অনেক এগিয়েছে ভারত পিছিয়েছে বাংলাদেশ

প্রকাশ : ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক   

ক্রীড়াঙ্গন শাসন করে আসছে চীন ও জাপান। অলিম্পিক কিংবা এশিয়ান গেমস- আধিপত্য তাদেরই।জাকার্তা এশিয়ান গেমসেও ছিল এ দু’দেশের দাপট। শীর্ষে চীন। দ্বিতীয় স্থানে জাপান। এদিকে অনেক এগিয়েছে ভারত। আর অনেক পিছিয়েছে বাংলাদেশ।

গেমসে চীনের দাপটে দিশেহারা অন্য দেশগুলো। প্রায় পৌনে দু’শ কোটি লোকের দেশটি একের পর এক সোনা জিতেছে এবারের গেমসেও। ১৩২টি স্বর্ণ, ৯২টি রুপা ও ৬৫টি ব্রোঞ্জপদক জিতে টানা ১০ বছর শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে তারা। তবে এবার সোনা জয়ের সংখ্যা কমেছে তাদের। ২০১০ গুয়াংজুতে ১৯৯ আর ইনচনে ১৫১ সোনা জিতেছিল চীন।

৭৫টি সোনা, ৫৬টি রুপা ও ৭৪টি ব্রোঞ্জ জিতে দ্বিতীয় স্থানে থেকে এবারের গেমস শেষ করেছে জাপান। ১৯৬৬ সালে জেতা ৭৮টি সোনা তাদের সর্বোচ্চ। সাঁতারে সর্বোচ্চ ১৯টি সোনার পাশাপাশি তারা প্রথমবার সোনা জিতেছে ছেলেদের হকিতে। মেয়েদের হকির সোনাও তাদের। সাঁতারে ছয় সোনাসহ রেকর্ড আট পদক জেতা জাপানের রিকি ইকাকো হয়েছেন গেমসের সেরা অ্যাথলেট।

এর আগে ১৯৮২-তে গো জিন ম্যান জিতেছিলেন আটটি পদক। তার আট পদকের মধ্যে ছিল সাতটি স্বর্ণ। আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি ও এশিয়ান অলিম্পিক কমিটির প্রধান টমাস বাখ রোববার ইকাকোর হাতে ৫০ হাজার ডলারের চেক তুলে দেন।

চমক দেখিয়েছে স্বাগতিক ইন্দোনেশিয়া ও ভারত। নিজেদের ইতিহাসে রেকর্ড ৩১ সোনাসহ ৯৮টি পদক জিতেছে ইন্দোনেশিয়া। এবারের আসরে স্বাগতিক হিসেবে বেশক’টি ডিসিপ্লিন তারা যুক্ত করেছিল। সর্বাধিক ২০টি সোনা এসেছে নতুন ডিসিপ্লিন পেনাক সিলাত থেকে।

দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা এবং প্রস্তুতিতে সফলতার মুখ দেখেছে দেড়শ’কোটি মানুষের দেশ ভারতও। ১৫টি স্বর্ণ, ২৪টি রুপা ও ৩০টি ব্রোঞ্জ জিতে এশিয়ান গেমসে নিজেদের ইতিহাস সমৃদ্ধ করেছে তারা। আর ৩২ বছর পর পদকশূন্য রইল বাংলাদেশ।

জাকার্তা থেকে একটি শিক্ষণীয় বিষয় হল, দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা ছাড়া কোনো গেমসেই পদক জেতা সম্ভব নয়। বিষয়টি স্বীকার করেছেন বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসো-সিয়েশনের (বিওএ) মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। তার কথায়, ‘দেশের ক্রীড়াঙ্গনকে ঢেলে সাজানোর সময় এসেছে। এজন্য সরকার, ক্রীড়া মন্ত্রণালয় থেকে শুরু করে সব বিভাগকে একসঙ্গে বসতে হবে। সিদ্ধান্ত নিতে হবে এখনই।’