যে জয়েও রোমার পতন!

লিভারপুল-রিয়াল ফাইনাল

  এএফপি/ওয়েবসাইট। ০৪ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

স্কোরলাইনটা রোমানদের

স্কোরলাইনটা রোমানদের জন্য চিরকালের এক আক্ষেপ হয়ে থাকবে।

রোমা ৪, লিভারপুল ২। কোয়ার্টার ফাইনালে বার্সেলোনার বিপক্ষে সেই অবিশ্বাস্য জয়ের পর সেমিফাইনালে আরেকটি অলৌকিক প্রত্যাবর্তনের রূপকথা লিখতে প্রাণপণে লড়ল রোমা। রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে ছিনিয়ে নিল দারুণ এক জয়। কিন্তু স্বপ্ন ছোঁয়ার খুব কাছে গিয়েও শেষটা হল হতাশায়। এ এমন এক জয়, যা চায়নি রোমা। যে জয় শুধু আফসোসই বাড়ায়। বুধবার নিজেদের আঙিনায় সেমির লেগে লিভারপুলের বিপক্ষে ৪-২ গোলের জয়ও রোমাকে নিয়ে যেতে পারেনি ফাইনালের মঞ্চে। দু’লেগ মিলিয়ে ৭-৬ গোলের অগ্রগামিতায় রোমার হৃদয় ভেঙে দীর্ঘ ১১ বছর পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে উঠেছে লিভারপুল। ২৬ মে কিয়েভের ফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হবে অলরেডরা। ১৯৮১ সালে সর্বশেষ ফাইনালে দেখা হয়েছিল দুই পরাশক্তির। সেবার শেষ হাসি হেসেছিল লিভারপুল।

পাঁচবারের ইউরো চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল এবার সোনালি অতীতের স্মৃতি ফিরিয়ে এনে গ্রুপপর্ব থেকেই দারুণ আক্রমণাত্মক ফুটবল উপহার দিচ্ছে। কোয়ার্টার ফাইনালে ম্যানসিটির মতো দলও দাঁড়াতে পারেনি তাদের সামনে। গত সপ্তাহে অ্যানফিল্ডে সেমির প্রথম লেগেও রোমাকে ৫-২ গোলে উড়িয়ে দিয়েছিল জুর্গেন ক্লপের দল। এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে পরাজয়ের প্রথম তেতো স্বাদ পেল তারা রোমার মাঠে। তাতে অবশ্য সালাহদের স্বপ্নযাত্রায় ছেদ পড়েনি। প্রথমার্ধেই দুই গোল করে রক্ষাকবচ পেয়ে গিয়েছিল লিভারপুল। দ্বিতীয়ার্ধে রোমা দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ালেও কঠিনতম সমীকরণটা মেলাতে পারেনি। তবে গল্পটা অন্যরকম হতে পারত। ৪৯ ও ৬৩ মিনিটে রেফারির ভুলে দুটি নিশ্চিত পেনাল্টি থেকে বঞ্চিত হয়েছে রোমা। ৩৫ মিনিটে তারা গোলবঞ্চিত হয়েছে পোস্ট-দুর্ভাগ্যে। নিজেদের দায়ও কম নয়। লিভারপুলের প্রথম গোলের উৎস ছিল রোমার বেলজিয়ান মিডফিল্ডার নাইনগোলানের একটি অমার্জনীয় ভুল পাস। সবমিলিয়ে নিজেদের ফাইনালে ওঠার পেছনে ভাগ্যের ভূমিকা অস্বীকার করতে পারছেন না লিভারপুল কোচ জুর্গেন ক্লপ, ‘ভাগ্য ছাড়া আপনি এগোতে পারবেন না। রোমে ভাগ্য আমাদের সহায় ছিল। আগের দিন রিয়াল মাদ্রিদেরও ভাগ্যের সহায়তা লেগেছিল। ব্যাপারটা এমনই। তবে নিঃসন্দেহে ফাইনাল আমাদের প্রাপ্য।’ রোমা অবশ্য ভাগ্য নয়, কাঠগড়ায় তুলছে উয়েফাকে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের মতো টুর্নামেন্টে ভিডিও অ্যাসিসটেন্ট রেফারিং (ভিএআর) প্রযুক্তি ব্যবহার না করাটা খেপিয়ে তুলেছে তাদের। রোমা চেয়ারম্যান জেমস পালোত্তোর দাবি, রেফারির ভুলেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে ওঠা হয়নি তাদের। আর সেই ভুলের জন্য তিনি দায়ী করছেন উয়েফাকে, ‘চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ভিএআর না থাকাটা নির্মম রসিকতা। আমি জানি রেফারিং করা খুব কঠিন কিন্তু এটা খুবই লজ্জার যখন এভাবে আমাদের বিদায় নিতে হয়।’

ম্যাচের শুরুতেই নাইনগোলানের ভুল পাসের খেসারত দিয়ে গোল হজম করতে হয় স্বাগতিকদের। নয় মিনিটে লিভারপুলকে এগিয়ে দেন সাদিও মানে। ১৫ মিনিটে জেমস মিলনারের আত্মঘাতী গোলে সমতায় ফেরে রোমা। মিনিটদশেক পর লিভারপুলকে ফের এগিয়ে দেন উইনালদাম।

৫২ মিনিটে এডিন জেকোর গোলে সমতায় ফিরেই আক্রমণের ঢেউ

তুলেছিল রোমানরা। কিন্তু তৃতীয় গোলের দেখা মেলে ৮৬ মিনিটে এসে।

ভুল পাসের প্রায়শ্চিত্ত করে দুর্দান্ত শটে রোমাকে এগিয়ে দেন নাইনগোলান। ম্যাচ অতিরিক্ত সময়ে নিয়ে যেতে আরও দুই গোলের প্রয়োজন ছিল

রোমার। কিন্তু দেখা মেলে একটির। সেটাও ইনজুরি টাইমের একেবারে শেষ মুহূর্তে। পেনাল্টি থেকে নাইনগোলানের শেষ গোলটি শুধু আফসোসই বাড়িয়েছে রোমার।

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.