তরফদার রুহুল আমিন সরে দাঁড়ালেন: ‘ফুটবলের স্বার্থে’ নির্বাচনে ‘না’

  স্পোর্টস রিপোর্টার ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রুহুল

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) আসন্ন নির্বাচনে তরফদার রুহুল আমিন আপাতত সভাপতি পদে প্রার্থী না হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। সোমবার মহাখালীতে নিজের ব্যবসায়িক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘ফুটবলের বৃহত্তর স্বার্থে আমি আপাতত সভাপতি পদে নির্বাচন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’ গত দু’বছর সভাপতি পদে প্রার্থী হওয়ার জন্য তিনি কাজ করেছেন।

ইতিমধ্যে বাংলাদেশ জেলা ও বিভাগীয় ফুটবল সংগঠক পরিষদ এবং বাংলাদেশ ফুটবল ক্লাব অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হিসেবে তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল। এরপরও নির্বাচন থেকে সরে যাওয়া প্রসঙ্গে বলেন, ‘গত নির্বাচনের সময় কাজী সালাউদ্দিন বলেছিলেন, এটাই আমার শেষ নির্বাচন। আমি এজন্য নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। জেলা-বিভাগ ও ক্লাব থেকে মনোনয়ন পাই। তিনি আবার হঠাৎ নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন। দু’জন প্রার্থী হওয়ায় ক্রীড়াঙ্গনে অস্বস্তিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়। ফুটবলের বৃহত্তর স্বার্থে আমি আপাতত সভাপতি পদে প্রার্থী হব না।’

সভাপতি পদে নির্বাচন না করলেও তারা আসন্ন নির্বাচনে শক্তিশালী প্যানেল দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন, ‘আমরা নির্বাচনে থাকব। আমাদের সংগঠন থেকে অন্য কেউ সভাপতি পদে প্রার্থী হতে পারেন। আমরা নির্বাচনে শক্তিশালী প্যানেল দেব।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাফুফের বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ মহী, সাবেক সদস্য হাসানুজ্জামান খান বাবলু, আবদুল গাফফার, সংগঠক সিরাজউদ্দিন আলমগীর, আবদুল্লাহ আল ফুয়াদ রেদওয়ান, নরসিংদী ডিএফএর সভাপতি শাহীন ভূঁইয়া, ক্লাব সংগঠক শাকিল মাহমুদ চৌধুরী ও আলিমুজ্জামান আলম।

তরফদার বলেন, ‘২০১৬ সালের নির্বাচনের সময় কাজী সালাউদ্দিনের ঘোষণা ছিল তিনি আর নির্বাচন করবেন না। তার সেই মেসেজ নিয়ে আমরা সারা দেশে ভোট ভিক্ষা করেছি। উনাকে জয়ী করেছি। ফুটবলের উন্নয়নে জেলা ও বিভাগীয় ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (বিডিডিএফএ) গঠন করা হয়েছে। তৃণমূলের ফুটবল উন্নয়নে যেখানে যা করার দরকার আমরা করেছি। আমরা আমাদের সীমিত সামর্থ্যরে মধ্যে সারা দেশে ফুটবলে জাগরণ সৃষ্টি করতে পেরেছি। দুই অ্যাসোসিয়েশন থেকে আমাকে বাফুফের আগামী নির্বাচনে সভাপতি পদে মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল। সেটা মাথায় রেখেই আমরা এগিয়ে যাচ্ছিলাম। কিন্তু বর্তমান সভাপতি চতুর্থবার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দিয়েছেন। তার ঘোষণায় ফুটবলে যে আশা-আকাক্সক্ষার জায়গা ছিল সেখানে অস্বস্তিকর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। ফুটবলে ক্রান্তিলগ্ন চলছে। আমরা নেপাল-ভুটানের কাছে হারছি। হারের মধ্যেই আছি। হারের বৃত্ত থেকে বের হতে পারছি না। আমরা সংগঠকরা তৃণমূল পর্যায়ে ফুটবলের জন্য কাজ করছি। ফুটবলের অগ্রগতি, উন্নয়ন থেমে যাক, কেউ তা চায় না। তাই ব্যক্তিগতভাবে আগামী নির্বাচনে আপাতত সভাপতি পদে নির্বাচন করছি না। ফুটবলের ভালো চাই। ফুটবল এগিয়ে যাক। অস্বস্তিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। অস্বস্তিকর পরিবেশ থেকে আমরা মুক্তি চাই। ফুটবল এগিয়ে যাক। যে কাদা ছোড়াছুড়ি হচ্ছে এটা আমাদের কারও জন্য মঙ্গল নয়। আমি ক্রীড়াঙ্গনের সঙ্গে আছি, ফুটবলের সঙ্গে আছি, নির্বাচনের সঙ্গে আছি। আমরা নির্বাচনের বাইরে নই।’

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘কোনো চাপ নয়, আমরা ফুটবলের স্বার্থে কাজ করছি। ফুটবলকে একটা ভালো জায়গায় রাখার জন্যই এ সিদ্ধান্ত। নির্বাচন গণতান্ত্রিক অধিকার। এটা ফিফা-এএফসির নির্বাচন, তারা জড়িত। কোনো পক্ষেরই কারও ওপর কিছু চাপিয়ে দেয়ার এখানে কিছু নেই। এটা একটা স্বাধীন সংস্থা। যে কেউ নির্বাচনে দাঁড়াতে পারেন। সালাউদ্দিন সাহেব যেহেতু বলেছেন তার মতো আরও অনেকেই আসতে পারেন। কাউকে তো বন্ধ করে রাখা যাবে না।’ বাফুফে সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ মহীর কথা, ‘যতক্ষণ পর্যন্ত মনোনয়ন দাখিল না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত কিছুই বলা যায় না। তবে আমি সালাউদ্দিনের নেতৃত্বাধীন প্যানেলে থাকব না।’

এ প্রসঙ্গে কাজী সালাউদ্দিন বলেন, ‘আমি সভাপতি পদে নির্বাচন করব এটা শতভাগ নিশ্চিত। ২০১৬ সালে আমি বলেছিলাম এটাই হয়তো আমার শেষ নির্বাচন।’

আরও পড়ুন

'কোভিড-১৯' সর্বশেষ আপডেট

# আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৮৮ ৩৩
বিশ্ব ১২,৭৩,৫০০ ২,৫৯,৫৪৪ ৬৯,৪৫১
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

 
×