মরিনহোর ফেভারিট ফ্রান্স
jugantor
মরিনহোর ফেভারিট ফ্রান্স

  ক্রীড়া ডেস্ক  

১২ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

২৪ দেশের মহাদেশীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট ইউরো ২০২০ শুরু হয়েছে ইতালি-তুরস্ক ম্যাচ দিয়ে।

এক মাস ধরে চলবে এই ফুটবলযজ্ঞ। খেলা হবে ইউরোপের ১১ দেশের ১১টি ভিন্ন ভেন্যুতে।

ফুটবল পণ্ডিতরাও বসে নেই। ইউরোতে কারা ফেভারিট, সম্ভাব্য শিরোপাজয়ী কারা, এ নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন তারা। দেখে নেওয়া যাক তাদের প্রিয় দল কারা-

হোসে মরিনহোর ফেভারিট ফ্রান্স। তার ভাষায়, ‘ফ্রান্সের একমাত্র দুর্বলতা এই যে, তাদের দলে ভালো খেলোয়াড় অনেক বেশি। ইউরো জিততেই হবে ওদের। যদি ফ্রান্স চ্যাম্পিয়ন না হয়, তাহলে এবারের ইউরো হবে অসফল।’

গ্যারি নেভিলের বাজি ইংল্যান্ডের পক্ষে। অ্যালেক্স স্কট বেলজিয়ামকে দেখছেন ফাইনালে খেলতে। শুধু তাই নয়, ফিফা র‌্যাংকিংয়ে বিশ্বের একনম্বর দল চ্যাম্পিয়ন হবে, এই বিশ্বাস তার। এদিকে রয় কিন ইংল্যান্ড নয়, ইতালিকে সম্ভাব্য শিরোপাজয়ী মানছেন। ‘ফ্রান্স শক্তিশালী। তবে আমার মন বলছে, চ্যাম্পিয়ন হবে ইতালি,’ বলেছেন কিন। নিউক্যাসল লিজেন্ড অ্যালান শিয়েরার ফ্রান্সের শিরোপা জয়ের ব্যাপারে নিশ্চিত। তার মতে, ‘ফ্রান্সই হাসবে শেষ হাসি। ওদের দলে প্রতিভার কোনো অভাব নেই।’ ওয়েস্ট হাম ও টটেনহামের সাবেক কোচ হ্যারি রেডন্যাপ আবার নিজের দেশ ইংল্যান্ডকেই এগিয়ে রাখছেন।

‘আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে আমি এখন শতভাগ নিশ্চিত যে, ইংল্যান্ড পুরোটা পথ পাড়ি দেবে সফলতার সঙ্গে,’ এতটাই আত্মবিশ্বাসী রেডন্যাপ। তার কথায়, ‘ইংল্যান্ড যদি ইউরো না জেতে, আমি যারপরনাই হতাশ হব।’ সাবেক ইংল্যান্ড স্ট্রাইকার গ্যারি লিনেকারের পক্ষপাতিত্ব ফ্রান্সের প্রতি। তিনি বলেছেন, ‘পাঁচ বছর আগে ওরা ফাইনালে হেরেছিল। তিন বছর আগে বিশ্বকাপ জিতেছে। করিম বেনজেমা ফিরেছে। ওদের তরুণ খেলোয়াড়রাও দুর্দান্ত।’ রিও ফার্দিনান্দও ফ্রান্সকে সম্ভাব্য চ্যাম্পিয়ন হিসাবে দেখছেন। তার ভাষায়, ‘ফ্রান্স দলের গভীরতা অনেক বেশি। প্রতিভায় ভরা গোটা দল। এজন্যই ওরা আমার ভেফারিট।’ ইয়ান রাশ বাজি ধরেছেন ইতালির পক্ষে।

এদিকে ব্রিটেনের একটি গণমাধ্যমের জরিপের ফলাফলে ৪৩ শতাংশ উত্তরদাতা ফ্রান্সকে ইউরোর সম্ভাব্য শিরোপাজয়ী হিসাবে রায় দিয়েছেন। মাত্র ২৩ শতাংশ পাঠকের মতে, চ্যাম্পিয়ন হবে ইংল্যান্ড।

মরিনহোর ফেভারিট ফ্রান্স

 ক্রীড়া ডেস্ক 
১২ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

২৪ দেশের মহাদেশীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট ইউরো ২০২০ শুরু হয়েছে ইতালি-তুরস্ক ম্যাচ দিয়ে।

এক মাস ধরে চলবে এই ফুটবলযজ্ঞ। খেলা হবে ইউরোপের ১১ দেশের ১১টি ভিন্ন ভেন্যুতে।

ফুটবল পণ্ডিতরাও বসে নেই। ইউরোতে কারা ফেভারিট, সম্ভাব্য শিরোপাজয়ী কারা, এ নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন তারা। দেখে নেওয়া যাক তাদের প্রিয় দল কারা-

হোসে মরিনহোর ফেভারিট ফ্রান্স। তার ভাষায়, ‘ফ্রান্সের একমাত্র দুর্বলতা এই যে, তাদের দলে ভালো খেলোয়াড় অনেক বেশি। ইউরো জিততেই হবে ওদের। যদি ফ্রান্স চ্যাম্পিয়ন না হয়, তাহলে এবারের ইউরো হবে অসফল।’

গ্যারি নেভিলের বাজি ইংল্যান্ডের পক্ষে। অ্যালেক্স স্কট বেলজিয়ামকে দেখছেন ফাইনালে খেলতে। শুধু তাই নয়, ফিফা র‌্যাংকিংয়ে বিশ্বের একনম্বর দল চ্যাম্পিয়ন হবে, এই বিশ্বাস তার। এদিকে রয় কিন ইংল্যান্ড নয়, ইতালিকে সম্ভাব্য শিরোপাজয়ী মানছেন। ‘ফ্রান্স শক্তিশালী। তবে আমার মন বলছে, চ্যাম্পিয়ন হবে ইতালি,’ বলেছেন কিন। নিউক্যাসল লিজেন্ড অ্যালান শিয়েরার ফ্রান্সের শিরোপা জয়ের ব্যাপারে নিশ্চিত। তার মতে, ‘ফ্রান্সই হাসবে শেষ হাসি। ওদের দলে প্রতিভার কোনো অভাব নেই।’ ওয়েস্ট হাম ও টটেনহামের সাবেক কোচ হ্যারি রেডন্যাপ আবার নিজের দেশ ইংল্যান্ডকেই এগিয়ে রাখছেন।

‘আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে আমি এখন শতভাগ নিশ্চিত যে, ইংল্যান্ড পুরোটা পথ পাড়ি দেবে সফলতার সঙ্গে,’ এতটাই আত্মবিশ্বাসী রেডন্যাপ। তার কথায়, ‘ইংল্যান্ড যদি ইউরো না জেতে, আমি যারপরনাই হতাশ হব।’ সাবেক ইংল্যান্ড স্ট্রাইকার গ্যারি লিনেকারের পক্ষপাতিত্ব ফ্রান্সের প্রতি। তিনি বলেছেন, ‘পাঁচ বছর আগে ওরা ফাইনালে হেরেছিল। তিন বছর আগে বিশ্বকাপ জিতেছে। করিম বেনজেমা ফিরেছে। ওদের তরুণ খেলোয়াড়রাও দুর্দান্ত।’ রিও ফার্দিনান্দও ফ্রান্সকে সম্ভাব্য চ্যাম্পিয়ন হিসাবে দেখছেন। তার ভাষায়, ‘ফ্রান্স দলের গভীরতা অনেক বেশি। প্রতিভায় ভরা গোটা দল। এজন্যই ওরা আমার ভেফারিট।’ ইয়ান রাশ বাজি ধরেছেন ইতালির পক্ষে।

এদিকে ব্রিটেনের একটি গণমাধ্যমের জরিপের ফলাফলে ৪৩ শতাংশ উত্তরদাতা ফ্রান্সকে ইউরোর সম্ভাব্য শিরোপাজয়ী হিসাবে রায় দিয়েছেন। মাত্র ২৩ শতাংশ পাঠকের মতে, চ্যাম্পিয়ন হবে ইংল্যান্ড।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন