ক্লপকে ‘কোপ’ জিদানের
jugantor
ক্লপকে ‘কোপ’ জিদানের
রিয়াল মাদ্রিদ ৩, ১ লিভারপুল * ম্যানসিটি ২, ১ ডর্টমুন্ড

  ক্রীড়া ডেস্ক  

০৮ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

তিন বছর আগে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দু’দলের সর্বশেষ দেখায় লিভারপুলকে ৩-১ গোলে হারিয়ে হ্যাটট্রিক শিরোপা জিতেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। সেবার ম্যাচের শুরুতেই রিয়াল অধিনায়ক সের্হিও রামোসের কড়া ট্যাকলে আহত হয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন লিভারপুলের প্রাণভোমরা মোহামেদ সালাহ। এবার চোটের দরুন আগেই দর্শক হয়ে গেছেন রামোস। রিয়ালের আরেক ডিফেন্ডার রাফায়েল ভারানে লড়ছেন করোনার সঙ্গে। সবমিলিয়ে ২০১৮ সালের ফাইনালের প্রতিশোধ নেওয়ার দারুণ সুযোগ ছিল লিভারপুলের। কিন্তু সালাহ গোল পেলেও প্রতিশোধের স্বপ্ন পূরণ হলো না ইংলিশ চ্যাম্পিয়নদের। ব্রাজিলের তরুণ ফরোয়ার্ড ভিনিসিয়ুস জুনিয়রের জোড়া গোলে ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে সেমিফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল রিয়াল। মঙ্গলবার ঘরের মাঠে কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে লিভারপুলকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নরা। আরেক ম্যাচে ফিল ফোডেনের শেষ মুহূর্তের গোলে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে জিতেছে ম্যানসিটি।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হিসেবে জিনেদিন জিদানের ৫০তম ম্যাচ স্মরণীয় করে রাখতে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছেন দুই গোলদাতা। ভিনিসিয়ুস ও মার্কো আসেনসিও। দুই মিডফিল্ডার টনি ক্রুস ও লুকা মদরিচও মুগ্ধতা ছড়িয়েছেন। তবে জিদান হয়তো সবার আগে ধন্যবাদ জানাবেন লিভারপুলের ডিফেন্ডারদের! তিন বছর আগের গোলকিপারের মারাত্মক দুটি ভুলে ভেঙেছিল অলরেডদের শিরোপাস্বপ্ন। এবার দলকে ডুবিয়েছে নড়বড়ে রক্ষণ। ২৭ মিনিটে দারুণ এক প্রতি আক্রমণে রিয়ালকে এগিয়ে দেন ভিনিসিয়ুস। প্রতিপক্ষের রক্ষণ অনেকটা সামনে উঠে এসেছে দেখে নিজেদের অর্ধ থেকে লম্বা ক্রস বাড়ান ক্রুস। বুক দিয়ে বল নামিয়ে নিখুঁত শটে ঠিকানা খুঁজে নেন ভিনিসিয়ুস। ৩৬ মিনিটে রক্ষণের ভুলে আবারও গোল হজম করে লিভারপুল। এবার ক্রুসের ক্রস ক্লিয়ার করতে গিয়ে আসেনসিওর পায়ে বল তুলে দেন আর্নল্ড। গোল করতে বেগ পেতে হয়নি স্প্যানিশ উইঙ্গারকে। ৫১ মিনিটে সালাহর গোলে ব্যবধান কমিয়ে লিভারপুল ম্যাচে ফেরার আভাস দিলেও ৬৫ মিনিটে ভিনিসিয়ুসের দ্বিতীয় গোলে দাপুটে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে রিয়াল। ঝুলিতে একটি অ্যাওয়ে গোল থাকায় ১৪ এপ্রিল অ্যানফিল্ডে ফিরতি ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানোর আশা ছাড়ছেন না লিভারপুল কোচ উয়ুর্গেন ক্লপ।

অ্যাওয়ে গোলের কারণে ঘরের মাঠে জিতেও স্বস্তি পাচ্ছে না ম্যানসিটি। ১৯ মিনিটে কেভিন ডি ব্রুইনের গোলে এগিয়ে যাওয়া সিটির জয় নিশ্চিত হয় ৯০ মিনিটে ফিল ফোডেনের গোলে। ৮৪ মিনিটে আর্লিং হরলাল্ডের পাস থেকে ডর্টমুন্ডকে সমতায় ফিরিয়েছিলেন মার্কো রেউস। তাতে শেষরক্ষা না হলেও একটি অ্যাওয়ে গোল থাকায় ফিরতি ম্যাচ

১-০ ব্যবধানে জিতলেও সেমিতে চলে যাবে ডর্টমুন্ড।

ক্লপকে ‘কোপ’ জিদানের

রিয়াল মাদ্রিদ ৩, ১ লিভারপুল * ম্যানসিটি ২, ১ ডর্টমুন্ড
 ক্রীড়া ডেস্ক 
০৮ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

তিন বছর আগে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দু’দলের সর্বশেষ দেখায় লিভারপুলকে ৩-১ গোলে হারিয়ে হ্যাটট্রিক শিরোপা জিতেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। সেবার ম্যাচের শুরুতেই রিয়াল অধিনায়ক সের্হিও রামোসের কড়া ট্যাকলে আহত হয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন লিভারপুলের প্রাণভোমরা মোহামেদ সালাহ। এবার চোটের দরুন আগেই দর্শক হয়ে গেছেন রামোস। রিয়ালের আরেক ডিফেন্ডার রাফায়েল ভারানে লড়ছেন করোনার সঙ্গে। সবমিলিয়ে ২০১৮ সালের ফাইনালের প্রতিশোধ নেওয়ার দারুণ সুযোগ ছিল লিভারপুলের। কিন্তু সালাহ গোল পেলেও প্রতিশোধের স্বপ্ন পূরণ হলো না ইংলিশ চ্যাম্পিয়নদের। ব্রাজিলের তরুণ ফরোয়ার্ড ভিনিসিয়ুস জুনিয়রের জোড়া গোলে ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে সেমিফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল রিয়াল। মঙ্গলবার ঘরের মাঠে কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে লিভারপুলকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নরা। আরেক ম্যাচে ফিল ফোডেনের শেষ মুহূর্তের গোলে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে ২-১ ব্যবধানে জিতেছে ম্যানসিটি।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হিসেবে জিনেদিন জিদানের ৫০তম ম্যাচ স্মরণীয় করে রাখতে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছেন দুই গোলদাতা। ভিনিসিয়ুস ও মার্কো আসেনসিও। দুই মিডফিল্ডার টনি ক্রুস ও লুকা মদরিচও মুগ্ধতা ছড়িয়েছেন। তবে জিদান হয়তো সবার আগে ধন্যবাদ জানাবেন লিভারপুলের ডিফেন্ডারদের! তিন বছর আগের গোলকিপারের মারাত্মক দুটি ভুলে ভেঙেছিল অলরেডদের শিরোপাস্বপ্ন। এবার দলকে ডুবিয়েছে নড়বড়ে রক্ষণ। ২৭ মিনিটে দারুণ এক প্রতি আক্রমণে রিয়ালকে এগিয়ে দেন ভিনিসিয়ুস। প্রতিপক্ষের রক্ষণ অনেকটা সামনে উঠে এসেছে দেখে নিজেদের অর্ধ থেকে লম্বা ক্রস বাড়ান ক্রুস। বুক দিয়ে বল নামিয়ে নিখুঁত শটে ঠিকানা খুঁজে নেন ভিনিসিয়ুস। ৩৬ মিনিটে রক্ষণের ভুলে আবারও গোল হজম করে লিভারপুল। এবার ক্রুসের ক্রস ক্লিয়ার করতে গিয়ে আসেনসিওর পায়ে বল তুলে দেন আর্নল্ড। গোল করতে বেগ পেতে হয়নি স্প্যানিশ উইঙ্গারকে। ৫১ মিনিটে সালাহর গোলে ব্যবধান কমিয়ে লিভারপুল ম্যাচে ফেরার আভাস দিলেও ৬৫ মিনিটে ভিনিসিয়ুসের দ্বিতীয় গোলে দাপুটে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে রিয়াল। ঝুলিতে একটি অ্যাওয়ে গোল থাকায় ১৪ এপ্রিল অ্যানফিল্ডে ফিরতি ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানোর আশা ছাড়ছেন না লিভারপুল কোচ উয়ুর্গেন ক্লপ।

অ্যাওয়ে গোলের কারণে ঘরের মাঠে জিতেও স্বস্তি পাচ্ছে না ম্যানসিটি। ১৯ মিনিটে কেভিন ডি ব্রুইনের গোলে এগিয়ে যাওয়া সিটির জয় নিশ্চিত হয় ৯০ মিনিটে ফিল ফোডেনের গোলে। ৮৪ মিনিটে আর্লিং হরলাল্ডের পাস থেকে ডর্টমুন্ডকে সমতায় ফিরিয়েছিলেন মার্কো রেউস। তাতে শেষরক্ষা না হলেও একটি অ্যাওয়ে গোল থাকায় ফিরতি ম্যাচ

১-০ ব্যবধানে জিতলেও সেমিতে চলে যাবে ডর্টমুন্ড।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন