ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠানে নির্বাচনী প্রচারণা
jugantor
ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠানে নির্বাচনী প্রচারণা

  স্পোর্টস রিপোর্টার  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রিমিয়ার লিগের ২০১৪-১৫ মৌসুমে রানার্সআপ হয়েছিল শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। সেই ট্রফি তারা পেল ছয় বছর পর। তৃতীয় ও দ্বিতীয় বিভাগ, বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগ এবং সিনিয়র ডিভিশন ফুটবল মিলিয়ে ২০১৪-১৫ থেকে ২০১৮-১৯ মৌসুম পর্যন্ত মোট ২৩টি ‘বকেয়া ট্রফি’ প্রাপ্যদের অবশেষে বুঝিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। নির্বাচনের আগে কাল বাফুফে ভবনে ঘটা করে ট্রফি তুলে দেয়া হয় দলগুলোর হাতে। আগামী ৩ অক্টোবর বাফুফের নির্বাচন।

২৩ ট্রফির মধ্যে ছয়টি চ্যাম্পিয়ন, ১১টি রানার্সআপ, তিনটি তৃতীয়, দুটি চতুর্থ ও একটি পঞ্চম স্থানের। ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠানে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনসহ ফেডারেশন ও ক্লাবের অনেক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে বাফুফের দু’জন কর্মকর্তার বক্তব্যে নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। সোমবারের অনুষ্ঠানের বিষয়ে বাফুফের বর্তমান সদস্য ও সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রার্থী শেখ আসলাম আগেই নির্বাচন কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন।

বাফুফে নির্বাচনী তফসিলে ৭ এর ধারায় বলা হয়েছে নির্বাচনী প্রচারণা প্রসঙ্গে। ৭ ধারার ৩ উপধারায় স্পষ্ট বলা হয়েছে, নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর কোনো প্রার্থীর বাফুফে ভবন, স্টেডিয়ামসংলগ্ন এলাকায় প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে ভোট চাওয়া নিষিদ্ধ। কিন্তু ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠানে বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী তার প্রতিদ্বন্দ্বী শেখ আসলাম ও তার বিরোধী প্যানেলের সমালোচনা করেছেন। বাফুফের সদস্য হারুনুর রশিদ কাজী সালাউদ্দিনের সম্মিলিত পরিষদের ইশতেহারে প্রথম-তৃতীয় বিভাগ ক্লাবগুলোর কথা বলেছেন। সালাম ও হারুনের কথায় নির্বাচনী প্রচারণা হয়েছে পরোক্ষভাবে। এ প্রসঙ্গে সালাম মুর্শেদী বলেন, ‘আমি এমন কিছু করিনি যাতে নির্বাচনী বিধি ভঙ্গ হয়। আমরা এখনও দায়িত্বে রয়েছি। সেই দায়িত্ব পালন করেছি ট্রফি প্রদান করে।’

ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠানে নির্বাচনী প্রচারণা

 স্পোর্টস রিপোর্টার 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

প্রিমিয়ার লিগের ২০১৪-১৫ মৌসুমে রানার্সআপ হয়েছিল শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। সেই ট্রফি তারা পেল ছয় বছর পর। তৃতীয় ও দ্বিতীয় বিভাগ, বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগ এবং সিনিয়র ডিভিশন ফুটবল মিলিয়ে ২০১৪-১৫ থেকে ২০১৮-১৯ মৌসুম পর্যন্ত মোট ২৩টি ‘বকেয়া ট্রফি’ প্রাপ্যদের অবশেষে বুঝিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। নির্বাচনের আগে কাল বাফুফে ভবনে ঘটা করে ট্রফি তুলে দেয়া হয় দলগুলোর হাতে। আগামী ৩ অক্টোবর বাফুফের নির্বাচন।

২৩ ট্রফির মধ্যে ছয়টি চ্যাম্পিয়ন, ১১টি রানার্সআপ, তিনটি তৃতীয়, দুটি চতুর্থ ও একটি পঞ্চম স্থানের। ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠানে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনসহ ফেডারেশন ও ক্লাবের অনেক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে বাফুফের দু’জন কর্মকর্তার বক্তব্যে নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। সোমবারের অনুষ্ঠানের বিষয়ে বাফুফের বর্তমান সদস্য ও সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রার্থী শেখ আসলাম আগেই নির্বাচন কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন।

বাফুফে নির্বাচনী তফসিলে ৭ এর ধারায় বলা হয়েছে নির্বাচনী প্রচারণা প্রসঙ্গে। ৭ ধারার ৩ উপধারায় স্পষ্ট বলা হয়েছে, নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর কোনো প্রার্থীর বাফুফে ভবন, স্টেডিয়ামসংলগ্ন এলাকায় প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে ভোট চাওয়া নিষিদ্ধ। কিন্তু ট্রফি প্রদান অনুষ্ঠানে বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী তার প্রতিদ্বন্দ্বী শেখ আসলাম ও তার বিরোধী প্যানেলের সমালোচনা করেছেন। বাফুফের সদস্য হারুনুর রশিদ কাজী সালাউদ্দিনের সম্মিলিত পরিষদের ইশতেহারে প্রথম-তৃতীয় বিভাগ ক্লাবগুলোর কথা বলেছেন। সালাম ও হারুনের কথায় নির্বাচনী প্রচারণা হয়েছে পরোক্ষভাবে। এ প্রসঙ্গে সালাম মুর্শেদী বলেন, ‘আমি এমন কিছু করিনি যাতে নির্বাচনী বিধি ভঙ্গ হয়। আমরা এখনও দায়িত্বে রয়েছি। সেই দায়িত্ব পালন করেছি ট্রফি প্রদান করে।’