মাঠের ক্রিকেটাররা আন্দোলনের মাঠে

ক্রিকেটারদের ১১ দফা দাবি

  স্পোর্টস রিপোর্টার ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নিজেদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া আদায়ে সোমবার ক্রিকেটাররা ধর্মঘট ডাকার সময় মিরপুর একাডেমি মাঠে সাকিব আল হাসান মুখপাত্র হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে প্রায় ৬০ জন ক্রিকেটার উপস্থিত ছিলেন। ১১ দফা দাবি ১০ ক্রিকেটার পাঠ করেন। দফাগুলো পাঠ করেন- নাঈম ইসলাম, মাহমুদউল্লাহ, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, এনামুল হক জুনিয়র, তামিম ইকবাল, এনামুল হক বিজয়, নুরুল হাসান সোহান, জুনায়েদ সিদ্দিকী ও ফরহাদ রেজা। একনজরে দেখে নেয়া যাক ক্রিকেটারদের দাবিগুলো।

১. ক্রিকেটারদের প্রাপ্য সম্মান দিতে হবে ও অকার্যকর সংগঠন কোয়াবের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে অবিলম্বে পদত্যাগ করতে হবে। নির্বাচনের মাধ্যমে ক্রিকেটারদেরই সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক বেছে নেয়ার অধিকার দিতে হবে।

২. ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ হতে হবে আগের মতো করে। সেখানে পারিশ্রমিকের কোনো মানদণ্ড থাকবে না। কোন ক্লাবে, কত টাকায় খেলবেন, সেই স্বাধীনতা দিতে হবে ক্রিকেটারদের।

৩. এবার বিশেষ বিপিএল হওয়ায় আমরা সম্মান জানাচ্ছি। আগামী বছর থেকে বিপিএলকে ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক নিয়মে ফেরাতে হবে। বিদেশি ক্রিকেটারদের সঙ্গে স্থানীয় ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিকের সামঞ্জস্য রাখতে হবে। ড্রাফটে ক্রিকেটাররা কে কোন গ্রেডে থাকবেন, সেটা বেছে নেয়ার অধিকার দিতে হবে।

৪. প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ম্যাচ ফি অন্তত এক লাখ টাকা করতে হবে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের বেতন ৫০ শতাংশ বাড়াতে হবে।

৫. ক্রিকেটারদের অনুশীলনের সুবিধা বাড়াতে হবে। বিভাগীয় পর্যায়ে ১২ মাস কোচ, ফিজিও, ট্রেনারের সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি ভ্রমণ ভাতা, দৈনিক ভাতা উপযুক্ত পর্যায়ে আনতে হবে। ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো বলে খেলা হতে হবে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের টুর্নামেন্টের সময় জিম, সুইমিংপুলসহ ভালো হোটেলে রাখা ও ভালো বাসে যাতায়াত নিশ্চিত করতে হবে।

৬. বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে আরও বেশি সংখ্যক ক্রিকেটারকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে এবং তাদের বেতন বাড়াতে হবে। সংখ্যাটা ৩০ জন করা উচিত।

৭. ক্রিকেটারদের পাশাপাশি দেশি কোচ, আম্পায়ার এবং মাঠকর্মীদের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে। একই সঙ্গে যথাযথ পারিশ্রমিক নিশ্চিত করতে হবে।

৮. জাতীয় ক্রিকেট লিগের ওয়ানডে ফরম্যাট চালু করতে হবে। টুর্নামেন্ট বাড়াতে হবে। বিপিএলের ঠিক আগে আরেকটি টি ২০ টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে হবে।

৯. ঘরোয়া ক্রিকেটের টুর্নামেন্টগুলোর জন্য নির্দিষ্ট ক্যালেন্ডার থাকতে হবে।

১০. বিপিএল ও ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের বকেয়া নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে।

১১. দুটির বেশি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে খেলার অনাপত্তিপত্র না দেয়ার নিয়ম শিথিল করতে হবে।

১১ দফা পেশ করার পর সাকিব বলেন, ‘এখানে যেহেতু আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট নিয়ে বেশি কথা হচ্ছে, আমাদের প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় বিভাগের মান আমরা সবাই জানি। বিভিন্ন সময় সংবাদমাধ্যমে এসেছে। আগেই অনেক দল জেনে যায় যে কোন দল

জিতবে, কোন দল হারবে। এটা খুবই দুঃখজনক। এটি ঠিক করা খুবই জরুরি।’ তিনি বলেন, ‘ভালো বলে একজন ক্রিকেটার আউট হতেই পারেন। কিন্তু পরপর তিন ম্যাচে কেউ যদি বাজে বলে আউট হয়ে যায়, তারপর একটা ভালো বলে আউট হয়ে গেল, তার ক্যারিয়ার ওখানেই শেষ। একজন ক্রিকেটারকে উঠে আসতে হলে, আমাদের পাইপলাইন ভালো করতে হলে, এই জায়গাটা ঠিক করতে হবে।’

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×