ক্রিকেটার থেকে কোচ ফাতেমা
jugantor
ক্রিকেটার থেকে কোচ ফাতেমা

  স্পোর্টস রিপোর্টার  

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সালমা খাতুন, রুমানা আহমেদ, জাহানারা আলমরা এখনও মাঠ মাতিয়ে যাচ্ছেন। দেশের নারী ক্রিকেটের আইকন তারা।

তাদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মাঠে লড়াই করা ফতেমা জোহরা এখন কোচের ভূমিকায়। বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) নারী ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ তিনি।

নারী ক্রিকেটার থেকে এখন নারী ক্রিকেটার গড়ার কারিগর ফাতেমা। কোচিংয়ে যথেষ্ট অভিজ্ঞতা অর্জনের পর বাংলাদেশ দলে কাজ করার স্বপ্ন দেখছেন। শৈশবে বেশ ডানপিটে হলেও মেয়েকে নিয়ে ঘাবড়াতেন না বাবা খলিলুর রহমান। বাবা সরকারি চাকরিজীবী হওয়ায় কুমিল্লার গৌরীপুরের মৌটুপি গ্রামের মেয়ে ফাতেমা বেড়ে উঠেন নারায়ণগঞ্জে।

২০০১ সালে স্কুলের চৌকাঠ পেরিয়েই চলে আসেন ঢাকায়। ২০০৩ সালে এইচএসসি পাশের পর ভর্তি হন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখানেই ক্রিকেট, ফুটবল, হ্যান্ডবল, অ্যাথলেটিক্সসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ক্রীড়া ইভেন্টেই তার অংশগ্রহণ ছিল। এরপর খেলেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলেও। ২০০৭ সালে মিরপুর স্টেডিয়ামসহ পাঁচ ভেন্যুতে দেশের প্রথম নারী ক্রিকেট টুর্নামেন্ট হয়।

আসরে ফাতেমা আলো ছড়ান। ডাক পেয়ে যান প্রথম জাতীয় দলের ক্যাম্পেও। ২০০৯ সালে মাঠে নামেন ফাতেমা বাংলাদেশের হয়ে। ২০১১ সালে জাতীয় দলের ক্যাম্প বাদ দিয়ে কোচিং পেশায় ঢুকে পড়েন। ২০১৯ সালের অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথওয়েলস ক্রিকেট একাডেমির কোচের দায়িত্ব পেয়ে যান। যুগান্তরের সঙ্গে আলাপকালে ফাতেমা বলেন, ‘বাংলাদেশকে নিয়ে আমি বড় স্বপ্ন দেখি।

এখন বিকেএসপির অনূর্ধ্ব-১৯ নারী ক্রিকেটারদের নিয়ে কাজ করছি। ভবিষ্যতে যদি বাংলাদেশ দলে কাজ করার সুযোগ পাই তাহলে সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করব।’

২০১৮ সালে মালয়েশিয়া থেকে আইসিসির লেবেল ২ কোচিং এবং ২০১৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার স্ট্রেংথ ও কন্ডিশনিং অ্যাসোসিয়েশন লেবেল ২ সম্পন্ন করা রয়েছে তার।

ক্রিকেটার থেকে কোচ ফাতেমা

 স্পোর্টস রিপোর্টার 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সালমা খাতুন, রুমানা আহমেদ, জাহানারা আলমরা এখনও মাঠ মাতিয়ে যাচ্ছেন। দেশের নারী ক্রিকেটের আইকন তারা।

তাদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মাঠে লড়াই করা ফতেমা জোহরা এখন কোচের ভূমিকায়। বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (বিকেএসপি) নারী ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ তিনি।

নারী ক্রিকেটার থেকে এখন নারী ক্রিকেটার গড়ার কারিগর ফাতেমা। কোচিংয়ে যথেষ্ট অভিজ্ঞতা অর্জনের পর বাংলাদেশ দলে কাজ করার স্বপ্ন দেখছেন। শৈশবে বেশ ডানপিটে হলেও মেয়েকে নিয়ে ঘাবড়াতেন না বাবা খলিলুর রহমান। বাবা সরকারি চাকরিজীবী হওয়ায় কুমিল্লার গৌরীপুরের মৌটুপি গ্রামের মেয়ে ফাতেমা বেড়ে উঠেন নারায়ণগঞ্জে।

২০০১ সালে স্কুলের চৌকাঠ পেরিয়েই চলে আসেন ঢাকায়। ২০০৩ সালে এইচএসসি পাশের পর ভর্তি হন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখানেই ক্রিকেট, ফুটবল, হ্যান্ডবল, অ্যাথলেটিক্সসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ক্রীড়া ইভেন্টেই তার অংশগ্রহণ ছিল। এরপর খেলেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলেও। ২০০৭ সালে মিরপুর স্টেডিয়ামসহ পাঁচ ভেন্যুতে দেশের প্রথম নারী ক্রিকেট টুর্নামেন্ট হয়।

আসরে ফাতেমা আলো ছড়ান। ডাক পেয়ে যান প্রথম জাতীয় দলের ক্যাম্পেও। ২০০৯ সালে মাঠে নামেন ফাতেমা বাংলাদেশের হয়ে। ২০১১ সালে জাতীয় দলের ক্যাম্প বাদ দিয়ে কোচিং পেশায় ঢুকে পড়েন। ২০১৯ সালের অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথওয়েলস ক্রিকেট একাডেমির কোচের দায়িত্ব পেয়ে যান। যুগান্তরের সঙ্গে আলাপকালে ফাতেমা বলেন, ‘বাংলাদেশকে নিয়ে আমি বড় স্বপ্ন দেখি।

এখন বিকেএসপির অনূর্ধ্ব-১৯ নারী ক্রিকেটারদের নিয়ে কাজ করছি। ভবিষ্যতে যদি বাংলাদেশ দলে কাজ করার সুযোগ পাই তাহলে সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করব।’

২০১৮ সালে মালয়েশিয়া থেকে আইসিসির লেবেল ২ কোচিং এবং ২০১৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার স্ট্রেংথ ও কন্ডিশনিং অ্যাসোসিয়েশন লেবেল ২ সম্পন্ন করা রয়েছে তার।