হারের বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে ফুটবল
jugantor
হারের বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে ফুটবল

  ক্রীড়া প্রতিবেদক  

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

গোলাম সারোয়ার টিপু, শেখ মো. আসলাম, আশরাফউদ্দিন আহমেদ চুন্নু

হারের বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে দেশের ফুটবল। প্রায় দুই যুগে আন্তর্জাতিক আসরে নেই কোনো সাফল্য। দক্ষিণ এশিয়ার বিশ্বকাপ খ্যাত সাফ ফুটবলের গত চার আসরে গ্রুপপর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছে বাংলাদেশ।

অথচ কয়েক মাস আগে বর্তমান জাতীয় দলকে বিগত ৫০ বছরের সেরার তকমা দিয়েছিলেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। আগামী মাসে মালদ্বীপে আবার শুরু হচ্ছে আরেকটি সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ।

টুর্নামেন্টের দিন ১৫ আগে সালাউদ্দিনের পছন্দের তালিকা থেকে বাদ পড়লেন ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে। নতুন কোচ হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে বসুন্ধরা কিংসের অস্কার ব্রুজোনকে। কেউ বলছেন, এটা সালাউদ্দিনের স্টান্ডবাজি। কেউ বলছেন, জেমিকে বসিয়ে বেতন দেওয়াটা অস্বাভাবিক। কারও কথা, ফুটবল সমর্থকদের বিভ্রান্ত করার জন্যই এমন সিদ্ধান্ত কাজী সালাউদ্দিনের। সাবেক ফুটবলারদের কথা তুলে ধরা হলো-

গোলাম সারোয়ার টিপু, জাতীয় দলের সাবেক কোচ

জাতীয় দলের অনুশীলন তো এখনো শুরু হয়নি। লিগ শেষ হবে আজ। তাদের ফিটনেস নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। আমার মনে হয়, জেমি ডে তার পরিকল্পনায় অস্থিরতা দেখিয়েছেন। জেমির পরিবর্তনটা অস্বাভাবিক মনে হয়নি। কিন্তু তাকে যেভাবে রাখা হয়েছে সেটা অস্বাভাবিক। কারণ তাকে বহিষ্কার করা হয়নি। কিংবা বাদও দেওয়া হয়নি। সে থাকবে কিন্তু কাজ করবে না। নতুন কোচের ক্লাব বসুন্ধরার অনেক ফুটবলারই জাতীয় দলে রয়েছে। তাই দলের ওপর কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে মনে হয় না।

আশরাফউদ্দিন আহমেদ চুন্নু, জাতীয় দলের সাবেক তারকা ফুটবলার

কাজী সালাউদ্দিন কখন কী বলেন, আমি কিছুই বুঝি না। যখন যা মনে চায় তাই করেন। বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম দেখলাম একজন কোচকে ভর্তুকি দিয়ে নতুন কোচ নিয়োগ দিল বাফুফে। আমি আশ্চর্য হলাম। সাফের ঠিক ১৫ দিন আগে জেমিকে বাদ দিয়ে নেওয়া

হলো অস্কারকে। আসলে মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্যই এগুলো করে থাকেন কাজী সালাউদ্দিন। মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি অন্য দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য তিনি কিছু চমক দেন। এই চমকগুলো খেলার মাঠে জিতে দিলেই ভালো হতো।

শেখ মো. আসলাম, জাতীয় দলের সাবেক তারকা ফুটবলার

বাফুফের সভাপতির চেয়ারটিতে ইমোশনাল

কথা বলার জন্য কাউকে বসানো হয়নি। স্টান্টবাজি করা ঠিক না। যে কোনো কথা বললে ভেবেচিন্তে বলা উচিত। দূরদর্শিতা না থাকলে এগুলো বলা উচিত নয়। যে টিম নিয়ে তারা সাফে যাচ্ছেন, ভালো করার কোনো উপায় নেই। কারণ বাংলাদেশের জাতীয় দলের বর্তমান অবস্থা এর চেয়ে ভালো কিছু নয়। র‌্যাংকিংয়েও এখন অনেক পিছিয়ে। খেলাতেও তাই হবে। কাজী সালাউদ্দিন অতীতেও অনেক ব্যর্থতার বুলি আওড়েছেন। এখনো তাই।

হারের বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে ফুটবল

 ক্রীড়া প্রতিবেদক 
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
গোলাম সারোয়ার টিপু, শেখ মো. আসলাম, আশরাফউদ্দিন আহমেদ চুন্নু
গোলাম সারোয়ার টিপু, শেখ মো. আসলাম, আশরাফউদ্দিন আহমেদ চুন্নু (বাঁ থেকে)

হারের বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে দেশের ফুটবল। প্রায় দুই যুগে আন্তর্জাতিক আসরে নেই কোনো সাফল্য। দক্ষিণ এশিয়ার বিশ্বকাপ খ্যাত সাফ ফুটবলের গত চার আসরে গ্রুপপর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছে বাংলাদেশ।

অথচ কয়েক মাস আগে বর্তমান জাতীয় দলকে বিগত ৫০ বছরের সেরার তকমা দিয়েছিলেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। আগামী মাসে মালদ্বীপে আবার শুরু হচ্ছে আরেকটি সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ।

টুর্নামেন্টের দিন ১৫ আগে সালাউদ্দিনের পছন্দের তালিকা থেকে বাদ পড়লেন ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে। নতুন কোচ হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে বসুন্ধরা কিংসের অস্কার ব্রুজোনকে। কেউ বলছেন, এটা সালাউদ্দিনের স্টান্ডবাজি। কেউ বলছেন, জেমিকে বসিয়ে বেতন দেওয়াটা অস্বাভাবিক। কারও কথা, ফুটবল সমর্থকদের বিভ্রান্ত করার জন্যই এমন সিদ্ধান্ত কাজী সালাউদ্দিনের। সাবেক ফুটবলারদের কথা তুলে ধরা হলো-

গোলাম সারোয়ার টিপু, জাতীয় দলের সাবেক কোচ

জাতীয় দলের অনুশীলন তো এখনো শুরু হয়নি। লিগ শেষ হবে আজ। তাদের ফিটনেস নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। আমার মনে হয়, জেমি ডে তার পরিকল্পনায় অস্থিরতা দেখিয়েছেন। জেমির পরিবর্তনটা অস্বাভাবিক মনে হয়নি। কিন্তু তাকে যেভাবে রাখা হয়েছে সেটা অস্বাভাবিক। কারণ তাকে বহিষ্কার করা হয়নি। কিংবা বাদও দেওয়া হয়নি। সে থাকবে কিন্তু কাজ করবে না। নতুন কোচের ক্লাব বসুন্ধরার অনেক ফুটবলারই জাতীয় দলে রয়েছে। তাই দলের ওপর কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে মনে হয় না।

আশরাফউদ্দিন আহমেদ চুন্নু, জাতীয় দলের সাবেক তারকা ফুটবলার

কাজী সালাউদ্দিন কখন কী বলেন, আমি কিছুই বুঝি না। যখন যা মনে চায় তাই করেন। বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম দেখলাম একজন কোচকে ভর্তুকি দিয়ে নতুন কোচ নিয়োগ দিল বাফুফে। আমি আশ্চর্য হলাম। সাফের ঠিক ১৫ দিন আগে জেমিকে বাদ দিয়ে নেওয়া

হলো অস্কারকে। আসলে মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্যই এগুলো করে থাকেন কাজী সালাউদ্দিন। মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি অন্য দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য তিনি কিছু চমক দেন। এই চমকগুলো খেলার মাঠে জিতে দিলেই ভালো হতো।

শেখ মো. আসলাম, জাতীয় দলের সাবেক তারকা ফুটবলার

বাফুফের সভাপতির চেয়ারটিতে ইমোশনাল

কথা বলার জন্য কাউকে বসানো হয়নি। স্টান্টবাজি করা ঠিক না। যে কোনো কথা বললে ভেবেচিন্তে বলা উচিত। দূরদর্শিতা না থাকলে এগুলো বলা উচিত নয়। যে টিম নিয়ে তারা সাফে যাচ্ছেন, ভালো করার কোনো উপায় নেই। কারণ বাংলাদেশের জাতীয় দলের বর্তমান অবস্থা এর চেয়ে ভালো কিছু নয়। র‌্যাংকিংয়েও এখন অনেক পিছিয়ে। খেলাতেও তাই হবে। কাজী সালাউদ্দিন অতীতেও অনেক ব্যর্থতার বুলি আওড়েছেন। এখনো তাই।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন