথায় রেখে মাঠের আম্পায়াররা নিজেদের বিচক্ষণতা অনুযায়ী চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেন।

নীতির জায়গা থেকে আম্পায়ারদের কোনো সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারে না আইসিসি।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×