ইন্দোরে ক্রিকেটপ্রেমী বীর মুক্তিযোদ্ধা নুর বকশ

  স্পোর্টস ডেস্ক ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নূর

নুর বকশ একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। একাত্তরে স্বাধীনতাযুদ্ধে লড়াই করেছেন। এখন তার জীবন চলে পেনশনে। সঞ্চয়ের টাকায় ঘুরে বেড়ান ক্রিকেট ম্যাচ দেখার জন্য। হাতে একতারা। কণ্ঠে লোকগীতি। ৮১ বছরের নুর বকশকে কাল দেখা গেল ভারতের ইন্দোরের হলকার স্টেডিয়ামে। বাংলাদেশ-ভারত প্রথম টেস্টের প্রথমদিনের বড় আকর্ষণ এই বৃদ্ধ ক্রিকেটপ্রেমী। বার্ধক্য বাদ সাধতে পারেনি তার ক্রিকেটপ্রেমে।

তার যে অনেক টাকা-পয়সা তা-ও নয়। বাংলাদেশের ক্রিকেটের এই গুণমুগ্ধ ভক্ত ভারতে গিয়ে মুশফিক, মুমিনুলদের খেলা দেখার জন্য জমিয়েছেন নিজের পেনশনের টাকা। পেনশনের টাকা এবং অন্যান্য জমানো টাকা সম্বল করে ইন্দোরে হাজির হন তিনি। গায়ে সবুজ রঙের সোয়েটার। পেছনে লেখা, ‘ডেডলি টাইগার্স’। মাথায় বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা বেঁধে, হাতে একতারা নিয়ে লোকসঙ্গীত গাইতে গাইতে হলকার স্টেডিয়ামের প্রবেশপথে হাজির হন মুক্তিযোদ্ধা নুর বকশ।

তার বেশভূষা এবং হাতে একতারা ও গান শুনে সবাই থমকে দাঁড়ায়। কে ইনি? বাংলাদেশের কোন পাগলভক্ত এভাবে চলে এলেন ভারতের ইন্দোরে। টাইগারদের প্রতি তার ভালোবাসা দেখে সবাই অবাক। নিজের জমানো টাকা-পয়সা আর পেনশন দিয়ে টি ২০ সিরিজ থেকে ঘুরছেন ভারতের এক শহর থেকে আরেক শহরে। বাড়ি তার ঝিনাইদহে।

নুর বকশ বলেন, ‘ঢাকা থেকে কলকাতা ট্রেনে এসেছি। এরপর হাওড়া থেকে ট্রেনে দিল্লি। ট্রেনেই রাজকোট এবং নাগপুর গেলাম। সেখান থেকে একইভাবে ইন্দোরে। ট্রেনে আসা-যাওয়ার কারণে আমার খরচ অনেক কম হয়েছে। আমি পেনশনের টাকায় চলি। বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম আমাকে ম্যাচের টিকিট দিয়েছেন।’

ঘটনাপ্রবাহ : বাংলাদেশের ভারত সফর-২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×