হাসান ও শিরিনই দ্রুততম মানব-মানবী

সামার অ্যাথলেটিক্স

  স্পোর্টস রিপোর্টার ৩১ আগস্ট ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

শিরিন

সামার অ্যাথলেটিক্সের প্রথমদিন বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে সেই পুরনোদেরই জয়জয়কার। নতুনরা পারছেন না। নৌবাহিনীর শিরিন আক্তার ও সেনাবাহিনীর হাসান মিয়া এবারও বিজয়ী। এই নিয়ে নবমবার দেশের দ্রুততম মানবীর খেতাব জিতলেন শিরিন আক্তার। এর মধ্যে সামার অ্যাথলেটিক্সে চারবার এবং জাতীয় মিটে পাঁচবার। তবে বিকেএসপিতে নিবিড় অনুশীলন করেও বেশি সময় নিয়েছেন শিরিন।

আন্তর্জাতিক আসরে যা একেবারেই বেমানান। এতে হতাশ শিরিন নিজে। গত বছরের জাতীয় মিটে তার টাইমিং ছিল ১১.৮০ সেকেন্ড। এবার তা দাঁড়িয়েছে ১২.২১ সেকেন্ডে। নৌবাহিনীর সহযোগিতা, বিকেএসপিতে অনুশীলন এবং আবদুল্লাহেল কাফীর তত্ত্বাবধানে প্রস্তুতি- সব এক করেও খুব একটা ভালো করতে পারেননি শিরিন। তিনি বলেন, ‘আশাকরি টাইমিংয়ের উন্নতি করতে পারব। সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমসের এখনও অনেক সময় বাকি। পরিশ্রম করছি।’

তিনি যোগ করেন, ‘আত্মবিশ্বাসী ছিলাম। তবে আমার আশা, এসএ গেমসে পদক জিতবই। সে লক্ষ্যেই অনুশীলন করে যাচ্ছি। আমি চাই ইলেকট্রনিক্স টাইমিং ভালো করতে।’ ভবিষ্যতের অ্যাথলেটদের নিয়ে আশাবাদী শিরিন, ‘আমি মনে করি, তরুণ প্রজন্ম উঠে আসছে। যেমন রুপা, সোহাগী, শরীফা। সবাই পরিশ্রম করছে। আগামী দিনগুলোতে তারাই কিছু করে দেখাতে পারবে।’

শিরিনের জন্য গল্পটা পুরনো হলেও হাসান মিয়ার পুনরুদ্ধারের। গেল বছর সামার মিটে দ্রুততম মানব হলেও জাতীয় অ্যাথলেটিক্সে মুকুট হারিয়েছিলেন নৌবাহিনীর মো. ইসমাইলের কাছে। এক মৌসুম পর আবারও দ্রুততম মানবের মুকুট ছিনিয়ে নিলেন বিকেএসপি থেকে এক মাস আগে সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়া হাসান মিয়া।

সময় নিয়েছেন ১০.৬১ সেকেন্ড। আন্তর্জাতিক আসরের চেয়ে অনেক বেশি সময় হলেও সন্তুষ্ট হাসান। আনন্দ বেশি হওয়ার কারণ সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েই দ্রুততম মানবের খেতাব ফিরে পাওয়া। আগে জুনিয়র মিটে বিকেএসপির হয়ে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে নয়বার দ্রুততম কিশোর হয়েছিলেন। এবার দ্বিতীয়বারের মতো হলেন দ্রুততম মানব।

হাসান মিয়ার কথায়, ‘খুব ভালো লাগছে সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েই দলকে একটি স্বর্ণপদক এনে দিতে পেরেছি। আনন্দটা বেশি এই কারণে যে, অনেক কষ্ট করে নিজের জায়গা ফিরে পেয়েছি। ভবিষ্যতে আরও ভালো টাইমিং করতে চাই। এখন আমার লক্ষ্য এসএ গেমসে ভালো পারফর্ম করা। সেখানে নিজের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করব।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×