গোলাপি বলের টেস্ট ম্যাচ

আলোর নিচে অন্ধকার!

মুমিনুল মুশফিকদের ভুতুড়ে ব্যাটিং

  স্পোর্টস রিপোর্টার ২৩ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দিবারাত্রির ঐতিহাসিক টেস্ট। বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস শেষ হওয়ার জন্য প্রথমদিন বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হল না। দিনের আলোয় ইডেনে নিভে গেল বাংলাদেশ। সূর্যের আলোতেই ভুতুড়ে এক ইনিংস। গোলাপি বলে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস শেষ মাত্র ১০৬ রানে, ৩০.৩ ওভারে। দ্বিতীয় সেশনের পর এক ঘণ্টার মধ্যেই অলআউট। নিজেদের অভিষেকে টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৯১ রানের

পর এটিই ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বনিম্ন দলীয় স্কোর।

বলের রং পাল্টালেও বাংলাদেশের খেলার ধরন পাল্টায়নি। ইন্দোরের মতো কলকাতায়ও ৪০ হাজারের বেশি দর্শকের সামনে টস-ভাগ্য সহায় হয় মুমিনুলের। একাদশে দুটি পরিবর্তন এনে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত থেকে নড়েনি সফরকারীরা। শুরুতে সাদমান ইসলাম ও ইমরুল কায়েসের ব্যাটিংয়ে আশ্বাস। কিন্তু ইশান্ত, উমেশদের সামনে বেশিক্ষণ টেকা যায়নি। আগের ওভারেই ইমরুলকে নড়বড়ে মনে হয়েছে। ইশান্ত শর্মার চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে ক্যাচ। রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান ইমরুল। এক বল পর এলবিডাব্ল– হয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। ভারত সফরে তিন ইনিংসেই তার ব্যাটিং হয়েছে শিশুসুলভ। দুই অঙ্ক ছুঁতে পারলেন না এক ইনিংসেও। ইমরুলের দেখানো পথেই হাঁটেন বাকিরা। উমেশ যাদবকে ভালোভাবে খেলছিলেন সাদমান। এজন্য তাকে তিন ওভার পরই সরিয়ে নেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। দ্বিতীয় স্পেলে এসে যাদব প্রথম ওভারেই জোড়া আঘাত হানেন। তিন-চার-পাঁচে নামা মুমিনুল হক, মোহাম্মদ মিঠুন ও মুশফিকুর রহিম ফেরেন শূন্য রানে। তিন ম’র খালি হাতে বিদায়ে অশনি সংকেত। ছয়ে নামা আরেক ‘ম’ মাহমুদউল্লাহও আউট ছয় করে। ওপেনিংয়ে সাদমান দলের সর্বোচ্চ ২৯ রান করলেও খেলতে পারেননি স্বাচ্ছন্দ্যে। ভালো খেলছিলেন শুধু লিটন দাস। কিন্তু মোহাম্মদ সামির বল হেলমেটে লাগার পর মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন তিনি। তার ‘কনকাশন’ বদলি হিসেবে সুযোগ পেয়ে মেহেদী হাসান মিরাজ পারেননি তেমন কিছু করতে। মাঠ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর লিটনের মাথায় সিটি স্ক্যান করানো হয়। সাদমান ও লিটনের (২৪ রিটায়ার্ড হার্ট) পর দুই অঙ্কে যেতে পেরেছেন শুধু নাঈম হাসান। মেহেদী হাসান মিরাজের পরিবর্তে তাকে একাদশে নেয়া হয়।

বদলি মিরাজকে ধরে মোট নয়জনই দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে পারেননি। এর মধ্যে চারজন শূন্য ও দু’জন এক রানে আউট হন। এটাই বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ে এখন নিয়মিত চিত্র। আফগানিস্তানের বিপক্ষে হোম টেস্ট সিরিজ দিয়ে শুরু ব্যাটিং ব্যর্থতার। ভারত সফরেও। সেই একই চিত্র। প্রথমদিনেই প্রশ্ন, দ্বিতীয় টেস্টেরও আয়ু তবে কী তিনদিন?

স্কোর কার্ড

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস

রান বল ৪ ৬

সাদমান ক সাহা ব উমেশ ২৯ ৫২ ৫ ০

ইমরুল এলবিডব্লু ব ইশান্ত ৪ ১৫ ০ ০

মুমিনুল ক রোহিত ব উমেশ ০ ৭ ০ ০

মিঠুন ব উমেশ ০ ২ ০ ০

মুশফিক ব সামি ০ ৪ ০ ০

মাহমুদউল্লাহ ক সাহা ব ইশান্ত ৬ ২১ ১ ০

লিটন রিটায়ার্ড হার্ট ২৪ ২৭ ৫ ০

নাঈম ব ইশান্ত ১৯ ২৮ ৪ ০

ইবাদত ব ইশান্ত ১ ৭ ০ ০

মিরাজ ক পূজারা ব ইশান্ত ৮ ১৩ ২ ০

আল-আমিন নটআউট ১ ৪ ০ ০

আবু জায়েদ ক পূজারা ব সামি ০ ৩ ০ ০

অতিরিক্ত ১৪

মোট (অলআউট, ৩০.৩ ওভারে) ১০৬

উইকেট পতন : ১/১৫, ২/১৭, ৩/১৭, ৪/২৬, ৫/৩৮, ৬/৬০, ৭/৮২, ৮/৯৮, ৯/১০৫, ১০/১০৬।

বোলিং : ইশান্ত শর্মা ১২-৪-২২-৫, উমেশ যাদব ৭-২-২৯-৩, মোহাম্মদ সামি ১০.৩-২-৩৬-২, রবীন্দ্র জাদেজা ১-০-৫-০।

ভারত প্রথম ইনিংস

রান বল ৪ ৬

আগরওয়াল ক মিরাজ ব আল-আমিন ১৪ ২১ ৩ ০

রোহিত এলবিডব্লু ব ইবাদত ২১ ৩৫ ২ ১

পূজারা ক সাদমান ব ইবাদত ৫৫ ১০৫ ৮ ০

কোহলি ব্যাটিং ৫৯ ৯৩ ৮ ০

রাহানে ব্যাটিং ২৩ ২২ ৩ ০

অতিরিক্ত ২

মোট (৩ উইকেটে, ৪৬ ওভারে) ১৭৪

উইকেট পতন : ১/২৬, ২/৪৩, ৩/১৩৭।

বোলিং : আল-আমিন হোসেন ১৪-৩-৪৯-১, আবু জায়েদ ১২-৩-৪০-০, ইবাদত হোসেন ১২-১-৬১-২, তাইজুল ইসলাম ৮-০-২৩-০।

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত