খেলোয়াড়দের রুটি-রুজির পথ বন্ধ

  স্পোর্টস রিপোর্টার ২২ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

‘খেলা বন্ধ। ক্ষতি যা হওয়ার তা তো হচ্ছেই। আমাদের রুটি-রুজির পথ বন্ধ। যদিও করোনার মাঝেও অন্য দেশে খেলা ফের শুরু হয়েছে। আমাদের দেশে খেলা বাতিল হয়ে গেল।

আসলে আমাদের দেশে পেশাদারিত্বের অভাব রয়েছে’, বললেন রহমতগঞ্জের অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ লিটন। তিনি যোগ করেন, ‘খেলা বন্ধ থাকলেও গত দু’মাস রহমতগঞ্জ আমাদের বেতন দিয়েছে। এবার ঘোষণা দিয়ে খেলা বন্ধ হল। আগামীতে ক্লাব বেতন দেবে কি না জানি না।’

ক্লাবের কোচ সৈয়দ গোলাম জিলানী বলেন, ‘ফুটবলের অনেক ক্ষতি হল। যদিও ক্লাবগুলোর কারণে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে ফুটবলাদের ক্ষতি হলেও ক্লাবগুলো একটু সুবিধা পাবে এই সিদ্ধান্তে।’ রহমতগঞ্জের কোচ যোগ করেন, ‘ঢাকার ফুটবলে ক’জন ফুটবলার বেশি টাকা পায়? এক-তৃতীয়াংশ ফুটবলার বলার মতো পারিশ্রমিক পায়। আর যারা কম টাকা পায়, তাদের অবস্থা কী। এক লাখ টাকায়ও অনেকে দলবদল করেছে। এই টাকা দিয়ে ফুটবলাররা নিজেরা চলবে না পরিবারকে চালাবে। তারা ৫০ হাজার টাকা আগে পেলেও বাকি টাকার জন্য বসে থাকতে হবে। সেই টাকা পাবে কি না তারও কোনো নিশ্চয়তা নেই। রহমতগঞ্জ গেল দু’মাস ফুটবলারদের বেতন দিয়েছে। এতে ফুটবলাররা উপকৃত হয়েছে।’ জিলানী বলেন, ‘অনেক মৌসুমে ছয় মাসের লিগ শেষ হয় নয় মাসে। তাই লিগের সময়টা নির্ধারিত করে দিলে সবার জন্য ভালো হয়।’

রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ হামিদ সবুজ বলেন, ‘গেল দু’মাস খেলা না থাকলেও আমরা ফুটবলারদের বেতন দিয়েছি। লিগ বন্ধ হয়ে গেছে। বাকিটা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব। বাফুফে বলেছিল, তারা আমাদের ডাকবে। যাতে ক্লাব ও ফুটবলার কেউ ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। আমরা সে আশাতেই আছি।’

আরও খবর
 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত