স্বপ্ন তাদের আকাশ ছোঁয়ার

  যুগান্তর ডেস্ক    ১৮ আগস্ট ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

৫৬ বছরের ব্যবধানে দু’বার এশিয়ান গেমসের আয়োজন করল ইন্দোনেশিয়া। ১৯৬২ সালে জাকার্তায়। এবার জাকার্তা ও পালেম্বাংয়ে। কয়েক লাখ পর্যটক, ক্রীড়াবিদের পদচারণায় মুখরিত শহর দুটি। আয়োজনে খুশি দেশটির অলিম্পিক কমিটি। এবার তাদের লক্ষ্য অলিম্পিক গেমসের আয়োজন।

২০৩২ সালে বিশ্বসেরা এই গেমস আয়োজন করতে চায় ইন্দোনেশিয়া। জাকার্তা এশিয়ান গেমসের মিডিয়া কমিটির ভাইস কো-অর্ডিনেটর এম বুলদানসিয়া ড্যানির কথায়, ‘২০৩২ সালে অলিম্পিক গেমস আয়োজনের লক্ষ্য নিয়ে আমরা এগোচ্ছি। অবশ্য তা নির্ভর করছে এবারের এশিয়ান গেমসে আমরা কতটা সফল হব, তার ওপর।’

বৃহস্পতিবার জাকার্তা কনভেনশন সেন্টারে সরব মিডিয়া কর্মীরা। ১০ আগস্ট মিডিয়া সেন্টারের কার্যক্রম শুরু হলেও আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়নি এতদিন। হল কাল। অলিম্পিক কাউন্সিল অব এশিয়ার (ওসিএ) সহ-সভাপতি উই জিজং প্রধান অতিথি হিসেবে প্রেস সেন্টারের উদ্বোধন করেন। ওসিএ মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান চার্লস ল স্বাগত বক্তব্যে বলেন, ‘গেমসের অন্যতম প্রাণ গণমাধ্যম। গণমাধ্যমকে কাজের সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধা দিতে আমরা প্রস্তুত।’ উদ্বোধনের পর জাকার্তার ঐতিহ্যবাহী কামবাং নৃত্য পরিবেশন করে সাত কিশোরী। নৃত্যের পর অলিম্পিক কাউন্সিল অব এশিয়া (ওসিএ) এবং লোকাল অর্গানাইজিং কমিটির (এলওসি) কর্তারা প্রেস সেন্টার ঘুরে দেখেন। পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন ওসিএ সহ-সভাপতি উই জিজং। সাতটি এশিয়ান গেমস আয়োজনে জড়িত ছিলেন তিনি। তবে একটির সঙ্গে আরেকটি গেমসের তুলনা করতে চাননি সতর্ক জিজং। তার কথায়, ‘প্রতি গেমসই সেরা। একটির সঙ্গে আরেকটির তুলনা করা ঠিক নয়। চীন বিপুল জনসংখ্যার দেশ। জনসংখ্যা, অর্থনীতির ওপর অনেক কিছু নির্ভর করে। প্রত্যেক দেশই চেষ্টা করে তাদের সেরাটা দিয়ে আয়োজন করার।’

১৯৬২ সালের পর আবার এশিয়ান গেমসের আয়োজক হয়েছে ইন্দোনেশিয়া। ইন্দোনেশিয়ার অলিম্পিক অ্যাসোসিশেয়নের কর্মকর্তা ড্যানি বলেন, ‘এটি আমাদের দ্বিতীয় এশিয়ান গেমস। চেষ্টা করব আগের এশিয়ান গেমসগুলোর চেয়ে আরও বেশি বর্ণিল করতে।’ গেমসের বাজেট ৪০০ মিলিয়র ডলার। বজেটের ৮৫ শতাংশের জোগান দিয়েছে সরকার। বাকি ১৫ শতাংশ এসেছে স্পন্সরদের কাছ থেকে। গেমস ইন্দোনেশিয়ার আর্থ-সামাজিক অবস্থানে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলে ধারণা ড্যানির, ‘গেমস উপলক্ষে কয়েক লাখ পর্যটক আসবে। হোটেল থেকে শুরু মার্চেন্ডাইজিং অনেক ব্যবসা হচ্ছে। যা আমাদের অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।’ দুই শহরে গেমস নিয়ে ড্যানির কথা, ‘দুই শহরে করার নেতিবাচক দিকও রয়েছে। খরচ বেড়েছে অনেক। আবার দুই শহরে করতে হচ্ছে। কারণ জাকার্তায় সব ডিসিপ্লিন আয়োজন করা সম্ভব নয়।’ শনিবার গেমসের উদ্বোধন। ড্যানি বলেন, ‘সমাপনী অনুষ্ঠানে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির সভাপতি আসবেন। গেমস পর্যবেক্ষণ করতে আইওসি’র পর্যবেক্ষক এসেছেন ইতিমধ্যে। আমরা ২০৩২ অলিম্পিক গেমস আয়োজনের পরিকল্পনা করছি। আমাদের এক সহ-সভাপতি ইতিমধ্যে এ ব্যাপারে বিবৃতি দিয়েছেন।’ শুধু আয়োজন নয়, পদক তালিকার দিকেও ভালো অবস্থানে থাকতে চায় স্বাগতিকরা, ‘পদক তালিকায় আমরা শীর্ষ দশে থাকতে চাই।’

ইন্দোনেশিয়া ব্যাডমিন্টনে অলিম্পিকে পদক পায়। ব্যাডমিন্টনের পাশাপাশি অ্যাকুয়েস্টিক, উশু, ভারোত্তোলন, অ্যাথলেটিক্সে স্বর্ণ পাওয়ার আশা স্বাগতিকদের।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter