মুক্তিযোদ্ধার ফুটবলারদের লাভ-ক্ষতি

  স্পোর্টস রিপোর্টার ২৩ মে ২০২০, ০০:০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

পরিত্যক্ত ফুটবল মৌসুমে পারিশ্রমিকের ৫০ ভাগের বেশি অর্থ পেয়েছেন মুক্তিযোদ্ধার ফুটবলাররা। লিগে মাত্র পাঁচটি ম্যাচ খেলতে পেরেছেন তারা। এদিক দিয়ে লাভবান এ ক্লাবের ফুটবলাররা। তবে এ মৌসুমের বকেয়া অর্থ আগামী মৌসুমে চুক্তির সঙ্গে জুড়ে দেয়া তাদের ক্ষতি হবে বলে মনে করেন মুক্তিযোদ্ধার অধিনায়ক শাহ আলমগীর অনিক। তার কথায়, ‘বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) যদি নতুন করে চুক্তির কথা বলে, তাহলে আমাদের পক্ষে থাকবে সবকিছু। আর আমাদের পাওনা বাকি অর্থ যদি আগামী বছরের চুক্তির সঙ্গে সমন্বয় করা হয়, তাহলে সমস্যা হবে। বাফুফে যদি চিন্তা করে নতুন করে চুক্তি হবে, তাহলে আমাদের জন্য ভালো হয়।’ তিনি যোগ করেন, লিগ শুরু করতে পারলে ভালো হতো। যদিও এর মধ্যেও দু’তিন মাস চলে গেছে।’

এক সময় ফুটবল খেলেছেন মুক্তিযোদ্ধার ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম। এখন তিনি ক্লাবের কর্মকর্তা। তার কথায়, ‘আমি এক সময় ফুটবল খেলেছি। একজন ফুটবলারের দিক দিয়ে চিন্তা করলে বলব খুব একটা ভালো হয়নি। খারাপ হয়েছে। ক্ষতি হয়েছে ফুটবলারদের। একটি মৌসুম তাদের জীবন থেকে হারিয়ে গেছে। সংগঠক হিসেবে বলব, ক্লাবগুলোরও অনেক ক্ষতি হয়েছে। আমরা পরিস্থিতির শিকার। একই দশা পুরো পৃথিবীর।’ তিনি যোগ করেন, ‘আমাদের মুক্তিযোদ্ধা ক্লাবের আয়ের পথ বন্ধ। তারপরও ফুটবলারদের আমরা ৫০ থেকে ৬০ ভাগ পেমেন্ট দিয়েছি। আমরা যে উদ্দেশ্য নিয়ে দল গড়েছিলাম, তা পূরণ হয়নি। আমরা প্লেয়ারদের সঙ্গে বসব। যাতে খেলোয়াড় ও ক্লাব কারও জন্যই সমস্যা না হয়।’

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত