মার্কা লিজেন্ড অ্যাওয়ার্ড

রোনাল্ডোর মুকুটে আরেকটি পালক

  মার্কা ৩১ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রোনাল্ডো,

বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারে সব মিলিয়ে ঠিক কত পুরস্কার জিতেছেন, সঠিক সংখ্যাটা হয়তো ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর নিজেরও জানা নেই। পর্তুগিজ মহাতারকার মুকুটে যোগ হল আরেকটি পালক। এ পুরস্কার একটু আলাদা। সোনায় মোড়ানো ক্যারিয়ারের জন্য সময়ের অন্যতম সেরা ফুটবলারকে বিশেষ সম্মান জানাল স্প্যানিশ ক্রীড়া দৈনিক মার্কা।

এ বছর মার্কা লিজেন্ড অ্যাওয়ার্ড জিতলেন রোনাল্ডো। সোমবার রাতে মাদ্রিদে জমকালো এক অনুষ্ঠানে তার হাতে তুলে দেয়া হয়েছে পুরস্কার। রোনাল্ডোর আগে মার্কা লিজেন্ড অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন পেলে, দিয়েগো ম্যারাডোনা, লিওনেল মেসি, পাওলো মালদিনি, রাউল গনজালেস, মাইকেল জর্ডান, মাইকেল ফেলপস, উসাইন বোল্ট, রজার ফেদেরার ও রাফায়েল নাদালের মতো কিংবদন্তিরা।

৩৪ বছর বয়সেও ফর্মের তুঙ্গে থাকা রোনাল্ডোর ক্যারিয়ার সত্যিই সোনায় মোড়ানো। স্পোর্টিং লিসবন, ম্যানইউ, রিয়াল মাদ্রিদ, জুভেন্টাস ও পর্তুগাল জাতীয় দলের হয়ে প্রায় ১৭ বছরের পেশাদার ক্যারিয়ারে ৮০৩ ম্যাচে করেছেন ৬০২ গোল। সঙ্গে ২১০টি অ্যাসিস্ট। এর মধ্যে রিয়ালের হয়ে ৪৩৮ ম্যাচে ৪৫০ গোল। ক্যারিয়ারের পাঁচটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপার চারটিই রিয়ালের হয়ে জিতেছেন রোনাল্ডো।

গত বছর রিয়াল ছেড়ে জুভেন্টাসে যোগ দিলেও সাবেক দলের প্রতি তার ভালোবাসার মৃত্যু হয়নি। যার কারণে তিনি রিয়াল ছেড়েছিলেন বলে গুঞ্জন ছিল, সেই রিয়াল সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজের হাত থেকেই সোমবার পুরস্কার গ্রহণ করেন রোনাল্ডো। এ সময় হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া এক আবেগঘন পরিবেশ তৈরি হয়েছিল। মঞ্চে উঠে জড়িয়ে ধরে রোনাল্ডোর কপালে চুমু এঁকে দেন পেরেজ। দর্শক সারি থেকে তখন চিৎকার ভেসে আসে, ‘রোনাল্ডোকে ফিরিয়ে আনেন পেরেজ।’

পরে রোনাল্ডো নিজেও মাদ্রিদে ফেরার ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন। বলেছেন, রিয়াল ছেড়ে যাওয়াটা তাকেও ব্যথিত করেছে। জুভেন্টাসকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতিয়ে একদিন হয়তো আবার ফিরবেন পুরনো ঠিকানায়। ফিরবেন প্রাণের শহর মাদ্রিদে। লিজেন্ড অ্যাওয়ার্ড হাতে আবেগাপ্লুত রোনাল্ডো বলেন, ‘আমার ব্যক্তিগত জাদুঘরে এই ট্রফিটা বিশেষ একটি জায়গায় থাকবে। মাদ্রিদ শহরটাই আমার কাছে বিশেষ কিছু। বিশ্বের অনেক শহরেই ঘুরেছি, কিন্তু মাদ্রিদ সেই গুটিকয়েক শহরের একটি যার সঙ্গে আমার প্রাণের সম্পর্ক। এটা মূলত স্প্যানিশ ট্রফি। এটা পাওয়ার ক্ষেত্রে যারা আমাকে সহযোগিতা করেছেন, সবাইকে ধন্যবাদ। সত্যিই আমি গর্বিত। আশা করি, আবার মাদ্রিদে ফিরতে পারব।’

এরপর মার্কাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে রিয়াল ছাড়ার কারণ ও জুভেন্টাসে নিজের লক্ষ্যের কথা জানান রোনাল্ডো, ‘মাদ্রিদে সবকিছু জেতার পর একটি পরিবর্তন ও নতুন অনুপ্রেরণা প্রয়োজন ছিল আমার। জেতার সেই আকাক্সক্ষা ও শক্তি এখনও আছে আমার। জুভেন্টাস অবশ্যই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতবে। আমি জানি না সেটা এ বছর নাকি পরেরবার। কিন্তু এটা আসবেই।’

মার্কার মুখোমুখি হওয়ার আগে মঞ্চেই ফুটফুটে পাঁচ শিশুকে অভিনব এক সাক্ষাৎকার দেন রোনাল্ডো। অভিজ্ঞতাটা নতুন হওয়ায় বেশ মজাই পেয়েছেন রোনাল্ডো, ‘বাচ্চাদের চেয়ে সাংবাদিকদের সামলানো অনেক সহজ!’ পাঁচ ক্ষুদে সাংবাদিকের গায়ে ছিল রোনাল্ডোর বর্তমান ও সাবেক পাঁচ দলের জার্সি। প্রত্যেকে একটি করে প্রশ্ন করেছে। স্পোর্টিং লিসবনের জার্সি পরে আসা ক্লদিয়া করে প্রথম প্রশ্ন, ‘যখন আপনি শিশু ছিলেন, তখন কী ভাবতে পেরেছিলেন যে, একদিন বিশ্বসেরা হবেন।’ রোনাল্ডোর উত্তর, ‘না, কখনই ভাবিনি। শুধু একজন পেশাদার ফুটবলার হওয়ার স্বপ্ন ছিল।’ দ্বিতীয় প্রশ্ন আসে ম্যানইউর জার্সি পরা গনজালোর কাছ থেকে, ‘আপনি কী ম্যানচেস্টার বা মাদ্রিদকে মিস করেন?’

স্মৃতিকাতর রোনাল্ডোর উত্তর, ‘আমি দুই দলকেই খুব মিস করি। তবে মাদ্রিদে এসে আমার জীবনে বেশি পরিবর্তন এসেছে। আমার বাচ্চাদের জন্ম এখানে। এখানে আমি আমার জীবনসঙ্গীকে পেয়েছি। তাই মাদ্রিদকেই বেশি মিস করি।’ রিয়ালের জার্সি পরে এসেছিল যে শিশুটি, সেই জর্জ কোনো প্রশ্ন না করে শুধু বলে, ‘আপনার রিয়াল ছেড়ে যাওয়া আমাকে সবচেয়ে বেশি ব্যথিত করেছে।’ রোনাল্ডো তার হাতটা নিজের মুঠোয় নিয়ে বলেন, ‘আমিও তোমার মতো কষ্ট পেয়েছি।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×